• বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৫৭ পূর্বাহ্ন |

চার দশকে উচ্চ ফলনশীল ৪১৭ ধানের জাত উদ্ভাবন

Dhanগাজীপুর প্রতিনিধি: বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বারি) কৃষিবিজ্ঞানীরা ধান, গম, তেলবীজ, ডালশস্য, আলু, সবজি, মসলা এবং অন্য দানাদার ফসলের উন্নত বীজ ও প্রতিকূল আবহাওয়াসহিষ্ণু চাষাবাদ প্রযুক্তি আবিষ্কার করেছেন। এতে দেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হয়েছে, দূর হয়েছে পুষ্টিহীনতা। জনজীবন থেকে  মুছে গেছে আকাল ও মঙ্গার নিদারুণ স্মৃতি।
গতকাল মঙ্গলবার গাজীপুরে বারির অভ্যন্তরীণ গবেষণা পর্যালোচনা ও কর্মসূচি প্রণয়ন কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তারা এসব কথা বলেন। বদরুদ্দোজা মিলনায়তনে এ কর্মশালা চলবে এক মাস।
আলোচকরা জানিয়েছেন বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বারি) বিজ্ঞানীরা এ পর্যন্ত ১০৬টি ফসলের হাইব্রিড জাতসহ ৪১৭টি উচ্চ ফলনশীল, রোগ প্রতিরোধক্ষম ও বিভিন্ন প্রতিকূল পরিবেশ প্রতিরোধী জাত এবং এগুলোর চাষাবাদবিষয়ক ৮০০টিরও বেশি প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছে। এসব প্রযুক্তি উদ্ভাবনের ফলে গম, তেলবীজ, ডালশস্য, আলু, সবজি, মসলা এবং দানাদার ফলের উৎপাদন বেড়েছে। এতে দেশে পুষ্টিহীনতা উল্লেখযোগ্য হারে দূর হয়েছে। নগরায়ন ও শিল্পায়নের ফলে প্রতিবছর আশঙ্কাজনক হারে আবাদি জমি কমছে। এর পরও বারির বিজ্ঞানীদের এসব উদ্ভাবনের ফলে দেশ আজ খাদ্যে উদ্বৃত্ত।
বারিতে গত অর্থবছর যেসব গবেষণা কর্মসূচি হাতে নেয়া হয়েছিল সেগুলোর মূল্যায়ন এবং এসব অভিজ্ঞতার আলোকে আগামী অর্থবছরের গবেষণা কর্মসূচি প্রণয়নের উদ্দেশ্যে মাসব্যাপী এ কর্মশালার আয়োজন করা হয়েছে। এ কর্মশালা মঙ্গলবার থেকে শুরু হয়ে আগামী ২৮ আগস্ট পর্যন্ত চলবে। উদ্ভাবিত প্রযুক্তির উপযোগিতা যাচাই-বাছাই ও দেশের বর্তমান চাহিদা অনুযায়ী প্রযুক্তি উদ্ভাবনের কমসূচি গ্রহণ করাই এ কর্মশালার উদ্দেশ্য।
বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. মো. রফিকুল ইসলাম ম-লের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর সাহানা আফরোজ। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব মো. জমসের আহম্মদ খন্দকার।
এ অনুষ্ঠানে বারির গবেষণা কার্যক্রম ও সাফল্যের ওপর সংক্ষিপ্তসার উপস্থাপন করেন প্রতিষ্ঠানের পরিচালক (গবেষণা) ড. মো. খালেদ সুলতান। স¦াগত বক্তব্য রাখেন বারির পরিচালক (প্রশিক্ষণ ও যোগাযোগ) ড. মো. মুখলেছুর রহমান এবং ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন পরিচালক (সেবা ও সরবরাহ) ড. শামসুন নূর।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রফেসর সাহানা আফরোজ বলেন, ‘আমাদের দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিতে এখনো কৃষির ভালো অবদান রয়েছে। দেশের কৃষিসম্পদকে কাজে লাগিয়ে আগামীতে আমাদের  চাহিদা পূরণ করতে হবে। দেশের বেশির ভাগ মানুষ এখনো কৃষির ওপর নির্ভরশীল। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে চাষাবাদ এখন বিশ্বব্যাপী নানামুখী চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন। এ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় কৃষিবিজ্ঞানীরা এরই মধ্যে লবণাক্ততাসহিষ্ণু জাতের ধান, এমনকি বন্যার পানিতে টেকসই ফসলের জাত উদ্ভাবনেও উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি সাধন করেছেন। তাছাড়া  গম, আলু, শাকসবজি, পাট, চা, ডাল ফসল, তেল ফসলেও ব্যাপক উন্নতিসাধনের মাধ্যমে দেশের পুষ্টিচাহিদা ও খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিত করতে তারা প্রতিনিয়ত কাজ করছেন।
তিনি আরো বলেন, কৃষিতে এই উন্নতির ফলেই মাত্র এক লাখ ৪৭ হাজার বর্গকিলোমিটারের এ দেশে প্রায় ১৫ কোটি মানুষের খাদ্যের জোগান দেয়া সম্ভব হচ্ছে। গত চার দশকে দেশে খাদ্য উৎপাদন প্রায় তিন গুণ বেড়েছে। ২০১৩-১৪ সালে খাদ্য উৎপাদন বেড়ে সাড়ে তিন কোটি টনে দাঁড়িয়েছে। তিনি বারির গবেষণা কার্যক্রম দেখে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।
এ কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বারির অবসরপ্রাপ্ত মহাপরিচালক, পরিচালক, বিভিন্ন কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিসহ প্রায় ৫০০ বিশেষজ্ঞ বিজ্ঞানী উপস্থিত ছিলেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ