• সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ১০:৫৯ পূর্বাহ্ন |

বিএনপির আন্দোলনকে গুরুত্ব দিচ্ছে না আলীগ

Awamili Flagসিসিনিউজ: সারাদেশে চলমান গুম-খুনের ঘটনায় নেতাকর্মীদের মধ্যে যে হতাশা কাজ করছে, তা দূর করতে দলের মধ্যে শুদ্ধি অভিযান চালানো হবে। পাশাপাশি দলের সাংগঠনিক জেলাগুলোতে সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন নেতৃত্ব গঠনে চমক সৃষ্টির বিষয়ে ভাবছে দলটি ।বিএনপির আন্দোলন কিংবা ‘সরকার পতনের হুমকি’ কোনো কিছুই আমলে নিচ্ছে না ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। এ মুহূর্তে দল গোছানোর দিকে বেশি মনোযোগী হচ্ছে আওয়ামী লীগ।

সরকার পতনের জন্য গণআন্দোলনের মতো দেশে কোনো ইস্যু নেই বলে মনে করছে দলটির নীতির্নিধারণী মহল। তাই সরকারবিরোধী কোনো আন্দোলনকেই তারা হুমকি মনে করছেন না।

দলটির শীর্ষ নেতারা বলছেন, সংবিধান অনুযায়ী ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগ আবার সরকার গঠন করেছে। জনগণও সরকারকে মেনে নিয়েছে। তবে উপজেলা নির্বাচনে সাধারণ মানুষ ক্ষোভ দেখালেও তা উদ্বেগজনক ছিল না, নিয়ন্ত্রণের মধ্যেই ছিল।

এদিকে গত নির্বাচনের পর থেকে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ১৯ দলীয় জোট আন্দোলনের কোনো ইস্যু খুঁজে পায়নি। রাজপথে দৃশ্যত কোনো কর্মসূচিও তারা দিতে পারেনি। বিএনপি, জামায়াত বা ১৯ দলীয় জোট থেকে সরকার পতনের আন্দোলনের হুমকি দেয়া হলেও তাদের উল্লেখযোগ্য কোনো কর্মসূচি গত সংসদ নির্বাচনের পর জনগণ দেখেনি।

জানা গেছে, আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারকরা মনে করেন, বর্তমান সরকারের অধীনে দেশ উন্নতির পথে এগিয়ে যাচ্ছে। এভাবে চলতে থাকলে ২০২১ সালের মধ্যে দেশ একটি মধ্য আয়ের দেশে পরিণত হবে। বর্তমান সরকার পূর্ণ মেয়াদেই ক্ষমতায় থেকে ২০১৯ সালে নির্বাচন দেবে। ওই পর্যন্ত বিএনপিকে অপেক্ষা করতে হবে।

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, তারা কি আন্দোলন করবে, কোনো ইস্যুতে আন্দোলন করবে? তাদের আন্দোলন দেশবাসী দেখেছে। তারা প্রকৃত অর্থে ষড়যন্ত্র করছে। এজন্য আন্দোলনের নামে জনগণকে বিভ্রান্ত করে দেশের পরিস্থিতি ঘোলাটে করতে চায়। তবে সরকার তাদের সে সুযোগ দেবে না।

তিনি বলেন, সরকার যেকোনো গণতান্ত্রিক কর্মসূচিকে স্বাগত জানাবে। তবে আন্দোলনের নামে অগণতান্ত্রিক কিছু করা হলে সরকার তা সহ্য করবে না।

জানা গেছে, চতুর্থ উপজেলা নির্বাচনে অনিয়মের জের ধরে প্রথমে সরকার পতনের আন্দোলনের হুমকি দেয় বিএনপি। ওই নির্বাচনে ভোট জালিয়াতি, ব্যাপক সহিংসতা হওয়ায় তাদের হুমকি নতুন মাত্রা পায়। এরপর নারায়ণগঞ্জের সাত খুনের ঘটনায় নতুন করে সরকার পতন আন্দোলনের হুমকি দেয় দলটি। নারায়ণগঞ্জ, ফেনী ও লক্ষ্মীপুরসহ সারাদেশে চলমান গুম-খুনের কারণে দলটির নেতাকর্মীদের মধ্যে কিছুটা সাড়া জাগে। কিন্তু এ ইস্যুকেও এখন পর্যন্ত কাজে লাগাতে পারেনি দলটি।

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, বিএনপি আন্দোলন করতে চাইলে করুক। তারা এ নিয়ে ভাবুক। সরকার এ মুহূর্তে তাদের হুমকি-ধমকি নিয়ে ভাবছে না। তারা অযৌক্তিক, অসাংবিধানিক দাবি নিয়ে হইচই করছে। এতে জনগণের কোনো সম্পৃক্ততা নেই। তাই সরকার এগুলোকে গুরুত্ব দিচ্ছে না।

সূত্র জানায়, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া এবং তার ছেলে তারেক রহমানসহ বিএনপির শীর্ষ নেতাদের বিরুদ্ধে মামলা চলমান রেখে দলটিকে চাপে রাখতে চাইছে সরকার। এতে বিএনপির আন্দোলন ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তারা সংগঠিত হওয়ার সুযোগ পাবে না। আর সরকার পতনের আন্দোলনের জন্য বিএনপির যথেষ্ট শক্তি আছে বলেও মনে করে না আওয়ামী লীগ।

জানা গেছে, সরকারবিরোধী আন্দোলন না, এ মুহূর্তে দলকে গুছানোয় বেশি মনোযোগী হচ্ছে আওয়ামী লীগ। সারাদেশে চলমান গুম-খুনের ঘটনায় নেতাকর্মীদের মধ্যে যে হতাশা কাজ করছে তা দূর করতে দলের মধ্যে শুদ্ধি অভিযান চালাবে দলটি। পাশাপাশি দলের সাংগঠনিক জেলাগুলোতে সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন নেতৃত্ব গঠনের চমক সৃষ্টি বিষয়ে ভাবছে দলটি।

গত সোমবার আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী বৈঠকে দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দল গোছানোর বিষয়ে বলেন, বিশৃঙ্খলাকারীদের ছাড় দেয়া হবে না। অনৈতিক কর্মকান্ডে যেই জড়িত হবে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। কেউ তাদের রক্ষা করতে পারবে না। দলের মধ্যে গ্রুপিং না করে নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে কাজ করার প্রতি জোর দেন প্রধানমন্ত্রী। তাছাড়া দলের মধ্যে সুযোগসন্ধানী অনুপ্রবেশকারীদের ব্যাপারে সবাইকে সতর্ক থাকার নির্দেশ দেন তিনি।

জানা গেছে, সরকারবিরোধীরা যাতে অপপ্রচারের সুযোগ না পায়, সেজন্যে তৃণমূল সংগঠনকে আরো শক্তিশালী করার কথা ভাবছে দলটির হাইকমান্ড। কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে জনসম্পৃক্ততা বাড়াতে বিভিন্ন কর্মসূচি নেয়া হবে। এক্ষেত্রে সারাদেশে দলটির সাংগঠনিক সম্পাদক ও কেন্দ্রীয় নেতাদের সফরকে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে।

এ ছাড়া ঢাকা মহানগরীর ওয়ার্ড, থানা, ইউনিয়ন ও মূল নগরীর কাউন্সিল হয়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে এসবের কমিটিও ঘোষণা করা হবে। একইসঙ্গে মহানগরগুলোতে সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন কমিটি দেয়ার বিষয়টিও দলটির পরিকল্পনায় রয়েছে। উৎসঃ   ঢাকাটাইমস


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ