• বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ১২:৩৩ পূর্বাহ্ন |

নিজেদের জানান দিতে চায় জামায়াত

bnp-jamat2সিসিনিউজ: বর্তমান সরকারের ৫ জানুয়ারির একতরফা নির্বাচনের পর প্রথম সারাদেশের জেলা সদরে ১৯ দলীয় জোটের প্রতিবাদ সমাবেশ সোমবার। দীর্ঘদিন পর জোটের এই কর্মসূচিকে ঘিরে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৯ দলীয় জোট। বিশেষ করে জোটের অন্যতম শরিক জামায়াতে ইসলামী এই কর্মসূচির মাধ্যমে নিজেদের জানান দিতে চায়।

রাজনীতিতে বর্তমান সরকারের সঙ্গে জামায়াতের ‘আঁতাত বা সমাঝোতা’ নিয়ে শুরু হওয়া গুঞ্জনকে মিথ্যা প্রমাণ করতে মাঠে সক্রিয় থাকার ঘোষণা দিয়েছে দলটি।

জানা যায়, ‘৫ জানুয়ারি সরকারের একতরফা নিবার্চনের পর কালো পতাকা মিছিল, রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জোটের ঘোষিত সমাবেশ সরকারের বাধায় করতে পারেনি ১৯ দলীয় জোট। কালো পতাকা মিছিল কর্মসূচি বাতিল হলেও পরে সরকারের শর্তে রাজি হয়ে বিএনপি তাদের দলীয় ব্যানারে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করে। এতে জোটের অন্য শরিকরা শামিল হলেও জামায়াত উপস্থিত ছিল না। মূলত, তখন থেকেই বিএনপির সঙ্গে জামায়াতের দূরত্ব বাড়তে থাকে। এরপর যুদ্ধাপরাধের বিচার প্রশ্নে সরকারের মন্ত্রী বা আওয়ামী লীগের উচ্চপর্যায়ের নেতাদের বিভিন্ন মন্তব্য-বক্তব্যে জামায়াত ও সরকারের মধ্যে গোপন সমঝোতার গুঞ্জন শুরু হয়। অবশ্য সরকারের সঙ্গে কোনো ধরনের গোপন সমঝোতার বিষয়ে জামায়াত সবসময়ই অস্বীকার করে একে মিথ্যা দাবি করে আসছে।

১৯ দল সূত্রে জানা যায়, সোমবারের প্রতিবাদ কর্মসূচি সফল ও নিজেদের সর্বোচ্চ উপস্থিতি নিশ্চিত করতে জামায়াতের প্রতি বিএনপির পক্ষ থেকে চাপ দেওয়া হয়েছে। যদিও এই চাপের কথা বিএনপি বা জামায়াতের কোনো দায়িত্বশীল নেতা স্বীকার করেননি। এদিকে, সোমবারের প্রতিবাদ কর্মসূচি সফল করতে দলীয় নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমান।

দলীয় প্যাডে রবিবার গণমাধ্যমে দেওয়া এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘দেশের বিভিন্ন স্থানে অপহরণ, গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে ১৯ দলীয় জোটের পক্ষ থেকে ঘোষিত কর্মসূচি সোমবার সারাদেশে প্রতিবাদ সমাবেশ সফল করার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।’

একই সঙ্গে তিনি ঘোষিত এ কর্মসূচি সফল করার জন্য জামায়াতে ইসলামীর সকল জেলার প্রতি আহ্বান ও দেশবাসীর সহযোগিতা কামনা করেন। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘১৯ দলীয় জোটের কর্মসূচি। জোটের ব্যানারেই পালন হবে।’ কর্মসূচি নিয়ে এক প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘জামায়াতের ভিন্ন অবস্থান থাকতে পারে। কিন্তু জোটে কর্মসূচি তারা জোটের ব্যানারে পালন করবেন।’

১৯ দলীয় জোটের কর্মসূচি অবাধ সুষ্ঠু নিবার্চনের জন্য উল্লেখ করে জেনারেল মাহবুব বলেন, ‘আন্দোলন শুরু হয়েছে, আরও হবে।’ ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মাওলানা আব্দুল লতিফ নেজামী দ্য রিপোর্টকে বলেন, ‘আমাদের জোটের কর্মসূচি আমরা পালন করব। যেহেতু জেলা পর্যায়ের কর্মসূচি তাই স্থানীয় নেতারা আছে তারা পালন করবেন। সেই ভাবেই আমাদের নির্দেশনা দেওয়া আছে।’

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী আহমেদ বলেন, ‘আজ সোমবার প্রতিবাদ সমাবেশ কর্মসূচি সারাদেশে জেলা সদরগুলোতে স্থানীয়ভাবে পালন করা হবে। নির্দিষ্ট কোনো সময় বেধে দেওয়া নেই। তাদের সুবিধা মতো সময়ে তা পালন করবেন। কোনো জেলা হয়ত সকালে কেউবা বিকেলে করতে পারে।’ তিনি বলেন, ‘সরকারের সঙ্গে জামায়াতের সমঝোতার ব্যাপারে আমি কিছু বলতে পারব না। তবে জামায়াত তো আমাদের সঙ্গেই আছে।’ জামায়াতের সক্রিয় অবস্থান সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘এটা তাদের নিজস্ব ব্যাপার। তা ছাড়া এখন জোটের কর্মসূচি নেই, তাই দেখা যাচ্ছে না তাদের (জামায়াত)। সোমবারের কর্মসূচি পালন করবে তারা।’

৫ জানুয়ারি একতরফা নিবার্চনের পর ১৯ দলীয় জোটের ব্যানারে এ কর্মসূচির মাধ্যমে সক্রিয় আন্দোলনে যাচ্ছেন কিনা- এমন প্রশ্নে রিজভী বলেন, ‘আমরা আন্দোলনেই তো আছি। একেক সময় আন্দোলনের তীব্রতা উঠা-নামা করে। আমাদের দাবি নির্দলীয় সরকারের অধীনে একটি সুষ্ঠু নিবার্চন। কিন্তু সেটা সরকার শুনছে না। আমাদের বাধ্য হয়েই আন্দোলন তীব্র থেকে তীব্রতর করতে হবে।’

কেন্দ্রীয় নেতারা কর্মসূচিতে অংশ নিচ্ছেন কিনা- এমন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘কেন্দ্রীয় নেতারা যেতে পারেন। তবে সেটা তাদের সুবিধা মতো। কেন্দ্র থেকে তেমন কোনো নির্দেশনা নেই।’ লেবার পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান ইরান বলেন, ‘কর্মসূচি সফল করতে আমরা কেন্দ্রীয় নেতারা জেলায় জেলায় অংশ গ্রহণ করব। সেই ভাবেই আমাদের প্রস্তুতি আছে।’ ইরান বলেন, ‘জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি (জাগপা) সভাপতি শফিউল আলম প্রধান ও আমি নারায়ণগঞ্জে থাকব। এ ছাড়া কেন্দ্রীয় নেতারা যে যার মতো করে কর্মসূচিতে অংশ নিবেন।’

উল্লেখ্য, সারাদেশে খুন, গুম ও অপহরণের বিরুদ্ধে জেলা সদরে এ প্রতিবাদ সমাবেশ আহ্বান করে ১৯ দলীয় জোট। গত ৫ জুন কর্মসূচি ঘোষণা করেন বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব ও দলের দফতর সম্পাদক রুহুল কবীর রিজভী আহমেদ। উৎসঃ   দ্যা রিপোর্ট


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ