• সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ০৯:৩৮ পূর্বাহ্ন |

আওয়ামী লীগ কি আওয়ামী লীগের হাতেই ধ্বংস হয়ে যাবে?

Gaffarআবদুল গাফ্ফার চৌধুরী: গত শনিবার (৭ জুন) পূর্ব লন্ডনে ছয় দফা এবং ৬ জুন দিবস (১৯৬৬ সালে ছয় দফা আন্দোলনের শুরুতে নাখালপাড়ায় পুলিশের হত্যাকাণ্ড) উপলক্ষে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ একটি সভার আয়োজন করেছিল। সভাটি হওয়ার কথা ছিল বাঙালি অধ্যুষিত ইস্ট এন্ডের মন্টিফিয়োরি সেন্টারে। কিন্তু কে বা কারা সেন্টার কর্তৃপক্ষকে টেলিফোনে জানান, এই সভায় মারামারি হওয়ার আশংকা আছে। ফলে সেন্টার কর্তৃপক্ষ শেষ মুহূর্তে সেন্টারটিতে সভা করার অনুমতি বাতিল করে দেন।
যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের নেতারা বিপদে পড়েন। কিন্তু দলটির করিৎকর্মা সেক্রেটারি সঙ্গে সঙ্গে কাছেই আরেকটি হলে সভার ব্যবস্থা করেন। বিকাল ৩টায় সভার কাজ শুরু হওয়ার কথা। আমিও একজন আমন্ত্রিত বক্তা। সভাস্থলে পৌঁছে দেখি হলের সামনে লোকে-লোকারণ্য। কিন্তু সভা হবে না। হলের মালিক জানিয়েছেন তার ছোট হলে এত বেশি লোক ধরবে না। সুতরাং তিনি এখানে সভা হতে দিতে পারেন না। তাকে একটু চাপ দিতেই জানা গেল, তিনিও জানতে পেরেছেন, সভায় আওয়ামী লীগের দুই দলের মধ্যে মারামারি হবে। তাতে তার হলের ক্ষতি হতে পারে। সেটাও সভা করার জন্য তার হল ব্যবহারের অনুমতি বাতিল করার কারণ।

এ সভাস্থলে লক্ষ্য করেছি, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের একটি ক্ষুদ্র অথচ বিরোধী অংশের রণংদেহী চেহারা। আওয়ামী লীগের নেতারা যখন চেষ্টা করছেন, ভেন্যু বদল করে আর কোথাও সভা করা যায় কিনা, তখন এরা চিৎকার করছে, না, সভা হবে না। এই সভা করার চেষ্টা চালানো হলে যে মারামারি হতো তাতে সন্দেহ নেই। লন্ডনে ঐতিহাসিক ছয় দফা ও নাখালপাড়া দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগের আহূত বিশাল সভা আওয়ামী লীগেরই এক অংশের বাধা দানের ফলে অনুষ্ঠিত হল না। তারেক রহমানকে আর লোক-লস্কর পাঠিয়ে এই সভা ভাঙতে হয়নি।

এরই কিছুদিন আগে ঘটেছে আরও একটি ঘটনা। বাংলাদেশের আইনমন্ত্রী আনিসুল হক কি এক সরকারি কার্যোপলক্ষে লন্ডনে এসেছেন। যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশীদের মনে, এমনকি আওয়ামী লীগারদের মনেও এখন নানা প্রশ্ন, নানা সংশয়। দেশে আইন-শৃংখলা পরিস্থিতির এত অবনতি কেন? একাত্তরের যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ও দণ্ড সত্যি সত্যি হবে কিনা? এ সম্পর্কে বিদেশে বিএনপি ও জামায়াত নানা অপপ্রচার চালাচ্ছে। বিলাতের বাঙালিরা বাংলাদেশের আইনমন্ত্রীর মুখ থেকেই এসব কথার সদুত্তর জেনে সন্তুষ্ট হতে চায়। সাধারণ প্রবাসী বাংলাদেশী এবং আওয়ামী লীগের সমর্থকদের এই দাবির মুখেই যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ তাদের ম্যানচেস্টার শাখার মারফত ম্যানচেস্টার শহরে এক সভার আয়োজন করে। সভায় প্রধান অতিথি এবং প্রধান বক্তা আইনমন্ত্রী।

এই আইনমন্ত্রী আমাকে বড় ভাইয়ের সম্মান দেন এবং যখনই লন্ডনে আসেন দয়া করে আমার বাসায় আসেন। এবার তাই তার সঙ্গে ম্যানচেস্টারে যাওয়ার ইচ্ছে হল। ম্যানচেস্টারের আওয়ামী লীগও আমাকে আমন্ত্রণ জানালেন সেখানে যাওয়ার।

সব কিছু ঠিকঠাক। যাওয়ার আগের দিন জানা গেল, মন্ত্রী ম্যানচেস্টারে যাবেন না। বাংলাদেশের দূতাবাসের গোয়েন্দা প্রধান হাইকমিশনারকে জানিয়েছেন, এই সভায় গণ্ডগোল হতে পারে। তদনুযায়ী হাইকমিশনার মন্ত্রীকে এডভাইস করেছেন, তিনি যেন ম্যানচেস্টারে না যান। আনিসুল হক ভালো মানুষ। অভিজ্ঞ রাজনীতিক নন। তিনি হাইকমিশনারের কথায় সঙ্গে সঙ্গে ম্যানচেস্টার সফর বাতিল করেছেন। যুক্তরাজ্যের- বিশেষ করে ম্যানচেস্টারের, আওয়ামী লীগ নেতারা বিপদে পড়লেন। তারা মন্ত্রীর সংবর্ধনার জন্য বিরাট হল ভাড়া করেছেন। দেওয়ালে পোস্টার দেয়া হয়েছে, ইশতেহার বিলি করা হয়েছে মন্ত্রী আসছেন। এখন তারা কি করেন?

আমিও বিপদে পড়লাম। মন্ত্রী না গেলে আমি একা ম্যানচেস্টারে গিয়ে কী করব? ম্যানচেস্টারের আওয়ামী লীগ নেতারা জানালেন, তাদের সভায় গণ্ডগোল হওয়ার আশংকা নেই। তারা দলে সংখ্যাগরিষ্ঠ। তাছাড়া স্থানীয় কর্তৃপক্ষ সিকিউরিটির ব্যবস্থা করেছেন। মন্ত্রীকে সে কথা জানালাম। তিনি বললেন, শুধু হাইকমিশনের এডভাইসেই তিনি সভায় না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেননি, তাকে ম্যানচেস্টার থেকেই টেলিফোন করে স্থানীয় আওয়ামী লীগের কর্মী পরিচয়ে কেউ কেউ হুমকি দিয়েছে, তিনি যেন সভায় না যান, সেখানে মারামারি হবে।
শুধু মন্ত্রী নন, আমিও ম্যানচেস্টার ও লিভারপুল থেকে দুটি টেলিফোন কল পেলাম। তারা নিজেদের আওয়ামী লীগার বলে পরিচয় দিয়ে জানালেন, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের নেতাদের ওপর তাদের ক্ষোভ আছে। তারা এ সভা হতে দেবেন না। আমি তাদের বোঝাবার চেষ্টা করেছি, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের নেতাদের ওপর ক্ষোভ থাকলে তারা তা কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের জানান। অন্যভাবে ক্ষোভ মেটানোর চেষ্টা করুন। কিন্তু দেশের ও সরকারের এই নাজুক অবস্থায় আওয়ামী লীগার হয়ে আওয়ামী লীগের সভা ভাঙলে দেশের এবং সরকারের ভয়ানক ক্ষতি হবে। বিএনপি-জামায়াতের হাত শক্তিশালী হবে। তারা আমার কথা শুনবেন মনে হল না।

আমি ম্যানচেস্টারের আওয়ামী লীগ নেতাদের এসব কথা জানালাম। তারা বললেন, আপনি এই হুমকিতে ভয় পাবেন না। এরা দু-চারজন লোক। সভায় এসে গণ্ডগোল করার সাহস এদের নেই। তাই টেলিফোনে হুমকি-ধামকি দিয়ে সভা ভাঙার চেষ্টা করছে। এদের পেছনে আছে এক অতি উচ্চাকাক্সক্ষী যুবক। সে নিজের স্বার্থে যুক্তরাজ্য যুবলীগ ভেঙেছে, ছাত্রলীগ ভেঙেছে। এখন আওয়ামী লীগ ভাঙতে চায়। আপনি ঢাকায় নেত্রীকে এবং লন্ডনে শেখ রেহানাকে সব কথা জানিয়ে আওয়ামী লীগকে রক্ষা করার ব্যবস্থা করুন। যুক্তরাজ্যে তারেক রহমান আওয়ামী লীগের জন্য বড় বিপদ নয়। বিপদ এই উচ্চাকাক্সক্ষী যুবক। তার কার্যকলাপে যুক্তরাজ্যে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ঐক্যবদ্ধ হয়ে দাঁড়াতে পারছে না। আওয়ামী লীগকে দুর্বল করার জন্য তারেক রহমান যা করতে পারছেন না, আওয়ামী লীগেরই এক অতি উচ্চাকাক্সক্ষী যুবক তা করে দিচ্ছে।

মন্ত্রীকে এসব কথা জানানোর পরও তিনি আর ম্যানচেস্টারে যাননি। আমি গিয়েছিলাম। বাংলা ভবনের বিরাট হলে সভা, প্রচুর লোক এসেছে। মন্ত্রী গেলে আরও লোক হতো। এই লোকজনদেরও টেলিফোনে ভয় দেখিয়ে আসতে নিষেধ করা হয়। কিন্তু যারা ভয় দেখিয়েছেন, তারা সভার আশপাশেও আসেননি। অত্যন্ত শান্তিশৃঙ্খলার মধ্যে সভাটি হয়েছে। পরে জেনেছি, লন্ডনের বাংলাদেশ দূতাবাসের গোয়েন্দা প্রধানও ম্যানচেস্টার থেকে উড়ো খবর পেয়ে হাইকমিশনারকে সেই খবর জানিয়েছেন। খবরটির সত্যাসত্য একটু তদন্ত করে দেখারও প্রয়োজন অনুভব করেননি। এভাবে উড়ো খবরের ভিত্তিতে মন্ত্রীদের জনবিচ্ছিন্ন করা, জনসংযোগ করতে না দেয়া কোনো চক্রান্তের অংশ কিনা তা আমি জানি না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যতই দিগি¦জয় করুন, তার দল ও সরকার জনবিচ্ছিন্নতার চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছেছে।

কিস্সা এখানেই শেষ নয়। গত কয়েক মাসে লন্ডনে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সভায় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের কর্মী বলে পরিচিত কিছু লোক দ্বারা যেভাবে উপদ্রব সৃষ্টি করা হয়েছে, সভা ভাঙার চেষ্টা হয়েছে, তার পূর্ব দৃষ্টান্ত বিরল। ক্ষমতাসীন দলটি নিজেদের দলীয় লোকদের উৎপাতেই লন্ডনে এবং ইউরোপের অন্যান্য শহরেও সভা করতে পারছে না এটা মোগল সাম্রাজ্যের পতনের পূর্ব লক্ষণ মনে হয়।

কিছুদিন আগেই প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচটি ইমাম লন্ডনে আসেন, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ তাকে নিয়ে একটি সভা করেছিলেন। সেই সভাতেও যুবলীগের কর্মী পরিচয়ে দুতিনজন লোক হাঙ্গামা সৃষ্টি করার চেষ্টা করেছিল। একই হাঙ্গামা সৃষ্টি করার চেষ্টা করা হয়েছে মন্ত্রী এবং কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফের সভায়। তাতে তারেক রহমান ও তার দলবল উৎসাহিত হয়েছে। তারেক রহমান লন্ডনের বড় বড় হোটেলের ব্যাঙ্কোয়েট হল ভাড়া করে চার পাঁচশ লোক জুটিয়ে বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে অবমাননাকর আক্রমণ চালাচ্ছে। আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের বিরাট পরিবার তার বিরুদ্ধে কোনো অবস্থান গ্রহণ করতে পারছে না। কারণ তারেক রহমানের বিরুদ্ধেও তারা যদি কোনো সভা ডাকেন, নিজেদের লোকই সেই সভা পণ্ড করার চেষ্টা করবে।

তারেক রহমানের অসত্য প্রচারণার প্রতিবাদ এবং লন্ডনে বসে বাংলাদেশবিরোধী চক্রান্তে রত থাকার দায়ে যুক্তরাজ্য ছাত্রলীগ তাকে ব্রিটেন থেকে বহিষ্কারের দাবিতে আগামী ১৪ জুন পূর্ব লন্ডনের ওয়াটারলিলি হলে একটি সভা ডেকেছে। এখন শোনা যাচ্ছে, ছাত্রলীগ নামধারী অপর একটি অংশ এই সভায় গণ্ডগোল করবে বলে হুমকি দিচ্ছে। ফলে এই হলেও সভানুষ্ঠানের অনুমতি যদি বাতিল হয় এবং সভাটি অনুষ্ঠিত হতে না পারে, তাহলে বিস্মিত হওয়ার কিছু নেই।

আমি জানি না, আওয়ামী লীগের ভেতরেই আওয়ামী লীগ নামধারী এই যে বাইরের শত্র“র চেয়েও বিপজ্জনক ঘরের শত্র“ গজিয়ে উঠছে, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতারা কেন সময় থাকতে তাদের দমন করছেন না; বরং কেউ কেউ তাদের প্রশ্রয় দিচ্ছেন! নারায়ণগঞ্জের নূর হোসেন, ফেনীর নিজাম হাজারী এবং এরকম আরও অনেক দুর্বৃত্তকে আওয়ামী লীগের ভেতরে লালন-পালন করার একটা ইতিহাস তৈরি হয়ে গেছে এবং দেশের মানুষ আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে পার্থক্যটা আর ধরতে পারছে না। নারায়ণগঞ্জের শামীম ওসমান ভালো কি মন্দ লোক সে প্রশ্নে আমি যাচ্ছি না। তাকে আমি স্নেহ করি এবং তার পরিবারের রাজনৈতিক ঐতিহ্যকেও শ্রদ্ধা করি। কিন্তু নারায়ণগঞ্জের মানুষের সমর্থন যখন শামীম ওসমান হারালেন এবং সেটা নিঃসংশয়ভাবে প্রমাণিত হল নারায়ণগঞ্জের মেয়র নির্বাচনে সেলিনা হায়াৎ আইভীর কাছে বিশাল ভোটের ব্যবধানে পরাজয়, তারপরেও তাকে দুদিন না যেতে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি নির্বাচিত করে এনে জনমত অগ্রাহ্য করে রাজনীতিতে পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা উচিত হয়েছে কি?

শামীম ওসমান কিছুদিনের জন্য রাজনৈতিক অবসরে গেলে সেটা কি তার নিজের জন্য এবং দলের জন্যও ভালো হতো না? তারপর জনমত শামীম ওসমানের পক্ষে ফিরে এলে তিনি তখন আবার রাজনীতিতে নতুনভাবে সক্রিয় হতেন! তাতে লাভ ছাড়া ক্ষতি হতো কি? শেরে বাংলা ফজলুল হকের মতো নেতা ১৯৪৬ সালে তার দলের নির্বাচন বিপর্যয়ের পর আট বছরের জন্য রাজনীতি থেকে স্বেচ্ছা নির্বাসন নিয়েছিলেন। তাতে তার লাভ ছাড়া ক্ষতি হয়েছিল কি? ১৯৫৪ সালে জনসমর্থন ফিরে পেয়ে তিনি বিশাল বিজয় নিয়ে রাজনীতিতে ফিরে এসেছিলেন। জনমতের বিরোধিতা করে কোনো নেতৃত্ব টিকিয়ে রাখা যায় কি?

দেখেশুনে মনে হয়, বাংলাদেশে কিছু লোককে আশ্রয়-প্রশ্রয় দিতে গিয়ে আওয়ামী লীগ যেভাবে দিন দিন বিতর্কিত হচ্ছে, যুক্তরাজ্যেও সেই একইভাবে এক অতি উচ্চাকাক্সক্ষী যুবককে আওয়ামী হাইকমান্ডের কেউ কেউ অতিরিক্ত প্রশ্রয় দিতে গিয়ে আওয়ামী রাজনীতিতে চরম বিপর্যয় ঘটাচ্ছেন। এখানে বাংলাদেশী জনমত ক্রমশই আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে বিগড়াচ্ছে। জানি না, নিজের জীবদ্দশাতেই দেখে যাব কিনা, আওয়ামী লীগ দেশে এবং বিদেশে নিজের হাতেই নিজে ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে।(যুগান্তর)


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ