• বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৪৮ পূর্বাহ্ন |

পশ্চিমবঙ্গের নদীয়ায় স্থল বন্দর নির্মাণের উদ্যোগ

নদীয়াআন্তর্জাতিক ডেস্ক: দুই বাংলার বাণিজ্যের সুবিধার্থে পশ্চিমবঙ্গের নদীয়া জেলার টুঙ্গীতে স্থল বন্দর নির্মাণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। আর এ কারণে টুঙ্গী পরিদর্শন করেছেন বাংলাদেশের নৌপরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খান। এসময় তার সফর সঙ্গী ছিলেন ভারতীয় রাষ্ট্রদূত।

পরিদর্শন শেষে নৌ পরিবহন মন্ত্রী জানান, এই বন্দর গড়ে উঠলে দুই দেশের পণ্য আমদানি-রপ্তানি সহজ হবে। পেট্রাপোলের চাপও কমবে। যানবাহন জীবননগর, কালিগঞ্জ হয়ে ঢাকা চলে যাবে। এতে প্রায় পঞ্চাশ কিলোমিটার দূরুত্ব কমবে। পাশাপাশি কমবে পরিবহন খরচও।

এক সময় নদীয়ার কৃষ্ণ নগর থেকে মাজদিয়ার টুঙ্গি হয়ে যশোরে বাস যাতায়াত করত। টুঙ্গি পার হলেই বাংলাদেশের জীবননগর। পণ্য বোঝাই লরিও এই পথ দিয়েই যেত ঢাকায়।

কিন্তু ১৯৬৫ সালের পর তা বন্ধ হয়ে যায়। সেই থেকে টুঙ্গি হয়ে বাংলাদেশে যাওয়ার পথ বন্ধ। টুঙ্গিতে স্থল বন্দর গড়ার দাবিতে প্রথম একত্রিত হয়েছিলেন বাংলাদেশের দৌলতগঞ্জ ও পশ্চিমবঙ্গের মাজদিয়ার ব্যবসায়ীরা।

১৯৯৮ সালে ব্যবসায়ীরা সংগঠিত হয় এবং সেই সংগঠনের পক্ষ থেকে তৎকালীন এনডিএ পরিচালিত ভারত সরকারের অর্থমন্ত্রীকে চিঠিও দেওয়া হয়। সে সময় কেন্দ্রীয় মন্ত্রী সত্যব্রত মুখোপাধ্যায় টুঙ্গিতে স্থলবন্দর গড়ে তুলতে উদ্যোগী হন।

এরপর এক দশকেরও বেশি সময় ধরে পরবর্তী সরকারকে একাধিকবার চিঠি দেওয়া হয়েছে। তবে নানা ভাবে চেষ্টার পরও কোন লাভ হয়নি।

ব্যবসায়ীরা জানান, টুঙ্গিতে স্থল বন্দর গড়ে উঠলে পশ্চিমবঙ্গের নদীয়া, মুর্শিদাবাদ, বর্ধমানসহ অন্যান্য জেলা থেকে ঢাকায় যাওয়ার দূরত্ব প্রায় ৫৫ কিলোমিটার কমে যাবে।

উত্তর ২৪ পরগণার পেট্রাপোল হয়ে পণ্য বোঝাই লরি গেলে বর্তমানে নদীয়াসহ অন্যান্য জেলার ব্যবসায়ীদের পাঁচ হাজার টাকা প্রতিবারে খরচ বেশি হয়। তাছাড়া অনেক সময় নানা কারণে পণ্য নিয়ে পাঁচ থেকে ছয় দিন দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। এতে পরিবহণ খরচ আরও বাড়ে।

টুঙ্গিতে স্থল বন্দর হলে পেট্রাপোলের চাপ অনেকটা কমবে। দুই দেশের পণ্যবাহী যানবাহন অনায়াসেই এই বন্দর দিয়ে যাতায়াত করতে পারবে।

এক দশকেরও বেশি সময় পর ভারতে আবারও ক্ষমতায় এসেছে বিজেপি সরকার। আর এ পদক্ষেপের ফলে নদীয়া, মুর্শিদাবাদ, বর্ধমানসহ ভারতের বিস্তীর্ণ এলাকার এবং বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা আশার আলো দেখছে। দুই বাংলার বাণিজ্যে হয়তো আবার জোয়ার আসতে পারে, এমনটিই ভাবছেন ব্যবসায়ীরা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ