• শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৪৩ পূর্বাহ্ন |

‘কমান্ড বাহিনী’র কমান্ডো প্রতারণা

X Comandoসিসিনিউজ ডেস্ক: ‘আপনার প্রতিষ্ঠান আর থাকবে না, আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে যাবে। রাত ৩টার দিকে আপনার প্রতিষ্ঠানের ওপর দুটি আরএল (রকেট লঞ্চার) ছোড়া হবে, একবার ভেবে দেখুন কী পরিমাণ ক্ষতি হবে। ভালোয় ভালোয় ২৭ লাখ টাকা দিয়ে দিন কিংবা ধ্বংস হন। এক টাকাও কম দিতে পারবেন না।’
রাজধানীতে ব্যবসায়ী ও বিত্তশালীদের চিঠি দিয়ে অভিনব কৌশলে এভাবেই চাঁদার টাকা আদায় করছিল ‘এক্স সার্ভিস স্কট কমান্ড বাহিনী’ নামের একটি সন্ত্রাসী ও ভয়ঙ্কর প্রতারক চক্র। ৩ জুন কাফরুলের একটি বাসা থেকে চক্রের প্রধান সাবেক সেনা সদস্য মশিউর রহমানকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। তার কাছ থেকে বিভিন্ন ব্যাংকের স্টেটমেন্ট, নকল জাতীয় পরিচয়পত্র, সিভি, ভুয়া স্ট্যাম্প, সরকারি ডাক টিকিট, বিভিন্ন কোম্পানি/প্রতিষ্ঠানের ব্যক্তিদের কাছে পাঠানোর জন্য ঠিকানাসংবলিত অর্ধশতাধিক চিঠি ও খাম উদ্ধার করা হয়। এসব চিঠি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছিল। সম্প্রতি মিরপুর রোডের রোকেয়া সরণির জৌনপুর ফার্নিচারের মালিক মাজহারুল ইসলামকে পাঁচ পৃষ্ঠার এমনই একটি চিঠি দিয়ে চাঁদা চাওয়া হয়। পরে মাজহারুল র‌্যাব-২ এ অভিযোগ করলে প্রতারক মশিউরকে গ্রেফতার করা হয়। মাজহারুলকে পাঠানো প্রতারক চক্রের দীর্ঘ চিঠির একটি কপি আলোকিত বাংলাদেশের হাতে এসেছে। টাকা ধার চেয়ে ওই চিঠিতে বলা হয়, ‘আমরা আদেশ করছি টাকা ধার দিবেন, না দিলে আপনাকে কিছু বলবো না। আপনার জৌনপুর ফার্নিচার আর থাকবে না (আগুনে পুড়িয়ে দেয়া হবে)। আপনি বিত্তবান, আপনার কাছে টাকা আছে, টাকা ধার দিবেন (বাধ্যতামূলক)। টাকা ধার পাইলে আলহামদুলিল্লাহ, না পাইলে আপনার প্রতিষ্ঠানের উপর দিয়ে ঝড় হবে, কালবৈশাখী ঝড়।’ চিঠির এক স্থানে বলা হয়, ‘এই বাহিনী রক্তপাত ছাড়াই টাকা ধার করার পন্থা অবলম্বন করবে, যা আগে কখনও হয়নি (বাংলাদেশে প্রথম)। আমরা শান্তিকামী বাহিনী, কোনো রক্তপাত চাই না, মানুষের জীবন নিতে চাই না।’ টাকা ফেরত দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে চিঠিতে বলা হয়, ‘আপনার ধার দেয়া টাকা দু’বছর রোলিং করে ব্যবসা করব। ২ বছরের মধ্যে কিস্তিতে টাকা পরিশোধ করা হবে। আপনার টাকায় ২ বছরে ২ কোটি টাকা লাভ আসবে, তাহলে আপনার টাকা ফেরত দিতে সমস্যা কোথায়? আর যদি টাকা ধার না দেন, তাহলে আপনার জীবনে সবচেয়ে বড় ভুল হবে। যদি মনে করেন, র‌্যাব-পুলিশ বা মিডিয়াকে জানাবেন সেটাও হবে চরম বোকামি (যে লাউ সেই কদু)। মনে রাখবেন, আমরা একটি বাহিনীর (অবসরপ্রাপ্ত) প্রশিক্ষিত সদস্য। অনেক চিন্তাভাবনা ও পরিকল্পনা করে এই বাহিনী তৈরি করেছি, তাই ভুল করেও ছোট করে দেখবেন না।’
পাঁচ পৃষ্ঠার ওই চিঠির শেষের পৃষ্ঠায় বলা হয়, ‘আল্লাহ, আপনি আর আমরা ছাড়া চতুর্থ কোনো ব্যক্তি যেন এ বিষয়ে না জানে। ইতিমধ্যে তিনজন বিত্তশালী ব্যবসা করার জন্য আমাদেরকে টাকা ধার দিয়েছে (ঠিক এরকমভাবেই)। আপনাদের অনেক ধন্যবাদ যে, টাকা ধার দিয়ে সাময়িক উপকার করার জন্য, জনাবের নিকট আমরা চির কৃতজ্ঞতার পাশে আবদ্ধ থাকিব। আপনি ভালো থাকবেন, আমরাও ভালো থাকবো।’
ওই বিশেষ চিঠিটি বড় একটি খামে ভরে পাঠানো হতো। খামের ভেতর থাকত পাঁচ পৃষ্ঠার একটি চিঠি, টার্গেট প্রতিষ্ঠানের ম্যাপসহ ছবি, প্রতিষ্ঠানের যেখানে রকেট লঞ্চার আঘাত করবে সেটি চিহ্নিত করে একটি ছবি, রকেট লঞ্চার ও এসএমজির ছবি ও পুরো কমান্ডো বাহিনীর চোখমুখ ঢাকা ছবি। বিশেষ ওই খামের ওপর বড় করে লেখা, ‘ভীষণ বিপদ, এই চিঠি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে চেয়ারম্যান/এমডিকে দিয়ে দিবেন।’ খামের ওপর একাধিক ‘জরুরি’ সিলও মারা থাকত।
র‌্যাব জানায়, আটক মশিউর রহমান দীর্ঘদিন ধরে এক্স সার্ভিস স্কট কমান্ড বাহিনী প্রতিষ্ঠা করে বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের মালিকদের চিঠি পাঠিয়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে মোটা অঙ্কের চাঁদা দাবি করত। এছাড়া পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে কারখানা, গার্মেন্ট, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও কোম্পানিতে চাকরি দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে টাকা হাতিয়ে নিত। সেনাবাহিনীতে লোক ভর্তি ও বিদেশে লোক পাঠানোর কথা বলেও মানুষের কাছ থেকে টাকা নিয়েছে মশিউর। র‌্যাব-২ এর মোহাম্মদপুর ক্যাম্পের এএসপি কামরুল ইসলাম আলোকিত বাংলাদেশকে বলেন, প্রতারক মশিউর ২০০৯ সালে সেনাবাহিনী থেকে চাকরিচ্যুত হন। এরপর থেকে তিনি বিভিন্ন ধরনের প্রতারণার সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন। বিদেশে লোক পাঠানোর কথা বলে বরিশালের অসংখ্য মানুষের কাছ থেকে টাকা নিয়ে তিনি আত্মসাৎ করেছেন। তার সোনালী, ডাচ্-বাংলা ও স্টেট ব্যাংকের হিসাবে প্রায় দেড় কোটি টাকা রয়েছে। তাকে শেরেবাংলা নগর থানায় সোপর্দ করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা হয়েছে। প্রতারক মশিউরকে ৪ লাখ টাকা দিয়েও বিদেশ যেতে পারেননি বরিশালের মোহাম্মদ সজল। তিনি বলেন, মশিউর বিদেশ পাঠানোর নামে বরিশালের অসংখ্য লোকজনের কাছ থেকে টাকা নিয়েছেন। তিনি নিজেকে ডিজিএফআই ও সেনাবাহিনীর সদস্য পরিচয়ে লোকজনকে চাকরি পাইয়ে দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। র‌্যাব-২ এর অপারেশন অফিসার ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রায়হান উদ্দিন খান বলেন, ২১ মে শেওড়াপাড়ার জৌনপুর ফার্নিচারের মালিক মাজহারুল ইসলামের কাছে একটি চিঠির মাধ্যমে ২৭ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে এক্স সার্ভিস স্কট কমান্ড বাহিনী নামে একটি সন্ত্রাসী গ্রুপ। পাঁচ পৃষ্ঠায় লেখা ওই চিঠিতে তার প্রতিষ্ঠানটিকে রকেট লঞ্চার মেরে উড়িয়ে দেবে বলে হুমকি দেয়া হয়। পরে মাজহারুল র‌্যাবের কাছে অভিযোগ করেন। অভিযোগের পর অভিযান চালিয়ে প্রতারক মশিউর রহমানকে সুমন নামে এক সহযোগীসহ গ্রেফতার করা হয়। তিনি আরও জানান, মশিউরের কাছ থেকে ঢাকার বেশ কয়েকজন ধনাঢ্য ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে পাঠানোর জন্য তৈরি করা চিঠি উদ্ধার করা হয়েছে। উৎসঃ   আলোকিত বাংলাদেশ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ