• বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৩৬ পূর্বাহ্ন |

প্রবাসের জনপ্রিয় মুখ রিদা খান

Ridaবিনোদন ডেস্ক: দেশের তারকা বিদেশে যেয়ে দেশের জন্য সুনাম বয়ে আনে। বিভিন্ন দেশে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তারা আমাদের সংস্কৃতি তুলে ধরেন। কেউ কেউ প্রবাসী হয়ে সেই কাজটি করছেন। তাদের একজন রিদা খান। আমাদের  তারকাদের এখন তীর্থস্থান ফোবানা সম্মেলন। সেই ফোবানা সম্মেলনে একজন তারকার আমন্ত্রণ পাওয়া যেন বড় স্বীকৃতি পাওয়ার মতো হয়ে গেছে। যে যত বড় তারকা, তিনি তত বেশি সেখানে অংশগ্রহণ করে দেশের মুখ উজ্জ্বল করছেন। প্রবাসী হয়েও রিদা খান গত বিশ ফোবানা সম্মেলনের নানা সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডে অংশগ্রহণ করে দেশের মুখ উজ্জ্বল করছেন।  ফোবানা সম্মেলনসহ আমেরিকার ৩৫টি স্টেটে প্রোগ্রাম করে তিনি সবার কাছে পরিচিত, ইতিমধ্যে জনপ্রিয় মুখ হয়ে উঠেছেন। নাচ, গান, স্বরচিত কবিতা দিয়ে নিজের প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছেন। রিদা সবচেয়ে জনপ্রিয় তার অভিনয়ের জন্য। সেখানে তিনি রাজধানী ড্রামা সার্কেলসের সক্রিয় সদস্য হিসেবে বহু নাটকে অভিনয় করেছেন। আমেরিকার ওরিগন স্টেটের বাসিন্দা রিদা খান খুব ছোট বয়সে পরিবারের সঙ্গে সেখানে চলে যান। ছোটবেলা থেকেই নাচ, গান আর অভিনয়ের সঙ্গে নিজেকে সম্পৃক্ত রেখেছেন। ঢাকার নাগরিক নাট্যদলের সঙ্গে একই মঞ্চে অভিনয় করে সেখানে প্রশংসিত হয়েছে। তার অভিনয়ে মুগ্ধ হয়ে অভিনেতা আলমগীর ও গায়িকা রুনা লায়লা তাকে ঢাকায় এসে কাজ করার উৎসাহ জোগান। ২০০১ সালে নিউইয়র্কের মেডিসন স্কয়ারে একক নাটকে অভিনয় করে প্রশংসিত হন তিনি। শুধু তা-ই নয়, সেবার একটি ট্যালেন্ট শোতে অংশ নিয়ে প্রথম হন। স্বরচিত কবিতা পাঠের এই প্রতিযোগিতার বিচারক ছিলেন শফিক রেহমান। কবিতা ছাড়াও তিনি গল্প ও উপন্যাস লেখেন। তানিয়া প্রকাশনী থেকে ‘বন্ধু আমার’ নামে একটি উপন্যাস এখন প্রকাশের অপেক্ষায়। এতগুলো মাধ্যমে পদচারণা থাকলেও রিদা মূলত একজন অভিনেত্রী হিসেবে নিজের ক্যারিয়ারকে সামনে এগিয়ে নিতে চান।
অভিনয়ের পাশাপাশি গানটা চালিয়ে যেতে চান। অভিনয় আর গানের জন্য এবার তিনি দু মাসের জন্য ঢাকায় এসেছেন। এর মধ্যে তিনি ইটিভির একটি লাইভ প্রোগ্রামে অংশ নিয়েছেন। সামনে আরো তিনটি চ্যানেলে লাইভ পারফরম্যান্স করবেন। এরই মধ্যে তিনি রয়েল মিডিয়া থেকে তার প্রথম গানের অ্যালবামটি করার চূড়ান্ত প্রস্তুতি নিয়েছেন। মামুন খন্দকারের লেখা ও কাজী জামালের সুরে সব কটি গান রেকর্ড করা হবে। রিদা খান বললেন, গান গাই নিজের আত্মশুদ্ধির জন্য। আর অভিনয় করছি আত্মতৃপ্তির জন্য। মোটকথা সুযোগ পেলে আমি ঢাকার মিডিয়ায় নিয়মিত কাজ করব। বছরে দুবার করে বেশ কিছুদিন ঢাকায় থাকতে চাই। এ বছরের শেষে এসে দুটো সিরিয়ালের কাজ করে যাব। পরিচালকের সঙ্গে কথা চূড়ান্ত হয়েছে।
বাল্টিমোর মেরিল্যান্ডের ওয়েস্টার্ন হাইস্কুলের গ্র্যাজুয়েট রিদা খান। টাউসন ইউনিভার্সিটি থেকে বিবিএ করে ক্যালিফোর্নিয়া থেকে এমবিএ শেষ করেছেন। কর্পোরেট জব করার সুবাদে ইউরোপ, আমেরিকা সহ এশিয়ার বেশ কয়েকটি দেশ সফর করেছেন তিনি। তারপর ক্যালিফোর্নিয়া ট্রান্সপোর্টেশনের ইঞ্জিনিয়ারিং ফার্মে বেশ কিছুদিন কনসালট্যান্ট হিসেবে কাজ করেছেন। কিন্তু যার মনে শিল্পী চেতনা, তাকে দিয়ে কি আর এমন কঠিন কাজ হয়। ছেড়ে দিলেন সেই কাজ। করপোরেট এই কাজ ছেড়ে ইউওপিতে লিডারশিপ লেকচারার হিসেবে কাজ করছেন। গতবছর ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের একটি প্রজেক্ট নিয়ে এলেন ভারত, নেপাল ও বাংলাদেশ। এই সফরে এসেই সিদ্ধান্ত নিলেন তিনি বাংলাদেশের মিডিয়ায় স্থায়ী হবেন। ২০ বছরের প্রবাস জীবন তাকে মুহূর্তে দেশমুখী করে দিল ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের এই প্রজেক্ট। ঢাকায় এসে অফার পেয়েছেন ব্র্যাক ইউনিভার্সিটিতে লেকচারার হিসাবে জয়েন করার। এতকিছুর মাঝেও তিনি ইয়োগা সার্টিফিকেট কোর্স সম্পন্ন করেন। ছুটির দিনে আমেরিকানদের ইয়োগা শিক্ষা দেন। সাথে জন কাসাব্লাংকা মডেলিং ও অ্যাক্টিং স্কুল থেকে তিনি সার্টিফিকেট কোর্স কমপ্লিট করেছেন। এ জন্যই বিশ্বখ্যাত ম্যাগাজিন সেভেনটিনে ‘হেনা’র মডেল হয়ে রেকর্ড করেছেন। সেটা ১৯৯৮ সালের সামার ইস্যুতে। কিন্তু মডেলিং কন্টিনিউ করতে পারেননি পারিবারিক কিছু বাধা-নিষেধের কারণে। কিন্তু এখন তিনি তার মনের মতো করে মিডিয়ায় কাজ করতে পারছেন। এ জন্য তিনি স্বামী ড. ইব্রাহিম খানের কাছে কৃতজ্ঞ। তার উদার মনমানসিকতার জন্য রিদা এখন তার স্বপ্নের কাছাকাছি আসার চেষ্টা করছেন। ইনটেল ওরিগনের বড় চাকরিজীবী স্বামী প্রচন্ত ব্যস্ততার মাঝেও স্ত্রী রিদাকে উৎসাহ দেন মিডিয়ায় কাজের ব্যাপারে।
ঢাকায় কাজ করার আগে রিদা হলিউডে চিত্রায়িত টেলিফিল্ম ‘ভুল’-এ প্রধান নায়িকা চরিত্রে অভিনয় করেছেন। মো. বাবু পরিচালিত এ টেলিফিল্ম দেখেই ঢাকার অনেক নির্মাতা রিদাকে নিয়ে কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। আগ্রহীদের সঙ্গে দেখা ও তার প্রথম এলবামের কাজ করতেই এবার তিনি ঢাকায় এসেছেন। এ ক্ষেত্রে শিল্পী এম এ সোয়েবের গানের মডেল হওয়া তার ক্যারিয়ারের জন্য প্লাস করেছে। রিদা বললেন, ছোট পর্দায় অভিনয়, গান আর মডেলিং নিয়েই বছরে দুবার এসে কাজ করতে চাই। আর দর্শক যদি চান তবে এদেশেই স্থায়ীভাবে থেকে কাজ করব। আমার বিশ্বাস, এ জন্য আমার স্বামী সবচেয়ে বেশি খুশি হবেন। তিনি মনেপ্রাণে চান, আমি যেন মিডিয়ায় প্রতিষ্ঠিত হতে পারি। তার জন্যই আমি পৃথিবীর ২৫টির বেশি দেশে কাজ করার মতো সাহস পেয়েছি। রিদা বললেন, আমি খুব ছোটবেলা থেকেই ওয়াশিংটন ডিসি বাংলাদেশি কমিউনিটির সঙ্গে নিয়মিত বিভিন্ন অনুষ্ঠানে পারফর্ম করছি। নিজেও ওরিগন প্রতিনিধি হিসেবে আমেরিকার ৩৫টি প্রদেশে ঘুরেছি। একজন শিল্পী হিসেবে এটা আমার অনেক বড় পাওয়া। তারপরও কোথায় যেন আমার ঘাটতি ছিল। দেশে এসে কাজ করার পর মনে হলো আমার ঘাটতি পূরণ হতে চলছে। আর এ জন্য আমি আমার স্বামীর কাছে এবং এদেশের মানুষের কাছে কৃতজ্ঞ। খুব ছোটবেলায় দেশ ছেড়েছি বলে দেশের প্রতি টানটা এতদিন বুঝিনি। কিন্তু এখন বুঝি দেশ ও মাটি কত আপন আর কত কাছের।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ