• সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ১০:৫৯ পূর্বাহ্ন |

আওয়ামী লীগের জনকও জিয়াই

1401956821.মারুফ কামাল খান: বিএনপির জন্ম অবৈধ বলে বার্থ সার্টিফিকেট দিয়েছেন শেখ হাসিনা। ভয়ংকর কথা! কেন অবৈধ? এই দল নাকি অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে গড়া হয়েছিল। কথায় কথা আসবেই। বাংলাদেশ নামের এই গণপ্রজাতন্ত্রে ক্ষমতা আসলে জনগণের। সেই ক্ষমতা কেড়ে নিয়ে তাদের অনুমোদন ছাড়াই ১৯৭৫ সালে গণতন্ত্র হত্যা করে, সব দল নিষিদ্ধ করে একদলীয় বাকশাল শাসন কায়েম করাটাই ছিল অবৈধ। মরহুম শেখ মুজিবুর রহমান তার সরকার ও সংসদের মেয়াদ বিনাভোটে আরো প্রায় তিন বছরের জন্য বাড়িয়ে নিয়েছিলেন, নিজেকে রাষ্ট্রপতি পদে ভোট ছাড়াই অধিষ্ঠিত করেছিলেন।

এইসব অবৈধ কাজের মাধ্যমে বাকশাল সরকার পুরোপুরিই অবৈধ হয়ে গিয়েছিল। সেই বাকশালের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বে সেনাবাহিনীর একাংশের সমর্থনে মুজিব সরকার উৎখাত হয়, বাকশালের প্রভাবশালী নেতা খন্দকার মোশতাক ক্ষমতায় বসেন।তিনি বাকশালও বিলুপ্ত করে দেন। মোশতাককে হটিয়ে খালেদ মোশাররফ ক্ষমতা দখল করে তখনকার চিফজাস্টিস সায়েমকে চিফ মার্শাল ল এডমিন্সট্রেটর ও প্রেসিডেন্ট বানায় এবং সেনাপ্রধান ও স্বাধীনতার ঘোষক জিয়াউর রহমানকে অপসারণ ও বন্দী করে। সংবিধান স্থগিত করে তারা।

এই নৈরাজ্যকর অবস্থায় সৈনিকেরা সেনাছাউনি ছেড়ে বেরিয়ে এসে জনতার সমর্থনে বিপ্লব ঘটায়। তারা বন্দী জিয়াকে মুক্ত করে তাঁর হাতে দেশপরিচালনার ভার দেন। ৭ নভেম্বর প্রত্যুষে সিপাহী-জনতার পুষ্পবর্ষণের মধ্যে প্রকাশ্য রাজপথে রাষ্ট্রনায়ক জিয়ার অভিষেক হয়। সবকিছু গোছানোর স্বার্থে জিয়া পুরো দায়িত্ব নেয়ার আগে কিছুদিন সায়েমকেই তাঁর স্বপদে রেখে দিয়েছিলেন।

জিয়াউর রহমান ক্যু করে ক্ষমতা দখল করেন নি। তিনি বন্দী ছিলেন, সিপাহী-জনতা তাঁকে মুক্ত করে দেশ চালাবার দায়িত্ব দিয়েছে। তিনি যখন দায়িত্ব নেন, দেশে তখন সংবিধান স্থগিত। কোনো দল নেই, রাজনীতি নিষিদ্ধ। সামরিক শাসনে দেশ চলছিল। জিয়াউর রহমান দায়িত্ব নেয়ার সময় দেশে কোনো বৈধ সরকারও ছিল না। কেবল ছিল নৈরাজ্য, বিশৃংখলা, রক্তপাত। জিয়া দায়িত্ব নিয়ে বললেন, এভাবে দেশ চলেনা। তিনি বললেন, সামরিক শাসন কোনো স্থায়ী ব্যবস্থা হতে পারেনা। সাংবিধানিক শাসন, রাজনীতি, গণতন্ত্র ফেরাতে হবে। বাকশাল করে জনগণের যেসব অধিকার কেড়ে নেয়া হয়েছিল ফিরিয়ে দিতে হবে সেই সব অধিকার। তিনি বাকশালের বন্ধ করা সব সংবাদপত্র খুলে দিলেন, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা দিলেন।রাজনীতি করার অধিকার দিলেন। কোনো দল ছিল না। জিয়া সব দল গঠন করালেন। বাকশালের ভষ্মস্তুপ থেকে আওয়ামীলীগের পুনর্জন্ম দিলেন। নির্বাচন দিলেন, সে নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রতিদ্বন্দিতা করলো। গণতন্ত্র ও জনগণের সব অধিকার ফিরিয়ে দিলেন। ভারতে নির্বাসিত শেখ হাসিনাকেও দেশে আনলেন। তিনি আওয়ামীলীগের নেতৃত্ব পেলেন। সব হলো জিয়ার উদারতা ও করুণায়। আর এখন শেখ হাসিনা বলছেন, জিয়া অবৈধ শাসক ছিলেন, তাঁর হাতে গড়া বিএনপিও অবৈধ।

জিয়া শুধু বিএনপি গড়েন নি, আওয়ামীলীগেরও পুনর্জন্ম দিয়েছেন, বর্তমান আওয়ামীলীগের জনকও তিনি। জনক অবৈধ হলে কেবল বিএনপি কেন আওয়ামীলীগের জন্মও যে অবৈধ হয়ে যায়, শেখ হাসিনার সে খেয়াল আছে-কি? সূত্র: দিনকাল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ