• বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:১০ পূর্বাহ্ন |

মালয়েশিয়াগামী ট্রলারে গুলি নিহত ৫ : আহত ৪০

trolarসিসিনিউজ: সমুদ্রপথে মালয়েশিয়াগামী ট্রলারে গুলি চালিয়েছে অপরিচিত বন্দুকদারীরা।
এতে ঘটনাস্থলে ট্রলারের নাবিকসহ ৫ জন নিহত হয়েছেন। সাগর থেকে মালয়েশিয়াগামী ট্রলারটি উদ্ধার করে সেন্টমার্টিনের উপকূলে নিয়ে আসা হয়েছে। কোস্টগার্ড ও নৌবাহিনী যৌথভাবে তাদের উদ্ধার করে। উদ্ধারকৃত ট্রলারে ৩০৩ জন যাত্রীর মধ্যে ৫টি লাশ ও ৪০ জন গুলিবিদ্ধ ছিল। সন্ধ্যায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সেন্টমার্টিন জেটিঘাটে উদ্ধারকৃত থাইল্যান্ডের মালিকানাধীন ওই ট্রলার থেকে হতাহতদের স্থানীয় হাসপাতালে নেয়ার প্রস্তুতি চলছিল। এ ঘটনায় মালয়েশিয়া, মিয়ানমার ও থাইল্যান্ডের তিনজন নাবিককে আটক করেছে সেন্টমার্টিনের পুলিশ। বুধবার সেন্টমার্টিনের ছেড়াদ্বীপের কাছাকাছি বাংলাদেশের জলসীমানায় পূর্ব-দণি বঙ্গোপসাগরে বেলা ১১টার দিকে ওই গুলিবর্ষণের ঘটনা ঘটে। গুলিবর্ষণের শিকার থাইল্যান্ডের মালিকানাধীন ওই ট্রলার থেকে নংসিংদীর মিথুন মোবাইলে বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, তাদের মালয়েশিয়া পাঠানোর জন্য মহেশখালী থেকে গত সোমবার রাতে ওই ট্রলারে তোলা হয়েছিল। কিন্তু তারা আরো যাত্রীর আশায় ট্রলারটি অপোয় রাখে। এই সময়ে তাদের ঠিক মতো খাবার ও পানীয় দেয়া হয়নি। এ নিয়ে বুধবার সকালে ট্রলার ক্রুদের সাথে মালয়েশিয়াগামী যাত্রীদের বিরোধ শুরু হয়। সংঘর্ষ লেগে যায়। ওই সময় সাগরে অবস্থানরত চারটি জাহাজ মালয়েশিয়াগামী ট্রলারটিকে ঘিরে এলোপাতাড়ি গুলিবর্ষণ করে। দুপুরে মালয়েশিয়াগামী মিঠুনের মোবাইল নম্বরে ০১৭৯৫৬৪৭০৬ ফোন করলে তিনি বলেন, ভাই, দুইটা জাহাজ দেখতে পাচ্ছি। জাহাজ দুটি আমাদের দিকে এগিয়ে আসছে।
ভাই, ২০ জন লোক গুলি খেয়ে পড়ে আছে। পাঁচজন মরে গেছে। বাকিরা চরম আতঙ্কে আছি।’
বেলা ১টা ২৫ মিনিটে ঘটনাস্থল থেকে কান্নাজড়িত কণ্ঠে মোবাইল ফোনে এভাবে কথাগুলো বলছিলেন আক্রান্ত ট্রলারের যাত্রী মিঠুন। মিঠুন বলেন, তিনিসহ যাত্রীরা সবাই অবৈধ পথে মালয়েশিয়ায় যাওয়ার চেষ্টা করছিলেন। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ট্রলারটি সেন্টমার্টিন দ্বীপ ছাড়িয়ে আরো ১০-১৫ কিলোমিটার দণি-পূর্বে গেলে কে বা কারা তাদের ল্য করে অনবরত গুলিবর্ষণ করে। এতে ঘটনাস্থলেই পাঁচজনের মৃত্যু হয়।
তিনি আরো বলেন, যারা গুলিবিদ্ধ হয়েছেন তারা যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছেন। কারো গুলি লেগেছে পেটে, কারো হাতে, বুকে কিংবা পায়ে। আর যাদের মাথায় গুলি লেগেছে তারা ইতোমধ্যেই মারা গেছেন। নিহতদের পরিচয় ও বিস্তারিত জানতে পারলেও আতঙ্কের কারণে কথা বলতে পারছিলেন না মিঠুন। শেষ খবরে মিঠুন আরো জানান, বাংলাদেশ নৌবাহিনীর উদ্ধারকারী জাহাজ ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে এবং বিকল হয়ে পড়া ট্রলারটি বেঁধে সেন্টমার্টিন দ্বীপের দিকে এগিয়ে নিয়ে আসছে।
টেকনাফ কোস্টগার্ড স্টেশন কমান্ডার লে. কাজী হারুন অর রশিদ জানান, ঘটনাস্থলে গিয়ে কোস্টগার্ডের কয়েকটি টিম তাদের উদ্ধার করে টেকনাফের দিকে রওনা দিয়েছেন। টেকনাফের জিয়াউর রহমান নামে এক মালয়েশিয়া যাত্রী জানান, মহেষখালী উপকূল থেকে গত সোমবার রাতে এটি মালয়েশিয়ার উদ্দেশে রওনা হয়। ট্রলারটি সেন্টমার্টিন এলাকায় পৌঁছে আরো কিছু যাত্রী উঠানোর কথা ছিল।
তিনি জানান, সেন্টমার্টিন থেকে প্রায় ১০ কিলোমিটার দূরে বঙ্গোপসাগরে ৩০০ যাত্রী নিয়ে ট্রলারটি নোঙর করা ছিল। হঠাৎ করে পাশে আরো একটি মালয়েশিয়াগামী ট্রলার এসে দাঁড়ায়। কিছু লোক এসে এই ট্রলারের লোকজনকে ছিনতাই করে তাদের ট্রলারে উঠাতে চায়। এতে ব্যর্থ হয়ে অপর ট্রলার থেকে আসা মানবপাচারকারীরা গুলি করে। এতে ঘটনাস্থলে ট্রলারের মাঝিসহ ৫ জন মারা যান।
তবে কতজন নিহত হয়েছেন তা জানাতে দায়িত্বশীলরা অপারগতা প্রকাশ করেন। মোবাইল ফোনে অপর এক যাত্রী জানান, এতে মালিক পরে চারজন রাখাইন মাঝি রয়েছে। যারা আরো অবৈধ যাত্রী বহনের জন্য ট্রলারটি নিয়ে সাগরে অপো করছিল। সেন্টমার্টিনের অদূরে মালয়েশিয়াগামী ট্রলারটি উদ্ধার করেছে কোস্টগার্ড। টেকনাফ কোস্টগার্ড স্টেশন কমান্ডার লে. কাজী হারুন অর রশিদ জানান, ঘটনাস্থলে গিয়ে কোস্টগার্ডের কয়েকটি টিম তাদের উদ্ধার করে সেন্টমার্টিনে নিয়ে এসেছে। তবে কতজন নিহত হয়েছে এবং কারা গুলি চালিয়েছে তা জানাতে অপারগতা প্রকাশ করেন তিনি।
এ দিকে উদ্ধারপ্রাপ্ত যাত্রীদের উদ্ধৃতি দিয়ে সেন্টমার্টিনের চেয়ারম্যান নুরুল আমিন জানান, প্রায় ১৫ দিন আগে ওই জাহাজে যাত্রীদের ওঠানো হয়েছিল এবং আরো যাত্রী সংগ্রহের জন্য জাহাজটি দিনের পর দিন অপেক্ষা করতে থাকে। এতে অপেক্ষমাণ যাত্রীদের ধৈর্যচ্যুতি ঘটে এবং সংক্ষুব্ধ হয়ে ক্রু-যাত্রী সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। একপর্যায়ে ক্রুরা যাত্রীদের গুলিবর্ষণ করে। একপর্যায়ে ক্রুরা সাগরে ঝাঁপ দিয়ে সেখানে অপেক্ষমাণ মালয়েশিয়াগামী অন্য জাহাজে উঠে যায়। পরে ওই তিনটি জাহাজ থেকে এই জাহাজের যাত্রীদের লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করে ক্রুরা।
সেন্টমার্টিন ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আবদুর রহমান জানান, আহত ২৩ জন মুমূর্ষু যাত্রীকে টেকনাফ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
এ দিকে নিহত পাঁচজনের মধ্যে চারজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। তারা হচ্ছেনÑ সাইফুল (২৩) বগুড়া; রুবেল (২২) যশোর; সেলিম (২২), পিতা রফিক (যশোর) ও মনির হোসেন (২৪) সিরাজগঞ্জ। তিনজন ক্রু আটক রয়েছে। তাদের দুইজন থাইল্যান্ডের। তারা হচ্ছেনÑ ধেন ও মাও। আরেকজন মিয়ানমারের। তার পরিচয় পাওয়া যায়নি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ