• মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২, ০৭:২১ অপরাহ্ন |

বদরগঞ্জে সরকারী ধান সংগ্রহ: কৃষকের তালিকাই চুড়ান্ত হয়নি

Rangpurসারোয়ার আলম সুমন, বদরগঞ্জ: রংপরের বদরগঞ্জে চলতি বোরো মৌসুমে সরকারী ধান সংগ্রহ অভিযান ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। ধান সংগ্রহ অভিযানের ১০দিন অতিবাহিত হলেও এখনো কৃষকের চুড়ান্ত তালিকা করতে পারেনি ইউনিয়ন পরিষদের কৃষি কর্মকর্তা ও চেয়ারম্যনরা। তবে কৃষি  অফিসার বলছেন ধান সংগ্রহের তালিকায় কৃষকের নাম অর্šÍভুক্তি করবেন খাদ্য অফিস ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যারা। আমরা সহযোগীতা করব। কিন্তু তারা এখনো কোন ধরনের সহযোগিতা চাননি। তবে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা তালিকা প্রনয়ন না হওয়ার জন্য দায়ী করেছেন উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তাকে। তারা বলছেন তালিকা প্রনয়ণয়ের জন্য এখনো খাদ্য অফিস থেকে কোনও চিটি দেয়া হয়নি। এ কারনে কৃষকের তালিকা প্রনয়ণ করা সম্ভব হয়নি। এদিকে উল্টো কথা বলছেন  খাদ্য কর্মকর্তা। তিনি দাবী করেন খাদ্য কমিটির মিটিংয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কৃষি অফিস ও  চেয়ারম্যানদের চিটি দিয়ে তালিকা প্রনয়ণের কথা জানিয়ে দেয়া হয়েছে।এরপরও তারা তালিকা প্রনয়ণ করেননি।
জানা গেছে, চলতি বোরো মৌসুমে এ উপজেলায় ১মে’ থেকে ধান ও চাল সংগ্রহ  অভিযান শুরু হয়েছে। তা চলবে ৩০  আগষ্ট পর্যন্ত। এবারে চাল সংগ্রহের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১৬৩৮ মেট্রিক টন। এ চাল সরবারহে খাদ্য অফিস ৪৫ জন মিল চাতাল মলিকের সাথে চুক্তি করেছেন। সেই অনুযায়ী মিল মালিকরা এ পর্যন্ত ৩০০ মেট্রিক টন চাল সরবারহ করেছেন। আর ধান সংগ্রহে লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৫৬৪ মেট্রিক টন । সেই অনুযায়ী ধান সংগ্রহে কৃষকের তালিকা প্রনয়ণে খাদ্য কমির্টি মিটিংয়ে দায়িত্ব দেয়া হয় কৃষি অফিস ও ইউনিয়ন চেয়ারম্যানদের। কিন্তু কৃষি অফিস,চেয়ারম্যান ও খাদ্য অফিসের সমন্বয়হীনতার কারনে এ তালিকা এখনো চুড়ান্ত হয়নি। তাদের সমন্বয় হীনতার কারনে এবারের ধান সংগ্রহ অভিযান  এখন শুরু না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন কৃষকরা।
কালুপাড়া ইউনিয়নের লালদীঘি এলাকার কৃষক ছবুর আলী বলেন, ২০ বিঘা জমিতে ধান চাষ করেছি। প্রতিবছর সরকারীভাবে ধান নেয়া হয়। এবারে এ পর্যন্ত কোন ধান দিতে পারেনি। শুনেছি কৃষি অফিস ও চেয়ারম্যাদের কারনে কৃষকেরা ধান দিতে পারছেননা। তিনি আরো বলেন, চেয়ারম্যান কৃষি অফিস যদি না পারে তা হলে অন্য কোন অফিসকে দিয়ে কৃষকের তালিকা করা হউক।একই কথা বলেন, রামনাথপুর ইউনিয়নের কৃষক নজরুল ইসলাম।
এ বিষয়ে কৃষি কর্মকর্তা জিয়াউল হক বলেন, সরকারীভাবে ধান ক্রয়ের জন্য খাদ্য কমিটির মিটিংয়ে  চেয়ারম্যানদের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। সে ক্ষেত্রে আমার অফিসের একজন উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা ইউনিয়ন চেয়ারম্যাদের সহযোগিতা করবেন। এছাড়া কৃষি অফিসের কোন কাজ নেই।
রামনাথপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম বলেন, তালিকা প্রনয়নে আমাকে কিছুই বলা হয়নি। এ গুলো কে করছে তা আমি জানিনা।
উপজেলা খাদ্য অফিসার এনামুল হক বলেন, খাদ্য কমিটির মিটিংয়ে কৃষি অফিস ও প্রতিটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে সরকারীভাবে ধান সংগ্রহের জন্য কৃষকের একটি তালিকা প্রনয়ণের দায়িত্ব দেয়া হয়। মিটিংয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তারা ২০ মে’র মধ্যে  খাদ্য অফিসে ওই তালিকা জমা দিবেন।কিন্তু ধান সংগ্রহের সময়সীমার ১০ দিন অতিবাহিত হলেও তাদের গাফলতির কারনে সেই তালিকা এখনো আমি হাতে পায়নি।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও খাদ্য কমিটির সভাপতি খন্দকার ইসতিয়াক আহমেদ বলেন, সরকারী ধান সংগ্রহে কৃষকের তালিকা প্রনয়ন করবেন কৃষি অফিস। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ধান সংগ্রহের সময় সিমার ১০ দিন অতিবাহিত হওয়ার পরও কেন তালিকা প্রনয়ণ হয়নি তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ