• বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৩৪ পূর্বাহ্ন |

মামলার ভারে নুয়ে পড়েছেন বিএনপি নেতারা

bnp_26980ঢাকা: মামলা জালে বিএনপি। দলের শীর্ষ নেতা থেকে তৃণমূল কর্মী সবাই আসামি। বিএনপি ও অঙ্গ দলের অর্ধডজন নেতার বিরুদ্ধে হয়েছে মামলার সেঞ্চুরি। সেঞ্চুরি পেরুনো নেতারা হলেন- সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, সাইফুল আলম নিরব, এসএম জাহাঙ্গীর, হাবিবুর রশীদ হাবিব ও ইসহাক সরকার। তাদের কেউ কেউ রয়েছে ডাবল সেঞ্চুরির কাছাকাছি। হাফ সেঞ্চুরি হয়েছে অন্তত অর্ধশতাধিক নেতার। বিএনপির নীতিনির্ধারক ফোরাম স্থায়ী কমিটির ৫ সদস্যের বিরুদ্ধেই রয়েছে ২০টির বেশি করে মামলা। এ তালিকায় সর্বাগ্রে রয়েছেন মির্জা আব্বাস। সম্প্রতি বিস্ফোরক ও ভাঙচুর আইনে দায়েরকৃত মামলাগুলো ভেঙে দু’টি আলাদা করায় হু হু করে বাড়ছে মামলার সংখ্যা। বর্তমানে দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের দিন শুরু হয় আদালতে হাজিরা দেয়ার মাধ্যমে। কারও কারও পুরো দিনই চলে যায় আদালত চত্বরে। ফলে আইনি জটিলতায় ঘুরপাক খাচ্ছে বিএনপির রাজনীতি।
সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডের বদলে নেতারা ব্যস্ত সময় পার করছেন আদালত চত্বরে। বর্তমানে ২৩টি মামলা রয়েছে খোদ বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়া পরিবারের বিরুদ্ধে। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রয়েছে ৫টি মামলা। দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ১৩টি, জিয়া পরিবারের ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর বিরুদ্ধে রয়েছে ৫টি মামলা। এর মধ্যে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দু’টি এবং তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ২১শে আগস্ট গ্রেনেড হামলাসহ তিনটি মামলা বিচারাধীন। খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের বিরুদ্ধে জিয়া অরফানেজ ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের মামলা দু’টি পুরান ঢাকার আলিয়া মাদরাসা মাঠে স্থাপিত বিশেষ আদালতে স্থানান্তর করা হয়েছে। এসব মামলার মধ্যে তারেক রহমানের একটি মামলা খারিজ হয়ে গেলেও মানি লন্ডারিংয়ের একটি মামলায় সাজা দেয়া হয়েছে আরাফাত রহমান কোকোকে। দলের যুগ্ম মহাসচিব ও খালেদা জিয়া-তারেক রহমানের মামলা পরিচালনাকারী ব্যারিস্টার মাহবুবউদ্দিন খোকন এ তথ্য জানান।
খালেদা জিয়ার মামলার ব্যাপারে বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, খালেদা জিয়ার মামলায় বিভক্ত রায় দিয়েছে আদালত। সেখানে একজন বিচারক মামলা স্থগিতের আদেশ দিয়েছেন। এখন মামলাটি তৃতীয় আদালতে যাবে। তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলার চার্জ গঠন করা হয়েছিল অনৈতিকভাবে। যে বিচারক সেটা করেছেন তার সেই আইনি এখতিয়ারই ছিল না।
শীর্ষ নেতৃত্বের পাশাপাশি বিএনপি স্থায়ী কমিটির বেশির ভাগ সদস্যই একাধিক মামলার আসামি। দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বিরুদ্ধে রয়েছে ২২টি মামলা। এর মধ্যে ১২টিতে চার্জশিট দেয়া হয়েছে। বর্তমান সরকারের আমলে ৫ দফায় অন্তত ৮ মাস কারাভোগ করেছেন তিনি। স্থায়ী কমিটির সদস্যদের মধ্যে ড. মোশাররফ হোসেন মানি লন্ডারিংয়ের একটি মামলায় বর্তমানে কারাভোগ করছেন। এছাড়াও দুর্নীতি, সরকারবিরোধী আন্দোলনের নামে নৈরাজ্যের ঘটনায় তার বিরুদ্ধে দায়ের করা হয়েছে ২০টির বেশি মামলা। স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের বিরুদ্ধে রয়েছে ২০টি মামলা। ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ জানান, ওয়ান ইলেভেনের অবৈধ সরকারের আমলে তার বিরুদ্ধে ৪টি মামলা দেয়া হয়েছিল। বর্তমান সরকারের আমলে দায়ের করা হয়েছে বাড়ি দখলসহ জ্বালাও-পোড়াওয়ের অভিযোগে নতুন ১৬টি মামলা। এর মধ্যে দু’টি মামলায় এজাহারে তার নাম উল্লেখ থাকলেও বাকিগুলোতে দেখানো হয়েছে শোন অ্যারেস্ট। বর্তমান সরকারের আমলে এসব মামলায় তিনি টানা ৮ মাস কারাভোগ করেছেন। স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আসম হান্নান শাহ’র বিরুদ্ধে রয়েছে চাঁদাবাজি ও পুলিশ হত্যাসহ ১১টি মামলা। ওয়ান ইলেভেনের সময় ৩ মামলায় দফায় দফায় প্রায় ৯ মাস এবং বর্তমান সরকারের সময়ে ৮ মামলায় চার মাস কারাভোগ করেছেন বর্ষীয়ান এ নেতা। স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য এম কে আনোয়ার বর্তমানে ৯টি মামলার আসামি। এর মধ্যে গ্যাটকো ও বড়পুকুরিয়া দুর্নীতি মামলা হয়েছিল ওয়ান ইলেভেনের সময়। বাকি ৭টি মামলায় বর্তমান সরকারের সময়ে। এসব মামলায় তিন দফায় তিনি কারাভোগ করেছেন ৬ মাস। এম কে আনোয়ার বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে দায়েরকৃত একটি মামলার এজাহারেও আমার নাম নেই। সবগুলোই গ্রেপ্তারের পরে যুক্ত করা হয়েছে। অন্যদিকে ওয়ান ইলেভেনের সময় দায়েরকৃত মামলাগুলোতে আসামির তালিকায় রয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াসহ অন্তত ১০ সাবেক মন্ত্রী। স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়ার বিরুদ্ধে রয়েছে ২৩টি মামলা। এর মধ্যে চারটি মামলায় ৮৭ দিন কারাভোগ করেছেন তিনি। বর্তমানে ৫টি মামলা সক্রিয় রয়েছে। ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া বলেন, মহাজোট সরকারের দুই বছরের মাথায় ‘গণতন্ত্র’ সংক্রান্ত একটি বক্তব্য দেয়ার ঘটনায় আমার বিরুদ্ধে একযোগে ১৯টি মামলা দায়ের করা হয়েছিল। তার কয়েকটিতে বিএনপির তৎকালীন মহাসচিব খোন্দকার দেলোয়ার হোসেন এবং সবগুলোতে ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনকেও আসামি করা হয়। তবে একই ঘটনায় একাধিক মামলা হওয়ায় বর্তমানে সিরিজ মামলার একটি ছাড়া বাকিগুলো স্থগিত করা হয়েছে।
স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের বিরুদ্ধে বর্তমানে ৪১টি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে ১৯টি ওয়ান ইলেভেনের সময় এবং ২২টি মহাজোট সরকারের সময় দায়ের করা। এর মধ্যে ১০টিতে চার্জ গঠন এবং ৪টিতে হিয়ারিং চলছে। এসব মামলায় ওয়ান ইলেভেনের সময় ২২ মাস ১০ দিন এবং আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে তিন দফায় ৫ মাস কারাভোগ করেছেন। এছাড়া, তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে দায়ের করা তিনটি মামলা খারিজ হয়ে গেলেও ছোট ভাই ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে ২টি মামলা বিচারাধীন রয়েছে। স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের বিরুদ্ধে রয়েছে এক ডজন মামলা। এসব মামলায় তিনি বর্তমান সরকারের সময়ে তিন দফায় কারাভোগ করেছেন। বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর বিরুদ্ধে রয়েছে একাধিক মামলা। এর মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় ফাঁসির দণ্ডাদেশপ্রাপ্ত বর্ষীয়ান এ নেতা বর্তমানে কনডেম সেলে রয়েছেন।
বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক সাদেক হোসেন খোকার বিরুদ্ধে বর্তমানে ২০টির বেশি মামলা রয়েছে। তার ব্যক্তিগত সচিব মনিরুল আলম খান জানান, বর্তমান সরকারের সময়ে দায়ের করা এ সব মামলার মধ্যে ৬-৭টিতে চার্জ গঠন হয়েছে। এছাড়া, বর্তমান সরকারের আমলে তিনি দুই দফায় অন্তত ৫ মাস কারাভোগ করেছেন। অন্যদিকে চার মামলায় আসামি হিসেবে ৮ বছর ধরে কারাভোগ করছেন ভাইস চেয়ারম্যান আবদুস সালাম পিন্টু। যুগ্ম মহাসচিব সালাহউদ্দিন আহমেদের বিরুদ্ধে রয়েছে ৩০টির বেশি মামলা। এর মধ্যে ওয়ান ইলেভেনের সময় ১২টি এবং বাকিগুলো বর্তমান সরকারের সময়ে দায়ের করা। এসব মামলার কয়েকটিতে ইতিমধ্যে চার্জগঠন হয়েছে। ওয়ান ইলেভেনের সময় ২২ মাস ও বর্তমান সরকারের সময়ে কারাভোগ করেছেন ৬৫ দিন। যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদের বিরুদ্ধে বর্তমানে ১২টি মামলা রয়েছে। এসব মামলায় তিন দফায় ৮ মাস কারাভোগসহ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অবরুদ্ধ ছিলেন ৩ মাস। যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুবউদ্দিন খোকনের বিরুদ্ধে বর্তমান সরকারের আমলে দায়ের করা হয়েছে ৪টি মামলা। এসব মামলায় কারাভোগ করেছেন দেড় মাস। ব্যারিস্টার খোকন বলেন, সুপ্রিম কোর্টের ইতিহাসে কখনও বারের রানিং সাধারণ সম্পাদককে রাজনৈতিক মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়নি। কিন্তু আমার ক্ষেত্রে সে রীতি মানা হয়নি। মহাজোট সরকারের আমলে প্রথম দিকে বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক এহসানুল হক মিলন ছিল আলোচিত আসামি। হত্যা থেকে ছিনতাই পর্যন্ত নানা ঘটনায় তার বিরুদ্ধে দায়ের করা হয় অন্তত ৫০টি মামলা। বর্তমানে ৩৭টি মামলার আসামি তিনি। কারাভোগ করেছেন টানা ৪৪৯ দিন। তার স্ত্রী বেবি হকও দু’টি মামলার আসামি। মিলন জানান, এমনও দিন যায় সকালে ঢাকায় বিকালে চাঁদপুরে মামলার হাজিরা দিতে হয়।
সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আসলাম চৌধুরীর বিরুদ্ধে রয়েছে ২২টি মামলা। বর্তমান সরকারের আমলে দুই দফা তিনি কারাভোগ করেছেন ১৮ দিন। বিএনপির ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানীর বিরুদ্ধে বর্তমানে ১৯টি মামলা রয়েছে। এর ১৮টিই বর্তমান সরকারের আমলে দায়ের করা। ওয়ান ইলেভেনের সময় একবারসহ চার দফায় তিনি কারাভোগ করেছেন তিন মাস। বিএনপির সহ-ছাত্রবিষয়ক সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকুর বিরুদ্ধে বর্তমানে সর্বাধিক ১৬০টির বেশি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে চার্জ গঠন হয়েছে অন্তত ৩০টির। বর্তমান সরকারের আমলে তিন দফায় কারাভোগ করেছেন ১৪ মাস। টুকু বলেন, প্রতিদিন আদালতে হাজিরা দেয়ার মাধ্যমেই দিন শুরু হয়। কোন কোন দিন একাধিক হাজিরা থাকে। তিনি বলেন, আগে মামলার সংখ্যা কিছু কম ছিল কিন্তু নতুন আইনে এক মামলা ভেঙে এখন দু’টি করা হচ্ছে।
বিএনপির পাশাপাশি অঙ্গ দলগুলোর শীর্ষ নেতাদের বিরুদ্ধে রয়েছে রেকর্ড সংখ্যক মামলা। যুবদল সভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলালের বিরুদ্ধে বর্তমানে ১১০টি মামলা রয়েছে। যুবদলের দপ্তর সম্পাদক দুলাল জানান, সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আলম নিরব সর্বাধিক ১৩০টি মামলার আসামি। তাদের তুলনায় কিছুটা পিছিয়ে থাকলেও সাংগঠনিক সম্পাদক আকম মোজাম্মেল হকের বিরুদ্ধে রয়েছে ২২টি মামলা। তবে সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের পাশাপাশি ব্যাপক ভিত্তিতে মামলার আসামি করা হয়েছে ঢাকা মহানগর নেতাদের। মহানগর উত্তরের সভাপতি মামুন হাসানের বিরুদ্ধে ৫০টির বেশি এবং সাধারণ সম্পাদক এসএম জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে রয়েছে ১১৬টি মামলা। মহানগর দক্ষিণের সভাপতি রফিকুল আলম মজনুর বিরুদ্ধে ৭৮ এবং সাধারণ সম্পাদক হামিদের বিরুদ্ধে রয়েছে ৫২টি মামলা। এছাড়াও চট্টগ্রাম মহানগর, রাজশাহী, ময়মনসিংহ ও রংপুরসহ অন্তত এক ডজন জেলা যুবলীগের শীর্ষ নেতাদের বিরুদ্ধে রয়েছে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক মামলা। যুবদলের পাশাপাশি আসামির তালিকায় পিছিয়ে নেই স্বেচ্ছাসেবক দলের শীর্ষ নেতারাও। সংগঠনের দপ্তর সম্পাদক আখতারুজ্জামান বাচ্চু জানান, সভাপতি হাবিব-উন নবী খান সোহেলের বিরুদ্ধে রয়েছে ৭৫টি মামলা। একই ভাবে সাধারণ সম্পাদক মীর সরাফত আলী সপু ৭০, সাংগঠনিক সম্পাদক ৫৫টি মামলার আসামি। কেন্দ্রীয় নেতাদের পাশাপাশি ঢাকা মহানগর ইয়াসিন আলীর বিরুদ্ধে ৫০টি ও আলী রেজাউর রহমান রিপনের বিরুদ্ধে ২৫টি মামলা রয়েছে। কেন্দ্রীয় নেতাদের পাশাপাশি সিলেট জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক শামসুজ্জামান জামানের বিরুদ্ধে রয়েছে অর্ধশতাধিক মামলা। সহযোগী সংগঠনের মধ্যে সর্বাধিক সংখ্যক মামলা রয়েছে ছাত্রদল নেতাদের নামে। ছাত্রদল নেতাদের মধ্যে সবার চেয়ে এগিয়ে আছেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি ইসহাক সরকার। তার বিরুদ্ধে রয়েছে ১৭০টির মতো মামলা। সভাপতি আবদুল কাদের ভূঁইয়া জুয়েলের বিরুদ্ধে ৮০টি, সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রশীদ হাবিবের বিরুদ্ধে ১৪০টি ও সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক ওবায়দুল হক নাসিরের বিরুদ্ধে রয়েছে ৫০ এর বেশি মামলা। এছাড়া, সিনিয়র সহ-সভাপতি বজলুল করিম চৌধুরী আবেদের বিরুদ্ধে ১৫টি, ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি আবুল মনসুর খান দীপকের বিরুদ্ধে ১৮টি, যুগ্ম সম্পাদক আকরামুল হাসানের বিরুদ্ধে ৮টিসহ কেন্দ্রীয়, ঢাকা মহানগর ও জেলা কমিটির শীর্ষ নেতাদের বিরুদ্ধে রয়েছে একাধিক মামলা। ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রশীদ হাবিব বলেন, যারা পরপর দুই কমিটির নেতৃত্বে আছেন তাদের বিরুদ্ধে মামলার সংখ্যা তুলনামূলকভাবে বেশি। এছাড়া, সম্প্রতি বিস্ফোরক দ্রব্য আইন ও ভাঙচুরের জন্য আলাদা আইন করায় মামলার সংখ্যা বেড়ে গেছে। বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের মধ্যে ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, মেজর (অব.) হাফিজউদ্দিন আহমেদ বীরবিক্রম, শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, শাহজাহান ওমর বীরউত্তম, ফজলুর রহমান পটল, আবদুল আউয়াল মিন্টু, খোন্দকার মাহবুব হোসেন, শওকত মাহমুদ, মীর মোহাম্মদ নাসিরউদ্দিন, ডা. জাহিদ হোসেন, যুগ্ম মহাসচিব আমানউল্লাহ আমান, মিজানুর রহমান মিনু, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, গোলাম আকবর খোন্দকার, হারুনুর রশীদ, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক গিয়াসউদ্দিন কাদের চৌধুরী, নাজিমউদ্দিন আলম, স্বনির্ভরবিষয়ক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, অর্থনীতি বিষয়ক সম্পাদক আবদুস সালাম, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক নাসিরউদ্দিন চৌধুরী পিন্টুসহ কেন্দ্রীয় ও জেলা পর্যায়ের শতাধিক নেতা ৫ থেকে ৩০টির বেশি মামলার আসামি। উৎস: ঢাকাটাইমস


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ