• শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ১২:৩১ পূর্বাহ্ন |

কুরআন’ হাদিসের দৃষ্টিতে শবে বারাআত

Sobe Boratমুফতি আব্দুল্লাহ খান ফয়েজী:

শবে বারাআত কোন রাতঃ
শব ফার্সি শব্দ যার অর্থ রাত, আর বারাআত(براءة (আরবী শব্দ যার অর্থ ক্ষমা,উপমহাদেশে এই দুই শব্দকে এ্কত্রে মিলায়ে শাবান মাসের ১৪ তারিখ দিবাগত রাতের নাম রাখা হয়েছে “শবে বারাআত”অর্থাৎ ক্ষমার রাত।কোরআন ও হাদিসে শবে বারাআত বলতে কোন শব্দ নেই।হাদিস শরীফে শাবান মাসের ১৪ তারিখ দিবাগত রাতকে “লাইলাতুন নিছফুমমিন শাবান”বলা হয়েছে(মিশকাত-১১৪পৃঃ মিরকাত-৩/১৯০পৃঃ)।মনে রাখতে হবে শাবান মাসের মধ্যবর্তী এই রাতটি যাকে হাদিসে“ লাইলাতুননিছফুমমিন শাবান”’বলা হয়েছে, একে আমাদের দেশের প্রচলিত ভাষায় শবে বারাআত বা ক্ষমার রাত বলা হয়ে থাকে । কারন কতিপয় হাদিসের ভাষ্য মতে এ রাতে গুনাহ মাপ করা হয়। এ রাত কে(“ শবে বরাত”براة(  ভাগ্য রাত্রি বলা ঠিক হবে না। কারন কুরআন ও হাদিস মতে ভাগ্য রাত্রি শবে কদর,আর তা রমজান মাসের রাত, শাবান মাসের রাত নয়।
শবে বারাআতের ফযিলাতঃ
শবে বারাআতের ফযিলাত সম্পর্কে পবিত্র কুরআনে যেমন কোন আয়াত নেই ,তেমনি পৃথিবীর কোন হাদিসের কিতাবে সহি কোন হাদিসও নেই।দূর্বল সূত্রে ৯জন সাহাবি থেকে এ রাতের ফযিলাত সর্ম্পকে ৯টি হাদিস বর্নিত আছে। যার সব কয়টির মুল বক্তব্য এক,আর তা হলো, আল্লাহ তায়ালা অর্ধ শাবানের রাতে দুনিয়ার আসমানে নেমে আসেন,এবং মাগফেরাত কামনা কারি অগনিত মানুষদের ক্ষমা করেন।আম্মাজান আয়শা (রাঃ) বর্নিত এক হাদিসে আসছে ,এই রাতে আল্লাহ তায়ালা কলব গোত্রের বোকরি গুলোর পশম সমুহের চেয়েও বেশী লোকের পাপ মার্যনা করেন (তিরমিযি-১/৯২)। তবে হা,এ রাতের ফযিলাত অন্য রাতের তুলনায় ব্যাতিক্রমি নয়, বেশীত বেশী বলাযেতে পারে গুরুত্বপূর্ণ।কেননা ২৮ জন সাহাবি থেকে বর্নিত আছে,আল্লাহ তাযালা প্রতি রাতের শেষ ভাগে প্রথম আসমানে অবতরন করেন এবং অগনিত ক্ষমা প্রার্থীদের ক্ষমা করেন।অতএব আল্লাহ তায়ালা প্রথম আসমানে অবতরন করা/ক্ষমা প্রার্থী দের ক্ষমা করা , এরাতের সাতন্ত্র বৈশিষ্ট নয় ,বরং সব রাতেই ক্ষমা প্রার্থীদের ক্ষমা করা হয় (ইবনে মাযা-৯১পৃঃ,তিরমিযি-১/৯২পৃঃ,মিশকাত-১১৪পৃঃ)।
এ রাতে অগনিত মানুষকে ক্ষমা করা হলেও মুশরেক,হিংসুক, পিতা-মাতার অবাধ্য সন্তান,মদ গাজা ভাং জর্দা সেবন কারি,টাখনুর নিচে প্যান্ট পাজামা লুঙ্গি পরিধান কারিদের কে ক্ষমা করা হবেনা (মিশকাত-১১৫পৃঃ,মাজাহেরে হক-১/৪২২পৃঃ)।
এ রাতে করনিয়ঃ
শবে বারাআত বা অর্ধ শাবানের রাতে করনীয় বলতে কুরআন ও সহি হাদিসে কিছুই নাই।একাধিক র্দূবল হাদিস কে পুজি করে কতিপয় উলামায়ে কেরাম এই রাতে ব্যাক্তি পর্যায়ে তিনটি আমল করা যেতে পারে বলে মত প্রকাশ করেছেন।(১) নফল ইবাদতের মাধ্যমে রাত্রি জাগরন করা,(২) ১৫ তারিখ রোযা রাখা,(৩) ১৪ তারিখ দিবাগত রাতে কবর জেয়ারত করা।
রাত্রি জাগরন ও নফল রোজার প্রমান আলী ইবনে আবি তালেব (রাঃ)(ইবনে মাযা ৯৯পৃঃ/মিশকাত-১১৫পৃঃ) এবং কবর জেয়ারতের প্রমান আয়শা (রাঃ)(ইবনে মাযা/তিরমিযি ১/৯২পৃঃ) বর্নিত হাদিসে পাওয়া যায়।জানা আবশ্যক যে, হাদিস গুলি র্দূবল।নির্ভরযোগ্য মোহাদ্দেসদের নিকট শবে বারাআতের আমল সংক্রান্ত সকল হাদিস অর্নিভরযোগ্য ।
আলী ইবনে আবু তালেব (রাঃ) বর্নিত হাদিস টি যা দ্বারা রাত্রি যাগরন ও রোজা রাখার প্রমান পাওয়া যায় ,আল্লামা নাসির উদ্দিন আলবানি (রঃ) তার কিতাব‘‘ সিলসিলাতুল মাওযুয়াত” কিতাবে যঈফ বলেছেন।আম্মাজান আয়শা (রাঃ) বর্নিত হাদিস যা দ্বারা শবে বারাআতে কবর  জেয়াতের প্রমান পাওয়া যায় ,হাদিসটির বর্ননা কারি ইমাম তিরমিযি স্বয়ং হাদিসটিকে যঈফ(দুর্বল) বলেছেন।ইমাম বুখারি,ও আল্লামা নাসির উদ্দিন আলবানি তিন কারনে হাদিস টিকে যঈফ বা দুর্বল বলেছেন ।
এ রাতে বর্জনীয়ঃ
এই রাতে উল্যেখিত ৩টি আমল ছারা ছওয়াব ও বরকতের নিয়তে যা করা হয় ,তার কিছু কুসংস্কার, কিছুবেদাত, এমনকি কিছু শিরেকের মত জঘণ্যতম অপরাধ।তাই তিনের বাহিরে যা করা হয় তা সবই বর্জনীয় যেমন, হালুয়া রুটি,বাড়ি বাড়ি মীলাদ মাহফিল, মসজিদে মসজিদে  জমা হয়ে রাত্রি জাগরন,বিশেষ করে এই রাতে ওয়াজ মাহফিল,বর্জনীয় কাজের অর্ন্তভুক্ত।
ভাগ্য রজনির জন্ম
কথিত আছে সর্ব প্রথম ভারতের বিহার অঞ্চলে এই রাত কে শবে বরাত বা ভাগ্য রজনী নাম দিয়ে খুব জাক জমকের সাথে উদযাপন করা হয়। সেই থেকে আজ পর্যন্ত সাধারন মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভ’তিকে কাজে লাগায়ে কতিপয় বানোয়াট হাদিস কে পুজি করে পেট পুজারি কিছু ধর্মীয় ঠিকাদারেরা  শবে বারাআত (ক্ষমার রাত) কে শবেবরাত (ভাগ্য রজনী) নাম দিয়ে উদযাপন করে আসছে।কতিপয় আলেম নাম ধারী লোকেরা ,এই রাতের ফযিলত বর্ননা করতে গিয়ে আজগবি কিছু কেচ্ছা কাহিনী সৃষ্টি করে ২/৪ খানা বই লিখে ফেলেছেন“ মাকছুদূল মোমেনীন” এই জাতীয় বইয়ের একটি। প্রতি বছর  শবে বারাআত আসলেই বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকায় এই রাতকে ভাগ্য রজনী বানায়ে হাছা মিছা অনেক কল্প কাহিনী ছাপা হয়,যারা এই প্রবন্ধ গুলি লেখেন তারা কলম সৈনিক একথাটা যেমন সত্য ,তারা যে ধর্মীয় বিদ্যায় দেওলিয়া সে কথাটাও সত্য।
শেষ কথাঃ
ফযিলাত, বরকত ও ছওয়াব মনে করে উল্যেখিত তিনটি কাজ ব্যতিত চার নম্বরে ,আমাদের সমাজের প্রচলিত প্রথা অনুসারে যা যা করা হয় তা সবই হয় কুসংস্কার, না হয় বেদাত ,কতক ক্ষেত্রে শিরেক। তাই আমাদের সমাজের প্রচলিত ঐ কাজ গুলি যেমন , ঐ রাতে রাত্রি জাগরনের জন্যে  মসজিদে জমা হওয়া, হালুয়া রুটির ব্যাবস্থাকরা ,মিলাদ মাহফিল, ওয়াজ মাহফিল, জিকির মাহফিল করা। শাবান মাসের অর্ধরাত তথা শবে বারাআত উপলখ্যে এই কাজ গুলি ছওয়াবের নিয়তে নিজে করা এবং অপরকে এই সকল কাজে আর্থিক ,দৈহিক,মৌখিক সহযোগিতা দেয়া ,আর গুনার কাজ করা ,গুনার কাজে সহযোগিতা করা একই কথা (সুরা মায়েদা-২,/সুরা হাশর-৭,মিশকাত-২৭পৃঃ)।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ