• শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:২৭ পূর্বাহ্ন |

লাশ গুমের আগে পরামর্শ করেন তিন কর্মকর্তা

Narayanসিসিনিউজ: পরিকল্পনা ছিল কাউন্সিলর নজরুল ইসলামকে তুলে নেয়ার। সেই মোতাবেক অপারেশন টিম সাজানো হয়েছিল। কিন্তু নজরুল ইসলামের সঙ্গে আরও চারজন থাকায় সিদ্ধান্তে পরিবর্তন আনা হয়। অপহরণ টিমে সদস্য বাড়ানো হয়। যেখান থেকে নজরুলকে অপহরণ করা হবে সেই স্পটটি লে. কমান্ডার এম এম রানার দায়িত্ব এলাকার মধ্যে হওয়ায় মেজর (অব.) আরিফ হোসেনের সঙ্গে তার উপস্থিতি ঘটনাস্থলে নিশ্চিত করা হয়। সিদ্ধিরগঞ্জের আদমজী ইপিজেডের সামনে অবস্থিত র‌্যাব-১১ এর সদর দপ্তরে বসে লে. কর্নেল তারেক সাঈদ অপারেশনের অগ্রগতির খোঁজখবর নেন। মেজর (অব.) আরিফের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করেন। অপারেশন সফল হওয়ার পর র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক কর্নেল জিয়াউল আহসানকে অবহিত করা হয়। অপহরণ ও হত্যা পর্যন্ত আরিফ হোসেন ও এম এম রানা একসঙ্গে থাকলেও লাশ গুমের আগে তারেক সাঈদ মোহাম্মদ তাদের সঙ্গে যোগ দেন। পরে তিনজন মিলে সিদ্ধান্ত নিয়ে লাশ গুম করার জন্য তৃতীয় গ্রুপের কাছে সাত লাশ বুঝিয়ে দেন। ফেরার পথে তারেক সাঈদ ও আরিফ হোসেন পুলিশের চেক পোস্টে পুলিশের মুখোমুখি হলেও কোন প্রকার ঝামেলা ছাড়াই ক্যাম্পে ফেরেন এম এম রানা। হত্যার দায় স্বীকার করে গ্রেপ্তারের ১৯ দিনের মাথায় আরিফ হোসেন ও ২০ দিনের মাথায় এম এম রানার আদালতে দেয়া ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এ তথ্য উঠে এসেছে বলে সূত্র জানায়। আদালতে দেয়া জবানবন্দিতে আরিফ হোসেন র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক কর্নেল জিয়াউল আহসানের নাম বলেছেন। আর এম এম রানা বলেছেন, তিনি কর্নেল জিয়াউল আহসান ও তারেক সাঈদের নির্দেশ পালন করেছেন। এবং লাশ গুমের আগে তারা তিনজন (তারেক সাঈদ, আরিফ হোসেন ও এম এম রানা) একত্র হয়েছিলেন। তবে এম এম রানার জবানবন্দিতে অপহরণ, হত্যা ও লাশ গুমের পুরো প্লানার হিসেবে আরিফ হেসেনের নাম উঠে এসেছে।
সূত্র জানায়, নজরুল ইসলাম সিদ্ধিরগঞ্জ থানার একটি মামলায় উচ্চ আদালত থেকে ৬ সপ্তাহের অস্থায়ী জামিন নেয়। নিম্ন আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ থাকায় কবে সে নারায়ণগঞ্জ আদালতে আসবে তার খোঁজখবর রাখা হয়। পরে কাউন্সিলর নূর হোসেনের মাধ্যমে মেজর (অব.) আরিফ হোসেন নিশ্চিত হন নজরুল ২৭শে এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ আদালতে স্থায়ী জামিন নিতে আসবেন। এরপর দু’দিন আদালত পাড়া থেকে অপহরণের স্পট পর্যন্ত রেকি করা হয়। পরিকল্পনা মতে, ২৭শে এপ্রিল সকালে আদালত প্রাঙ্গণে র‌্যাব সদস্য কামাল উদ্দিনসহ সাদা পোশাকে একটি গ্রুপ অবস্থান নেয়। আরিফ হোসেন অবস্থান নেন নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা লিংক রোডের খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামের সামনে। যেহেতু ঘটনাস্থল এম এম রানার দায়িত্বভুক্ত এলাকায় তাই রানাকে উপস্থিত হতে হয় সেখানে। নজরুল ইসলাম আদালতে প্রবেশ করার পর আরিফ হোসেনকে জানানো হয় নজরুল ইসলাম তার গাড়ি না এনে এক্স করোলা একটি সাদা প্রাইভেটকারযোগে এসেছে। গাড়িতে নজরুল ছাড়াও ৩ জন ও চালক রয়েছে। মোট ৫ জন। এছাড়াও আদালতে নজরুলের বেশ কিছু সহযোগী রয়েছে। তখন র‌্যাব সদস্য বাড়ানো হয়। ১১ সদস্যের টিম অবস্থান নেয় ওই স্থানে।
দুপুর সাড়ে ১২টা দিকে অন্তর্বর্তকালীন জামিন নেয়ার পর নজরুল ইসলাম গং আদালত থেকে বের হওয়ার পর মেজর আরিফের কাছে খবর পৌঁছে দেয় আদালত প্রাঙ্গণে অবস্থান নেয়া সাদা পোশাকের র‌্যাব সদস্যরা। নজরুলদের বহনকারী গাড়িটি নারায়ণগঞ্জ-ঢাকা লিংক রোড হয়ে উত্তর দিকে যাওয়া পথে ফতুল্লা স্টেডিয়াম সন্নিকট (ময়লা ফেলার স্থান) পৌঁছার পর মেজর আরিফের নেতৃত্বে গাড়ির গতিরোধ করা হয়। নজরুলের গাড়ির পেছনে ছিল আরেকটি প্রাইভেট কার (আইনজীবী চন্দন সরকারের গাড়ি)। কয়েক মিনিটের মধ্যে দুটি গাড়ি থেকে ৭ জনকে র‌্যাবের দুটি গাড়িয়ে তুলে নেয়া হয়। ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী হয়ে যাওয়ায় নজরুলের পেছনের গাড়ির দু’জন (চন্দন সরকার ও তার গাড়ি চালক)-কে গাড়িতে উঠানো হয়। গাড়িতে উঠানোর পরপরই একে একে ৭ জনের প্রত্যেকের শরীরে চেতনানাশক ইনজেকশন পুশ করা হয়। এতে তারা অচেতন হয়ে পড়ে। অপহৃতদের দুটি গাড়ি বিকল্প চালক দিয়ে দু’দিকে পাঠিয়ে দেয়া হয়। একটি গাজিপুরের দিকে আরেকটি ঢাকার গুলশানের দিকে। অপহরণের পর তারেক সাঈদকে অবহিত করেন আরিফ হোসেন।
জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান বলেছেন, মেজর (অব.) আরিফ হোসেন ও লে. কমান্ডার (অব.) এম এম রানার বক্তব্য কাছাকাছি। আরিফ হোসেন ও এম এম রানা হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে নিজেদের সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করে সাতজনকে অপহরণের পর হত্যা করে লাশ গুম করার লোমহর্ষক বর্ণনা দিয়েছেন  আদালতে। সাখাওয়াত হোসেন আরও বলেন, আরিফ হোসেন সাত হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে ২৩ জন জড়িত থাকার কথা বললেও এম এম রানা বলেছেন পুরো মিশনে ৩০-৩২ জন জড়িত রয়েছে। তারা দু’জনেই বলেছেন, র‌্যাবের একজন অতিরিক্ত মহাপরিচালকের নির্দেশে ও কতিপয় রাজনৈতিক গডফাদারের সমন্বয়ে এ হত্যাকাণ্ডটি ঘটেছে। তাদের বিস্তারিত পরিচয়ও প্রকাশ করেছেন তারা তাদের জবানবন্দিতে। এছাড়া নূর হোসেনই এ হত্যাকাণ্ডের পরিকল্পনা করে বলে তারা আদালতে বলেছে। উৎস: মানবজমিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ