• বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:২৩ পূর্বাহ্ন |

দিনাজপুর প্রেসক্লাবে কাশীপুর এলাকাবাসীর সংবাদ সম্মেলন

Pressদিনাজপুর প্রতিনিধি: কাশীপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়কে বাঁচাতে আকুল আবেদন জানিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন এলাকাবাসী। স্কুলটির সকল দূর্নীতি ও অনিয়ম দূর করে একে রায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপসহ সব মহলকে এগিয়ে আসারও আহবান জানিয়েছেন তারা। সেই সাথে দূর্নীতিবাজ দেওয়ান হুমায়ুন কবীর গংয়ের হাত থেকে স্কুলটি বাঁচানোর জোর দাবী জানিয়েছেন এলাকার সর্বস্তরের মানুষ। শনিবার দিনাজপুর প্রেসকাবে এক জনাকীর্ণ সংবাদ সম্মেলনে এলাকাবাসীর পক্ষে জয়নাল আবেদীন লিখিত বক্তব্যে এ দাবী জানান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, এলাকার বিশিষ্ট সমাজসেবী আব্দুর রশীদ, বিদ্যালয়টির সাবেক সভাপতি লুৎফর রহমান, মকছেদুল হাসান, নুর ইসলাম, গোলাম মোস্তফা, মোসাদ্দেক হোসেন, আফসার আলী, আনোয়ার হোসেন, আব্দুর রহমান প্রমূখ।
সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে জয়নাল আবেদীন বলেন, দিনাজপুরের বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ সাবেক সংসদ সদস্য এ্যাডভোকেট এম. আব্দুর রহিম এলাকার বিশিষ্ট সমাজসেবী প্রয়াত মকিম চেয়ারম্যান ও এলাকার শিানুরাগী ব্যক্তিবর্গকে সাথে নিয়ে ১৯৭৩ সালে কাশীপুর নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন। বিদ্যালয়টি কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌছতে না পারায় আমরা এলাকাবাসী বহুবার সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করেও কোন সমাধান পাইনি।
১৯৯৩ সাল থেকে চাকুরী থেকে সাময়িক বরখাস্ত ছিলেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ ইসমাঈল হোসেন। তিনি বিধি সম্মতভাবে ২০০৬ সালে অবসর গ্রহন করেন। পরে ওই শূন্য পদে ২০১৩ সালে লোকমান হাকিম প্রধান শিক হিসেবে নিয়োগ লাভ করেন। এদিকে সব মিলিয়ে প্রায় ২০-২২ বছর ধরে বিদ্যালয়টিতে প্রধান শিক্ষক না থাকার সুযোগে অনিয়ম ও দূর্নীতির মাধ্যমে নিয়োগ পাওয়া সকল শিক্ষকবৃন্দ বিভিন্ন অনিয়মে অভ্যস্থ হয়ে পড়েন। তাঁরা কখনই তাঁদের উপর অর্পিত দায়িত্ব ঠিকমত পালন করেননি। পাশাপাশি প্রধান শিক্ষক লোকমান হাকিম একজন সৎ ও দক্ষ  শিক্ষক। আমরা এলাকাবাসী ও অভিভাবকগন তাঁর বিদ্যালয় পরিচালনার বিষয়ে সন্তুষ্ট। তিনি বিদ্যালয়ে যোগদানের পর বন্ধ হয়ে যাওয়া খেলাধুলা, সহপাঠ্যক্রমিক কার্যাবলী চালু করেন। অভিভাবকদের সাথে মতবিনিময় সমাবেশ চালু করেন। ডিজিটাল ক্লাশরুম চালু করার লক্ষ্যে তিনি ১২ বছর আগে নিয়োগকৃত কম্পিউটার শিক্ষকের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেন এবং ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য ২টি ল্যাপটপ, মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর, প্রজেক্টর স্ক্রীন এর ব্যবস্থা করেন। ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য অতিরিক্ত ক্লাশের ব্যবস্থা করেন। ফলে ২০১৩ সালে জেএসসি ও ২০১৪ সালে এসএসসি পরীক্ষার পাশের হারসহ মান বেড়েছে। ছাত্রীদের জন্য স্যানিটারী ল্যাট্রিন, ইউরেনিয়ার, ওজুখানা তৈরী করেছেন। সর্বোপরি বিদ্যালয়টির গেট নির্মানসহ সাইনবোর্ড এর ব্যবস্থা করেছেন, যা পূর্বে কখনও ছিল না।
লিখিত বক্তব্যে জয়নাল আবেদীন আরো বলেন, ২০১৩ সালে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ পাওয়ায় হয়তো বিদ্যালয়টি পুনরায় তার হারানো ঐতিহ্য ফিরে পাবে। হচ্ছিলও তাই। কিন্তু বিগত কমিটির স্বার্থনেষী সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব মোঃ আফতাব উদ্দিন, সাবেক বিদ্যোৎসাহী আলহাজ মোঃ বেলায়েত হোসেন, সাবেক সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন ও অনিয়মে অভ্যস্থ শিকবৃন্দ বর্তমানে নিয়োগকৃত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে মিথ্যা, বানোয়াট, উদ্দেশ্য প্রণোদিত ও হয়রানিমুলক অভিযোগ এনে বিদ্যালয়টিতে পুনরায় অচলাবস্থার সৃষ্টি করেন। দেওয়ান হুমায়ুন কবীর সাংবাদিক সম্মেলনে তাঁর লিখিত বক্তব্যে প্রধান শিক মোঃ লোকমান হাকিমের বিরুদ্ধে বিদ্যালয়ের ৪৩ হাজার টাকা আত্মসাৎ, বিদ্যালয় অডিটের নামে ১ লাখ ১০ হাজার টাকা গ্রহন, উম্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে ৬০ হাজার টাকা গ্রহন, হিন্দু ধর্মীয় শিকের নিকট থেকে ২ লাখ টাকা গ্রহন এবং জেলা পরিষদ কর্তৃক বরাদ্দকৃত ২ লাখ টাকা আত্মসাৎ এর অভিযোগ উপস্থাপন করেছেন তা নিতান্তই বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত। কারণ প্রধান শিক মোঃ লোকমান হাকিম উপরে বর্ণিত বিদ্যালয়ের সাবেক তিন সভাপতি ও অনিয়মে অভ্যস্থ শিকমন্ডলীর বিভিন্ন অনিয়ম, দূর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার বিরুদ্ধে কথা বলার কারণে তাঁরা প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে সুপরিকল্পিতভাবে এসকল হয়রানিমুলক কর্মকান্ড পরিচালনা করছেন।
সংবাদ সম্মেলনে আরো বলেন, শিক্ষক হুমায়ুন কবীর মুকুল গং সাবেক সভাপতিসহ কতিপয় স্বার্থানেষী ব্যক্তিদের সহযোগিতায় বিদ্যালয়টিকে ধ্বংসের দ্বার প্রান্তে নিয়ে গেছেন। তিনি কাশীপুর এলাকার স্থায়ী কেউ না। তাঁর গ্রামের বাড়ী জয়পুরহাট জেলায়। শারীরিকভাবে অসুস্থ শিক্ষক দেওয়ান হুমায়ুন কবীর মুকুল কাশীপুর এলাকাবাসী, অভিভাবক ও সুশীল সমাজের স্বঘোষিত প্রতিনিধি হিসেবে সাংবাদিক সম্মেলন করেছেন। কাশীপুর এলাকাবাসীর পে তাঁকে কেউ এই দায়িত্ব প্রদান করেন নাই। এমনকি তিনি চাকুরীরত হয়েও এই সংবাদ সম্মেলন করার জন্য বিদ্যালয়ের বর্তমান সভাপতি ও দিনাজপুর সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এর কাছে অনুমতি নেননি। তিনি সকলের সাথে প্রতারণা করেছেন। দেওয়ান হুমায়ুন কবীর মুকুল ও মোঃ নজরুল ইসলাম উক্ত বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সহকারী প্রধান শিক্ষক হওয়ার জন্য উপরোক্ত সাবেক তিন সভাপতির সাথে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে নিয়োগ লাভের আশায় প্রধান শিক্ষক মোঃ লোকমান হাকিমকে চাকুরীচ্যুত করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়ে বর্তমানে দেওয়ান হুমায়ুন কবীর মুকুল গং স্কুলটিকে অচল বানিয়ে রেখেছেন। বর্তমান সভাপতি ও দিনাজপুর সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে ভূল বুঝিয়ে কতিপয় কথিত এলাকাবাসীর উপস্থিতিতে বর্তমান প্রধান শিক্ষক মোঃ লোকমান হাকিমকে দায়িত্ব থেকে সরিয়ে মোঃ নজরুল ইসলামকে দায়িত্ব দিয়ে রেখেছেন। ফলে বিদ্যালয়টির স্বাভাবিক কর্মকান্ডসহ উন্নয়ন বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। আমরা বিদ্যালয়টির আর অচলাবস্থা দেখতে চাই না। এ বিষয়ে আমরা বিদ্যালয়ের বর্তমান সভাপতি ও দিনাজপুর সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ সংশ্লিষ্ট সকলের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে এলাকাবাসী জানান, দেওয়ান হুমায়ুন কবীর ২০০৮ সালে তৎকালীন সংসদ সদস্য এবং বর্তমানে জাতীয় সংসদের মাননীয় হুইপ ইকবালুর রহিমের ডিও লেটার উপেক্ষা করে স্কুলে যাননি এবং এ কারনে তিনি দুই মাস বেতন-ভাতা পাননি। এছাড়া প্রায় ০৬ বছর ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্বে থাকা অবস্থায় আর্থিক অনিয়মের কারণে তাকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছিল। ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিকের দায়িত্বে থাকা অবস্থায় ব্যাংকে টাকা জমা না দিয়ে লাখ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেন যার হিসাব তিনি আজ পর্যন্ত দেননি। দেওয়ান হুমায়ুন কবীর কাশীপুরে শিক্ষকতার পূর্বে নৌবাহিনীতে চাকুরী করতেন এবং সেখানে চাকুরী বিধি লংঘনের কারনে কোর্ট মার্শাল আইনে তার চাকুরী চলে যায়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ