• শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ১২:৩৪ পূর্বাহ্ন |

নীলফামারীতে আইএপিপি প্রকল্পের টাকা হরিলুট

nilphamari Mapনীলফামারী প্রতিনিধি: নীলফামারীতে ইন্ট্রিগেটিভ এগ্রিকালচার প্রডাক্টিভিটি প্রজেক্ট (আইএপিপি)প্রকল্পের টাকা হরিলুট এর অভিযোগ উঠেছে। দেশের কৃষকদের আর্থ-সামাজিকউন্নয়নের লক্ষ্যে সরকার কৃষি, মৎস্য ও প্রানী সম্পদ বিভাগ সহ অপরাপর ৫টিবিভাগে এ প্রকল্পটি গ্রহন করেন।

সূত্রমতে, আইএপিপি প্রকল্পের অধীনে সরকার সংশ্লিষ্ট দপ্তরের মাধ্যমে তৃনমুলপর্যায়ে প্রান্তিক চাষীদের আর্থিক, কারিগরি সহ বিভিন্ন সহায়তা দিয়ে আসছেন।২০১১-১২ অর্থ বছর হতে শুরু হয়ে প্রতি বছর সরকার এ প্রকল্পে আর্থিক বরাদ্দউত্তরোত্তর বৃদ্ধি করে আসছেন। জেলার ছয়টি উপজেলায় ২০১১-১২ অর্থ বছর হতে এপ্রকল্পটি চালু করা হয়। এ প্রকল্পের মাধ্যমে কৃষকদের কৃষিখাতে অভিজ্ঞতাবৃদ্ধির মাধ্যেমে কারিগরি খাতে দক্ষ করে গড়ে তোলা হয়।

সরেজমিনেজেলার বিভিন্ন উপজেলায় এ প্রকল্পের বিভিন্ন কার্যক্রম দেখতে গিয়ে প্রকল্পতো নয় হরিলুটের দৃশ্য চোখে পড়েছে। জেলার ডিমলা উপজেলার কৃষি বিভাগে ৩৫টিলাইভলি হুট ফিল্ট স্কুল (এলএফএস) এর মাধ্যমে প্রতি মাসে একটি শিক্ষা ক্লাশেকৃষকদের ফসল উৎপাদনে আধুনিক প্রযুক্তি’র ব্যবহার সহ ফসলের বহুমুখীকরনব্যবহারের পাশাপাশি বিভিন্ন দিক শিক্ষা দেয়া হয়। প্রতিটি স্কুল নারী ওপুরুষ সহ ২৫ জন করে কৃষক শিক্ষার্থী রয়েছে। এ ক্লাশের উপস্থিতি বাবদ প্রতিকৃষককে ৫০টাকা করে যাতায়াত ভাড়া দেয়ার নিয়ম রয়েছে। কৃষকেরা জানে না তাদেরজন্য ভাড়া বাবদ টাকা বরাদ্দ রয়েছে। ঐসব বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য জৈবসার তৈরীর লক্ষ্যে চালা তৈরীর জন্য ১৮মিমি প্রস্থের ৭ফুট দৈর্ঘ্য-এর ৬টিঢেউ টিন বরাদ্দ থাকলেও তারা তা অধ্যাবদি জানেন না। এছাড়া বিভিন্ন স্কুলেএকটি করে পাওয়ার টিলার দেয়ার নিয়ম থাকলেও কোথায় দেয়া হয়েছে তা কৃষি বিভাগজানাতে পারছে না। সমুদয় টাকা সংশ্লিষ্ট দফতর পুরোপুরি হরিলুট করেছে বলেঅভিযোগে প্রকাশ।

এ ব্যাপারে ডিমলাউপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আফতাব উদ্দিন কোন মন্তব্য করতে রাজী হননি। অপরদিকেজেলার কিশোরগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রেজাউল ইসলাম তার উপজেলার বরাদ্দকৃতপাওয়ার টিলার কোথায় বিতরন করা হয়েছে তা জানাতে পারেনি। ঐ উপজেলার আইএপিপিপ্রকল্পের কোন কার্যক্রম সম্পর্কে কোন তালিকা দেখাতে পারে নাই। জেলার সদরউপজেলায় আইএপিপি প্রকল্পের একই অবস্থা বিরাজ করছে।

অপরদিকেজেলার কিশোরগঞ্জ উপজেলা প্রানী সম্পদ বিভাগের ২০১১-১২অর্থ বছরে ৩লক্ষ৭৫হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। এ টাকা গরু, ছাগল, হাস, মুরগী চাষীদের মাঝে৪টি সমিতির মাধ্যেমে ৮০জন চাষীর উন্নয়ন করা হয়। ২০১২-১৩ অর্থ বছরে ১০লক্ষ২০হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। এ টাকা গরু, ছাগল, হাস, মুরগী চাষীদের মাঝে১৮টি সমিতির মাধ্যেমে ১৬৮০জন চাষীর উন্নয়ন করা হয়। ২০১৩-১৪ অর্থ বছরে১৪লক্ষ ১৫হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। এ টাকা গরু, ছাগল, হাস, মুরগী চাষীদেরমাঝে ১১টি সমিতির মাধ্যেমে ১৩০০জন চাষীর উন্নয়ন করা হয়। এ বরাদ্দকৃত অর্থগরু খামারীদের খামারের মেঝে পাকা, খাবার বরাদ্দ, খামার মেরামতের মাধ্যমেব্যায় করা হয়। এ সমস্ত প্রকল্পে প্রান্তিক চাষীদের অন্তর্ভুক্তির নিয়মথাকলেও ধনী লোকজন রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। তবে প্রানী সম্পদ বিভাগ কোথায়সমিতি রয়েছে তাদের কার্যক্রম কেমন চলছে তা জানাতে পারছে না। দু-একটি কথিতখামারের তালিকা বলা হলেও কোন কার্যক্রম নেই।

খামারীদেরসমুদয় টাকা নানাভাবে খরচ করা হয়েছে উল্লেখ করে কিশোরগঞ্জ উপজেলা প্রানীসম্পদ কর্মকর্তা এসএম শফিকুল ইসলাম জানান, প্রথমবারের প্রজেক্ট তাই বুঝতেপারি নাই তাই কিছু ভেজাল হয়েছে। ভবিষতে আর এমন হবে না।

এব্যাপারে জেলা কৃষি সম্প্রাসারন অধিদপ্তরের উপ পরিচালক সিরাজুল ইসলামজানান, জেলার আইএপিপি প্রকল্পে এমন অনিয়ম তার জানা নেই তবে বিষয়টি তিনিতদন্ত করে দেখবেন বলে দাবী করলেও এর বেশী বলতে রাজী হননি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ