• সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ১০:৪৮ পূর্বাহ্ন |

সুষমার সফর বিএনপির হিসাব-নিকাশ

80291_1সিসিনিউজ: ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বাংলাদেশ সফরের পর উত্তপ্ত হতে পারে রাজনীতির অঙ্গন। আন্তর্জাতিক চাপও বাড়বে। ফলে বড় ধরনের ধাক্কা লাগতে পারে সরকারের পালে। এমন হিসাব-নিকাশ চলছে সরকার বিরোধী রাজনৈতিক শিবির এবং কূটনীতিক পাড়া ও বিশ্লেষক মহলে।
তবে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা সরাজের সফর এবং দেশটির অবস্থানের উপর নির্ভর করবে সেই পরিস্থিতি। আভাস মিলবে গণমানুষের প্রত্যাশার আন্দোলন সংগ্রাম আর কতো দূরে। এ প্রসঙ্গে রাষ্ট্রবিজ্ঞানী নুরুল আমিন বেপারীর বিশ্লেষণ, বিজেপির ঐতিহাসিক প্রতিপক্ষ কংগ্রেস, আর কংগ্রেসের ঐতিহাসির বন্ধু আওয়ামী লীগ। রাজনৈতিক কারণেই বিজেপি সরকারের আঁচলে স্থান পাবে না বর্তমান সরকার। এর ফসল যাবে বিএনপির ঘরেই। তবে সেক্ষেত্রে বেশ কিছু সময় অপেক্ষা করতে হবে। এদিকে নির্বাচিত সরকারের সাথে ভোটবিহীন অনির্বাচিত সরকারের সম্পর্ক অবশ্যই ভালো হতে পারে না-এমনটি ধরে নিয়েই দুর্বার আন্দোরনের দিকে এগুচ্ছে বিএনপি ও তার মিত্রদলগুলো। এমনটি জানিয়েছেন বিএনপির সিনিয়র একাধিক নেতা। আগামী ২৬ জুন বাংলাদেশ সফরে আসছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী।
তিনি তার সফরকালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির অভিনন্দনসহ বেশ কয়েকটি বার্তা নিয়ে আসবেন বলে কূটনৈতিক মহল মনে করছেন। বিএনপি সমর্থিত একাধিক কূটনীতিক মনে করেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পাশাপাশি ১৯ দলীয় জোট নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকেও ভারত সফরের আমন্ত্রণ জানাবেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী। সফরকালে ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করবেন। এছাড়াও সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাথে। বেগম খালেদা জিয়ার সাথেও তিনি বৈঠক করবেন বলে বিএনপি আভাস দিয়েছে।
বিএনপিপন্থী এক কূটনীতিক ইনকিলাবকে জানিয়েছেন, চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে যেসব বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে তার একটি খসড়া করেছে দলটি। এর মধ্যে ৫ জানুয়ারি ভোটারবিহীন নির্বাচন, বিরোধী দলের প্রতি সরকারের দমন-পীড়ন নীতি, দেশব্যাপী সরকারি দলের সন্ত্রাস নৈরাজ্য, একটি বিশেষ বাহিনীকে রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী অপহরণ, গুম-হত্যার মিশনে নামানোসহ সমসাময়িক বিভিন্ন বিষয় খসড়ায় রাখা হয়েছে। তিস্তা চুক্তির দ্রুত বাস্তবায়ন, আন্তঃনদী সংযোগ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা, সীমান্তে শান্তিরক্ষা, ভারতে মুসলিমদের প্রতি সদয় হওয়া ও ছিটমহল ফিরিয়ে দেয়ার আহ্বান এবং টিপাইমুখ বাঁধ না করার অনুরোধ জানানো হবে বিএনপির পক্ষ থেকে। ভারতের মতো বাংলাদেশেও একটি নির্বাচিত সরকার যাতে ক্ষমতায় আসতে পারে এরকম পরিবেশ সৃষ্টিতেও দক্ষিণ এশিয়ার প্রভাবশালী এই দেশটির সহায়তা চাওয়া হতে পারে।
সূত্রমতে, গত ৫ জানুয়ারির সরকার তরফা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিরোধী দল বিএনপির আন্দোলন চরমে পৌঁছে। মার্কিন, ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ বিশ্বের প্রভাবশালী দেশগুলো পাতানো নির্বাচনের বিপক্ষে অবস্থান নেয়। চীনের মতো দেশ যারা নির্বাচন নিয়ে নাকগলায় না তারাও এই নির্বাচনের বিরোধিতা করেছে। কিন্তু একমাত্র প্রতিবেশী দেশ ভারতের তৎকালীন কংগ্রেস-নেতৃত্বাধীন সরকার আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকারকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সমর্থন জুগিয়েছে। বিএনপি’র ভাষায়, যা ছিল সম্পূর্ণ কূটনীতিক শিষ্টাচার বিবর্জিত।
বিএনপির অভিযোগ, ২০১২ সালের ২৮ অক্টোবর সাতদিনের সফরে ভারত গেলেও ওই সময় বিরোধীদলীয় নেতা হিসেবে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে কংগ্রেসের পক্ষ থেকে সাক্ষাৎও দেয়নি দলটির প্রধান সোনিয়া গান্ধি। তার সরকারের প্রধানমন্ত্রী মনমোহনসিংও মাত্র ২৫ মিনিটের সাক্ষাৎ দিয়েছে নির্ধারিত দিনেরও দু’দিন পর। তখনই বিএনপির সঙ্গে কংগ্রেসের দূরত্ব স্পষ্টরূপ নেয়। ওইসময় থেকেই কংগ্রেসের সাথে বিএনপির দূরত্ব বাড়লেও বিজেপির সাথে বিএনপি সুসম্পর্ক গড়ে তোলে। জানা যায়, বেগম জিয়ার ভারত সফরকালে লোকসভার বিরোধীদলীয় নেতা এই সুসমা স্বরাজ, লালকৃষ্ণ আদভানীসহ বিজেপি নেতারা বিএনপি চেয়ারপারসনকে সর্বোচ্চ মর্যদা দিয়েছিলেন। বিজেপির পক্ষ থেকে ওইসময় বিএনপির তরুণ নেতৃত্ব তারেক রহমানের নানা পদক্ষেপ ও সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনার জন্য অভিনন্দন ও ভূয়সী প্রসংসা করেছেন লোকসভার বিরোধী দলীয় নেতা সুষমা স্বরাজ।
এমন আভাসও দেয়া হয়েছিল যে, বিজেপি সরকার গঠন করলে পররাষ্ট্রনীতি মেনে প্রতিবেশী দুই দেশ এবং দুই দল ‘বিজেপি-বিএনপি’ দু’দেশের পারস্পরিক স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট বিষয়াদি নিয়ে কাজ করবে। সেদিনের বৈঠকের সূত্র ধরেই সদ্য অনুষ্ঠিত লোকসভার নির্বাচনে বিজেপির দরজার কাছে যখন বিজয় কড়া নাড়ছিল তখনই বিএনপির পক্ষ থেকে খালেদা জিয়া অভিনন্দন জানিয়েছে। উল্লসিতও হয় দলটি (বিএনপি)।
আলাপকালে বিএনপি সিনিয়র নেতারা জানান, ভারত সরকারের প্রতিনিধি সুষমা স্বরাজের সঙ্গে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বৈঠক দুই দেশের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। গণতান্ত্রিক দেশ হিসেবে পাশের দেশেও গণতন্ত্র চর্চার আহ্বান জানাবেন। সমর্থন দেবেন রাজনৈতিক দলের মৌলিক অধিকার রক্ষার।
এ প্রসঙ্গে ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান নুরুল আমিন বেপারী তার বিশ্লেষণ থেকে ইনকিলাবকে বলেন, মহাজোট সরকারের সাথে সুসম্পর্ক ছিল ভারতের কংগ্রেস নেতৃত্বাধী সরকারের সাথে। ঐতিহাসিকভাভেই কংগ্রেসের সাথে এ সম্পর্ক। যে কারণেই গেলো নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে নগ্নভাবে সমর্থন দিয়েছে কংগ্রেস সরকার। কিন্তু বিজেপির ক্ষেত্রে সেটি আশা করতে পারে না আওয়ামী লীগের বর্তমান সরকার। তিনি বলেন, কংগ্রেস বিজেপির ঐতিহাসিক প্রতিপক্ষ, সে চাইবে না কংগ্রেসের বন্ধুকে সমর্থন দিতে। তবে দেশের স্বার্থরক্ষার কৌশল অবলম্বন তো করবেই। আন্তর্জাতিকভাবে বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, মার্কিন সরকার প্রধান ওবামার সাথে মোদি সরকারের সম্পর্ক গভীরতর। বাংলাদেশে গণতন্ত্রের চর্চা দেখতে চায় ওবামা সরকার।
ফলে আন্তর্জাতিক চাপে মোদি সরকার তার প্রতিবেশী দেশের নির্বাচিত সরকার দেখতে চাইবে। সেক্ষেত্রে ইনক্লোসিভ নির্বাচন যা বিএনপির চাওয়া তা পূরণ হতে অনেকটাই ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে। তবে এটি হতে আরো কিছু সময় অপেক্ষা করতে হবে। এই সাথে বিএনপির আন্দোলনের উপরও বিষয়টি নির্ভর করবে বলে জানান এই রাষ্ট্রবিজ্ঞানী। উৎসঃ   ইনকিলাব


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ