• সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ০৯:৪৪ পূর্বাহ্ন |

পদ্মা সেতু ও ঘাটাইল বিমানবন্দরে চাকুরী: সৈয়দপুরে প্রতারণার ফাঁদে ৮শ’ যুবক

Takaসিসিনিউজ: পদ্মা সেতু প্রকল্পের নদী শাসনে ও টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে প্রস্তাবিত বিমানবন্দরে চাকুরী দেয়ার নাম করে একটি প্রতিষ্ঠান সৈয়দপুরের ৮০০ যুবকের কাছ থেকে প্রায় দুই কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ মিলেছে। রাজ এগ্রো  প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানীর নামে ওই টাকা হাতিয়ে নেয়া হয়। এসব প্রতারণার ঘটনা আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর নাকের ডগায় ঘটলেও এনিয়ে তাদের মাথা ব্যথা নেই।
সূত্র মতে, রাজ এগ্রো (রাজ গ্রুপ) প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানীর আড়ালে প্রতারক চক্র ওইসব প্রতিষ্ঠানে চাকুরী দেয়ার নামে প্রতিজন যুবকের কাছ থেকে ২৬ হাজার করে নিয়েছে। চক্রটি রীতিমত সৈয়দপুর শহরের বিসিক শিল্প নগরী এলাকায় অহিদুল হাজীর ভবন ভাড়া নিয়ে এ প্রতারণা প্রায় ছয় মাস ধরে চালিয়ে আসছে। অথচ এ অফিসের মাত্র ৫০ গজ দূরে রয়েছে বাঙ্গালীপুর পুলিশ ফাঁড়ি। পদ্মা সেতু প্রকল্পের নদী শাসন ও ঘাটাইল বিমানবন্দরে অদ যুবকদের ২০ হাজার এবং দ যুবকদের ৪০ হাজার টাকা বেতন প্রদানের কথা বলে ওইসব যুবকদের প্রলোভনের ফাঁদে ফেলে এ টাকা নেয়া হয়েছে।
প্রতারিত যুবক কাশেম, মোস্তাফিজ, আব্দুল মজিদ, শহিদার রহমান, জাকারিয়াসহ একাধিক চাকরী প্রার্থী যুবক অভিযোগ করে জানান, তাদের প্রত্যেকের কাছ থেকে সৈয়দপুর শাখা অফিসে দায়িত্বরত পরিচালক এম এ বারী চাকরী দেয়ার নাম করে ২৬ হাজার টাকা নগদ নেয়। এর মধ্যে যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের নামে ১০ হাজার, ঠিকাদার কোম্পানীর নামে ১০ হাজার, স্বাস্থ্য পরীার নামে পাঁচ হাজার এবং যাতায়াত খরচের জন্য এক হাজার টাকা নেয়া হয়েছে। অভিযোগকারী ওইসব যুবকদের স্বাস্থ্য পরীার জন্য ঢাকার ধানমন্ডিস্থ সানলাইট ডায়াগোনস্টিক সেন্টারে সম্প্রতি নিয়ে যাওয়া হয়। কথা ছিল স্বাস্থ্য পরীা শেষে তাদের চাকরীতে নিয়োগ দেয়া হবে। কিন্তু সৈয়দপুর অফিসের পরিচালক এম এ বারী তাদের চাকরীতে যোগদান না করিয়ে সৈয়দপুরে ফিরিয়ে আনেন। পরে এসব যুবকদের মনে সন্দেহ সৃষ্টি হলে তারা কোম্পানীর প্রধান কার্যালয় নতুন ধানমন্ডির ৯নং নম্বর সড়কের এ ব্লকের ৭৩ নম্বর বাসায় খোঁজ নিয়ে জানতে পারে সেখানে তাদের কোন প্রধান কার্যালয় নেই। এ খবর ফাঁস হয়ে গেলে প্রতারিত যুবকরা টাকা ফেরত পেতে সৈয়দপুর অফিসে ধরণা দিতে থাকে। কিন্তু স্থানীয় অফিসের পরিচালক এম এ বারী ১৫ জুনের মধ্যে প্রতারিত যুবকদের চাকরী দেয়ার কথা বলে আশ্বস্থ করছে। গতকাল সোমবার সৈয়দপুর অফিসের সামনে ছড়িয়ে ছিটিয়ে প্রতারিত যুবকদের জটলার দেখা মিলে। তাদের কথা মোটা বেতনের চাকরীর আশায় তারা বাড়ির গরু, ছাগল, মায়ের গয়না বিক্রি করে ওই কোম্পানীর কথিত পরিচালক এম এ বারীর হাতে টাকা তুলে দিয়েছেন। দীর্ঘ ছয় মাস ধরে তারা চাকরীর আশায় ঘুরছেন, অথচ তাদের চাকরী দেয়া হচ্ছে না। এজন্য তারা টাকা ফেরত পেতে দাবি করছেন। কিন্তু কর্তৃপ তাদের কোন কথা কানে নিচ্ছেন না। এমতাবস্থায় তাদের পথে বসা ছাড়া অন্য কোন পথ নেই বলে একাধিক চাকরী প্রত্যাশিত যুবক জানান। ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ের এ প্রতিবেদক প্রধান কার্যালয়ের ঠিকানায় উল্লেখকৃত ০১৯৪৩০৩৩২১৩ নম্বরের সেলফোনে যোগাযোগ করলে অপর প্রান্ত থেকে উত্তর আসে ওই ঠিকানার কার্যালয়টি প্রায় তিন বছর আগে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।
চাকরী দেয়ার নামে ২৬ হাজার টাকা নেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে পরিচালক এম এ বারী চাকরী প্রত্যাশিতদের কাছ থেকে মাত্র ছয় হাজার টাকা নেয়া হয়েছে বলে স্বীকার করেন। তিনি জানান, নির্মাণ কাজের মূল ঠিকাদার মোনায়েম গ্রুপ শ্রমিক নিয়োগে জড়িত। আমরা তাদের হয়ে শ্রমিক সরবরাহ করছি। এ কাজের বৈধতা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি এর অনুকূলে কোন প্রমাণপত্র দেখাতে পারেননি। ঘাটাইল বিমানবন্দর ও পদ্মা সেতু নির্মাণে নদী শাসনের কাজ এখনো শুরু হয়নি এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি কোন সদুত্তোর দিতে পারেননি।
চাকরী প্রত্যাশিত যুবকের প্রসঙ্গে প্রতারণার বিষয়ে জানতে চাইলে সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ সহিদার রহমান জানান, এ ধরনের কোন অভিযোগ আমার কাছে আসেনি। সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শফিকুল ইসলাম মুঠোফোনে জানান, মৌখিকভাবে এ বিষয়ে অভিযোগ পেয়েছি। তবে অভিযোগকারীরা লিখিত অভিযোগ দিলে আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে।
সৈয়দপুর উপজেলা চেয়ারম্যান জাওয়াদুল হক মুঠোফোনে বলেন, এ ব্যাপারে অভিযোগ আসলে আইনী পদক্ষেপ নেয়ার জন্য প্রশাসনকে অনুরোধ করব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ