• শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২, ০৪:০৭ অপরাহ্ন |

১৬ শতাংশ মার্কিন নারী সেনা যৌন লাঞ্ছনার শিকার

Markinআন্তর্জাতিক ডেস্ক: সেনাবাহিনীতে ভর্তি হওয়ার আগ মুহূর্তটি পর্যন্ত মার্কিন নারী সেনারা জানবার সুযোগ পান না যে একসঙ্গে কতগুলো ফ্রন্টে তাদের যুদ্ধ করতে হবে। সেনাবাহিনীতে নাম লেখানোর পর মার্কিন নারীদের জানিয়ে দেওয়া হয় সম্ভাব্য দুটো ফ্রন্টে তাদের লড়তে হবে। এর একটি হচ্ছে যুদ্ধকবলিত দেশের চরম বৈরী প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে সরাসরি যুদ্ধ করা। অন্যটি হচ্ছে যুদ্ধাঞ্চলের মানুষের বৈরী আচরণ সহ্য করা ও পরিস্থিতি মোকাবিলা করে টিকে থাকা। এসব কৌশল খুব ভালোভাবে রপ্ত করতে হয় মার্কিন নারী সেনাদের। তাদের জন্য রয়েছে ভালো প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা। তবে মার্কিন নারী সেনাদের আরো একটি চরম বৈরিতার বিরুদ্ধে সমানে যুদ্ধ করে যেতে হয়। সেটি হলো সহযোদ্ধা পুরুষের যৌন লাঞ্ছনার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করা।

মার্কিন সেনাবাহিনীতে যৌন লাঞ্ছনাবিষয়ক একটি বিশদ প্রতিবেদন সম্প্রতি দেশটির প্রতিরক্ষা দপ্তর থেকে প্রকাশ করা হয়েছে। উদ্বেগজনক তথ্য হলো, ইরাক ও আফগানিস্তানের মতো ভয়াবহ ও দীর্ঘমেয়াদি যুদ্ধকবলিত দেশগুলোয় নিয়োজিত মার্কিন নারী সেনারা যৌন লাঞ্ছনার শিকার হচ্ছেন বেশি। এই হার শতকরা ১৬ ভাগ। এই প্রতিবেদন নিয়ে মার্কিন কংগ্রেসে ব্যাপক আলোচনা হয়েছে। কীভাবে নারী সেনাদের যৌন লাঞ্ছনা প্রতিরোধ করা যায়, তার উপায় ও কৌশল বের করতে একটি কমিটিও করে দেওয়া হয়েছে। এই কারণে মার্কিন নারীরা সেনাবাহিনীতে যোগদানে অনাগ্রহ প্রকাশ করছেন। যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের বড় উদ্বেগের বিষয়ও হচ্ছে সেটাই।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকালে বিভিন্ন দেশে যুক্তরাষ্ট্রের সমরাভিযানগুলো পরিণত হয়েছিল বর্ণবিদ্বেষী যুদ্ধে। সৈনিক শিবিরগুলোও পরিণত হয়েছিল বর্ণবিদ্বেষী কর্মকাণ্ডের আখড়ায়- এ খবর পুরোনো। পরবর্তীকালে সেনাসদস্যদের মধ্যে শ্রেণিগত অবস্থানের দ্বন্দ্ব ও তার সঙ্গে যুক্ত বর্ণবিদ্বেষ মার্কিন সেনাবাহিনীর সংহতিকে চরমভাবে বাধাগ্রস্ত করে। এখন মার্কিন সেনাবাহিনীতে পুরুষ সেনাদের হাতে নারী সেনাদের যৌন নিগৃহের ঘটনা প্রকট হয়ে উঠেছে। দেশটির সমর বিশেষজ্ঞরা নতুন এই উপসর্গ নিয়ে রীতিমতো বিচলিত। পরিস্থিতি সামাল দিতে খুঁজছেন কৌশল। তবে সমালোচকরা বলছেন, অতি আধুনিক ও উন্নত সমরাস্ত্রের জোরে দেশে দেশে আগ্রাসন চালিয়ে বিজয় প্রতিষ্ঠার ঝোড়ো হাওয়ায় বেমালুম চাপা পড়ে যাচ্ছে সেনাবাহিনীর অভ্যন্তরে সংঘটিত এসব ভয়াবহ কুকীর্তি। তারা জোর দিয়ে বলছেন, সভ্য জীবনাচার ও নৈতিকতার ওপর নির্ভরশীল মানবসভ্যতায় যুক্তরাষ্ট্রের বিস্তৃত সামরিক ও বেসামরিক পরিসরে এমন অনৈতিকতা ও অবমাননায় আশাহত বিশ্ববিবেক গভীরভাবে উদ্বিগ্ন।

জর্জ ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞানের অধ্যাপক টম মায়ারি ডল বলেন, বিশ্বমানবতার দোহাই দিয়ে যারা দেশে দেশে গিয়ে যুদ্ধ করছে, তারাই আবার নিজের নারী সহযোদ্ধাকে ধর্ষণ করছে। তারা অন্য দেশের নারীদের সম্ভ্রম কীভাবে রক্ষা করবে। মার্কিন প্রতিরক্ষাবিষয়ক ‘ট্রুথ আউট’ নিবন্ধের লেখক এইম এভ্রইট বলেছেন, লোভ, লুণ্ঠন, খুন, বিনাশ, অপহরণ , ধর্ষণ ও যৌনাচারে মগ্ন মার্কিন সেনাদের ভাবমূর্তি নিয়ে নাগরিকরাই বেশি উদ্বিগ্ন। এসব মানবতাবিরোধী কর্মকাণ্ড যেন মার্কিন সেনাবাহিনীর অঙ্গ হয়ে গেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রতিরক্ষামন্ত্রী ডোনাল্ড রামসফেল্ডকে নারী সেনাদের নিগৃহের বিবরণ সংগ্রহ ও শোধনপন্থা প্রদর্শনের দায়িত্ব অর্পণ করা হয়েছিল। তিনিই মূলত আলোচিত প্রতিবেদনটি উপস্থাপন করেছেন। কিন্তু এই প্রতিবেদনে নানান বিচ্যুতিও ঘটেছে বলে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। প্রতিরক্ষাবিষয়ক সমালোচক ড্যারি হার্টন বলেন, বিশ্বব্যাপী মার্কিন প্রভাব রক্ষায় নারী সেনাদের ওপর চালিত অসংখ্য যৌন নিপীড়নের ঘটনা আড়াল করেছেন রামসফেল্ড। তিনি আরো বলেছেন, সব সত্য প্রকাশে স্খলন ও গভীর বিচ্যুতি ঘটেছে। যুদ্ধফেরত অসংখ্য নারী সেনা মানসিক বৈকল্যে পড়েছেন। তাদের চিকিৎসা চলছে। এসব ঘটনা পুরোপুরি উন্মোচিত যেমন হয়নি তেমনি যৌন নিপীড়নকারী সেনাদের শাস্তির বিষয়ে স্পষ্ট মতামত দেওয়া হয়নি প্রতিবেদনে ।

মার্কিন সেনাবাহিনীতে নারীদের অন্তর্ভুক্তি ঘটে মার্কিন বিপ্লবের জমানায়। গৃহযুদ্ধকালে মর্যাদা রক্ষার গরজে নারীদের পুরুষ বেশ ধারণ করে সৈনিকবৃত্তি অবলম্বন করতে হয়েছিল। উপসাগরীয় যুদ্ধে ৪০ হাজার মার্কিন নারী সেনা অংশ নিয়েছিল। রিপাবলিকান দলের সিনেটর জেন হারমান যৌন নিগৃহের ঘটনায় গঠিত কংগ্রেস কমিটিতে বলেছেন, ইরাক ও আফগানিস্তান যুদ্ধফেরত যেসব নারী সেনারা হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন চিকিৎসা নিতে তাদের বর্ণনার পাশাপাশি চিকিৎসকদের দেওয়া বিবরণ শুনে আমি বাকরুদ্ধ হয়ে পড়ি। ওই সব নারী সেনার ৪১ শতাংশই ছিলেন পুরুষ সেনাদের দ্বারা ভয়াবহভাবে যৌন নিগৃহের শিকার। তাদের পরিবার স্বাভাবিক জীবনে ফেরা নিয়ে খুবই উদ্বেগের মধ্যে সময় কাটাচ্ছেন।

ভিয়েতনাম যুদ্ধে মার্কিন নারী সেনাদের ভয়াবহ যৌন নিপীড়নের গোপন প্রতিবেদন প্রকাশ হয় ২০০৪ সালে মিলিটারি মেডিসিন নামক একটি সাময়িকীতে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, ভিয়েতনাম যুদ্ধে ৭১ শতাংশ নারী সৈনিক ধর্ষণ ও নিগৃহের খোরাকে পরিণত হয় স্বদেশি পুরুষ সেনাদের হাতে। ওই প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছিল, মার্কিন নারী সেনারা যুদ্ধে প্রতিপক্ষের আক্রমণের মুখে যতটা না বিপদাপন্ন, তার চেয়ে বেশি বিপন্ন সহযোদ্ধা পুরুষের কাছে। উল্লেখ্য, ১৪ লাখ মার্কিন সেনাবাহিনীর মধ্যে ২ লাখ নারী সদস্য যাদের সরাসরি যুদ্ধে পাঠানো হয়। তাদের আধুনিক প্রশিক্ষণ থাকলেও পুরুষ সহযোদ্ধার লালসা থেকে অনেক সময় নিজেকে রক্ষা করতে সক্ষম হন না।

ইন্টারনেট


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ