• বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:০২ পূর্বাহ্ন |

যশোরে কাজের বুয়াকে নির্যাতন : ৫ কলেজ ছাত্রী আটক

Hand Cupযশোর : কাজের বুয়াকে মারপিট করার অভিযোগে যশোরে পাঁচ কলেজ ছাত্রীকে আটক করেছে পুলিশ। বুধবার সন্ধ্যায় শহরের স্টেডিয়ামপাড়া থেকে ওই কলেজ ছাত্রীদেরকে আটক করা হয়।

আটকৃতরা হলেন- যশোরের মণিরামপুর উপজেলার কাশিমপুর গ্রামের লুৎফর বিশ্বাসের মেয়ে নাজমুন নাহার। সে এম এম কলেজের ইংরেজি বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী। একই উপজেলার আজিজুল ইসলামের মেয়ে শান্তা, সে মণিরামপুর কলেজের ছাত্রী। ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ সিংঙ্গী গ্রামের পিকু মিয়ার মেয়ে লাকী। সে সরকারি মহিলা কলেজের দর্শন বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী। মহেশপুর উপজেলার লেবুতলা গ্রামের আশরাফের মেয়ে স্নেহা ও কেশবপুর উপজেলার সানতলা গ্রামের তৌফিকুল ইসলামের মেয়ে রেশমা। তারা দুইজনই সরকারি এম এম কলেজের ইতহাস বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী।

স্থানীয়রা জানায়, শহরের স্টেডিয়াম পাড়ার আসাদুজ্জামানের স্ত্রী আকলিমা একই এলাকার রেজাউলের বাড়ির ছাত্রীবাসে কাজের বুয়া হিসেবে কাজ করতো। সোমবার ওই ছাত্রাবাস থেকে একটি মোবাইল ফোন খোয়া যায়। ছাত্রাবাসের ছাত্রীরা মোবাইল ফোন চুরির জন্য কাজের বুয়া আকলিমাকে সন্দেহে করে। প্রতিদিনের ন্যায় কাজের বুয়া মঙ্গলবার সকালে কাজে আসলে তাকে আটক করে মারপিট করে। বুধবার সন্ধ্যায় এ ঘটনা জানাজানি হয়। ঘটনাটি জানাজানি হলে এলাকাবাসী বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে। এলাকার কয়েকশ’ মানুষ ওই বাড়িটি ঘেরাও করে রাখে। খবর পেয়ে পুলিশ এসে কাজের বুয়াসহ ৫ ছাত্রীকে কোতয়ালি থানায় নিয়ে যায়।

চুরির দায় স্বীকার করানোর জন্য ওই ৫ ছাত্রী আকলিমার মুখের ভেতর কাপড় দিয়ে মুখ বন্ধ করে পিঠে ইনজেকশনের সুচ ফুটিয়ে নির্যাতন করে।

এ ঘটনায় আকলিমা বাদী হয়ে ১১ জনের নামে থানায় অভিযোগ দিয়েছে। অভিযুক্ত বাকী ৬ জন হলো রেজাউলের ছেলে অপু ও তুহিন, রাজু, লাভলী, শাহনাজ ও সোনিয়া।

কোতয়ালি থানার এসআই হেমায়েত হোসেন জানান, মঙ্গলবার সকালে কাজের বুয়া আকলিমা ছাত্রাবাসে আসলে তাকে আটক করে। এরপর মোবাইল চুরির অভিযোগে ওই ছাত্রীরা কাজের বুয়াকে মারপিট করে। আজ (বুধবার) বুয়ার মেয়ে তার মাকে খোঁজ করতে আসলে তাকেও মারপিট করে। এ খবর পাড়ায় ছড়িয়ে পড়লে এলাকাবাসী ছাত্রীবাসটি ঘেরাও করে। পরে বুধবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে স্টেডিয়াম পাড়ার রেজাউল ইসলামের বাড়ি থেকে ৫ কলেজছাত্রীসহ কাজের বুয়া আকলিমাকে উদ্ধার করা হয়।

থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহিদুল ইসলাম জানান, ওই গৃহকর্মী ও ৫ ছাত্রীকে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ