• বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৪২ পূর্বাহ্ন |

বিরামপুরে বাড়ি বাড়ি ভেজাল মসলা তৈরীর কারখানা

মসল্লাআকতার হোসেন বকুল, হিলি: বিরামপুরে প্রকাশ্যে পরিবেশ ছাড়পত্র ও বিএসটিআই এর অনুমোদন ছাড়া পৌরসভা আইন ভঙ্গ করে বসতবাড়ী সংলগ্ন দোকান ঘরে কারখানা তৈরী করে ক্যামিকেল মিশ্রিত ভেজাল শুকনো গুড়ো ঝাল, হলুদ, বেসনসহ বিভিন্ন ধনের মসলা তৈরীর অভিযোগ পাওয়া গেছে। দিন-রাত ক্যামিকেল মিশ্রিত শুকনো মরিচ, হলুদ ভাঙ্গানোর ফলে এলাকাবাসী মরিচের বিষাক্ত ঝাঁঝাঁলো গন্ধের কারনে বিভিন্ন রোগে আক্রান্তসহ দুর্বিসহ জীবন যাপন করছেন। এ ঘটনায় এলাকাবাসী পরিবেশ অধিদপ্তর, বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতি (বেলা), ইউএনও, পৌর মেয়রসহ সংশ্লিষ্ট কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। এদিকে পরিবেশ অধিদপ্তরের লিখিত অভিযোগ দেওয়ার পরও কর্মকর্তারা সরেজমিনে এসে বসতবাড়ী সংলগ্ন কলাকারখানা স্থাপন করে মরিচ ভাঙ্গার ফলে মারাত্মক পরিবেশ দুষনের সত্যতা পেলেও আজ্ঞাত কারনে তাঁরা এসবের বিরুদ্ধে আজ পর্যন্ত কোন ব্যবস্থা না নেওয়ায় এলাকাবাসী ােভ প্রকাশ করেছে। এঘটনায় গত বছর ২৩ অক্টোবর পরিবেশ ও বন মন্ত্রলায় এবং শিল্প মন্ত্রণালয়ের সচিব, পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, দিনাজপুর জেলা প্রশাসক, পরিবেশ অধিদপ্তরের রাজশাহী বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক, বিরামপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং বিরামপুর পৌর মেয়রের কাছে বেলার পক্ষ থেকে লিগ্যাল নোটিশ পাঠানো হয়। কিন্তু এরপরও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপ কোন ব্যবস্থা না নেওয়ায় এঘটনায় বেলার প থেকে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে। সরেজমিনে গেলে গোলাম রব্বানী (৯০), পরেশ মন্ডল (৬৫), রকেট মন্ডল (৪২) ইমরান হোসেন (৩২) সহ অর্ধশতাধিক গ্রামবাসী ও স্থানীয় ব্যবসায়ীদের লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, পৌর শহরের বিরামপুর পুরাতন বাজার এলাকায় বসতবাড়ী সংলগ্ন ভাইস চেয়ারম্যান মনসুর আলমের সেবা ডাল মিল, তার বড় ভাই সহিদুল আলমের মা অয়েল মিল, লোকমান হোসেনের নিশাত অয়েল মিল, ফারুক হোসেনের ভাই ভাই অয়েল মিল, জাহাঙ্গীর আলমের জুই মিল ও জাকির হোসেনের জাকির অয়েল মিল-কারখানায় দিন-রাত শুকনো মরিচ, হলুদ, বেসনসহ বিভিন্ন ধরনের মসলা ভাঙ্গানো হয়। এখানে মরিচের হলুদ ও বেসনের সঙ্গে পঁচা আটা, ধানের গুড়া, ভুসি মিশিয়ে তাঁর সঙ্গে ভারতের বিষাক্ত ক্যামিকেল দিয়ে ভেজাল শুকনো মরিচের গুড়া, হলুদ ও বেসন তৈরী করা হচ্ছে। বসতবাড়ী সংলগ্ন এলাকায় দিনরাত কারখানা চালানোয় বিষাক্ত ক্যামিকেল মিশ্রিত মরিচ ও হলুদের ঝাঁঝালো কনা ও গন্ধে বাতাস হয়ে পড়ছে দুষিত। দুষিত বাতাস আর অনবরত কলকারখানার বিকট শব্দের কারনে সেখানকার শিশু, নারীসহ এলাকাবাসী কিডনি সমস্যা, চোখের প্রদাহ, হাপানী, ফুসফুসের সমস্যা, ব্রেনের সমস্যাসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। পরিবেশ অধিদপ্তরের রংপুর অঞ্চলের উপ-পরিচালক ওসমান গনি জানান, অভিযোগ পেয়ে গত বছর ৮ জুলাই সেখানে গেলে সেখানকার কারখানার মালিকগন কোন প্রকার পরিবেশ ছাড়পত্র দেখাতে পারেননি। ওই এলাকায় ব্যপক পরিবেশ দুষণ হওয়ার কথা উল্যেখ করে তিনি এ বিষয়ে ঢাকায় রিপোর্ট দিয়েছেন বলে জানান।  খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দিনাজপুরসহ পাশ্ববর্তী জেলাগুলোতে পরিবেশ দুষণ ও প্রশাসনের কড়া নজরদারীর কারনে এসব ভোজাল শুকনো মরিচসহ অন্যান্য মসলা ভাঙ্গানো হয়না। তাই সেখানকার ব্যবসায়ীরা অতি মুনাফার লোভে বিরামপুরে এসব ভাঙ্গাতে আসেন। ফলে এখানে দিন-রাত চলে ভেজাল মরিচ, হলুদ বেসনসহ বিভিন্ন ধরনের মসলা তৈরীর রমরমা বানিজ্য। চিকিৎসকরা জানান এসব ভেজাল মসলা খেলে মানুষ ফুসফুস কিডনি আক্রান্ত সহ বিভিন্ন  জটিল রোগ দেখা দেবে। উপজেলা কার্যালয় সুত্রে জানা যায়, গত বছর ১০ জুন তৎকালীন ইউএনও রোখছানা বেগম ভ্রাম্যমান আদালতের মাধমে ভোক্তা অধিকার আইনে মনসুর আলম ও লোকমান হোসেন কারখানার মালিকদের প্রত্যেককে বিশ হাজার টাকা করে জরিমানা আদায় ও বিষাক্ত পটকা ঝাল জব্দ করেন। যার মামলা নং (২০ ও ২১)।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ