• শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৪০ পূর্বাহ্ন |

রেলওয়ে সড়কপথ ও বিমানঘাঁটি নির্মাণের পরিকল্পনা

bimanঢাকা : চীন তার অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ত্বরান্বিত করতে বেশ কিছু নতুন পদক্ষেপের কথা ঘোষণা করেছে। বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতি হিসেবে চীনের অর্থনীতির শ্লথগতি চীনসহ সারা বিশ্বেই তার প্রভাব ফেলে। আর তাই তার এ ঘোষণা সর্বত্র দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে।
নতুন পদক্ষেপের মধ্যে রয়েছে ইয়াংসি নদীর তীর বরাবর নতুন রেলওয়ে, সড়কপথ ও বিমানঘাঁটি নির্মাণের পরিকল্পনা। এ পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হলে সাংহাইয়ের সঙ্গে দেশটির অপেক্ষাকৃত কম উন্নত এলাকার সংযোগ ঘটবে এবং এলাকার অর্থনৈতিক উন্নয়ন তথা প্রবৃদ্ধি অর্জনে বড় ধরনের অবদান রাখতে সক্ষম হবে।
অন্যদিকে আর্থিক ক্ষেত্রে এরই মধ্যে চীনের কেন্দ্রীয় ব্যাংক সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে দেশটির অর্থনীতির শ্লথগতিতে শঙ্কিত হয়ে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক আরো বলেছে, সে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে প্রণোদনামূলক উৎসাহ জোগাবে; যাতে রফতানিকারকরা বেশি করে রফতানি করতে পারেন।
চীনের অর্থনীতি যেখানে গত অর্থবছরের শেষ প্রান্তিকেও ৭ দশমিক ৭ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছিল, সেখানে বর্তমান অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকে অর্জন করেছে ৭ দশমিক ৪ শতাংশ। অক্টোবর-ডিসেম্বর প্রান্তিকের পর জানুয়ারি-মার্চ প্রান্তিকের প্রবৃদ্ধির এই শ্লথগতি চীনসহ সারা দুনিয়াকেই শঙ্কিত করে তুলেছে।
বেশ কয়েক বছরের বিশাল অর্থনৈতিক সম্প্রসারণের পর সাম্প্রতিক বছরগুলোতে চীনের অর্থনৈতিক সম্প্রসারণ শ্লথ হয়ে পড়েছে। এর প্রধান কারণ চীনের যে মূল বাজার সেখানকার চাহিদার হ্রাস।
চীন এ পরিস্থিতিতে তার প্রবৃদ্ধির উচ্চমাত্রা টেকসই রাখতে এবং অর্থনীতির ভারসাম্য ফিরিয়ে আনতে অভ্যন্তরীণ ভোগ বাড়ানোর দিকে নজর দেয়।  কিন্তু এতে করে শঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে যে, চীন তার রফতানিভিত্তিক প্রবৃদ্ধি মডেল থেকে সরে আসায় প্রবৃদ্ধি আরো হ্রাস পেতে পারে। এ মাসের প্রথম দিকে প্রকাশিত উপাত্তে দেখা যায়, মে মাসে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় চীনের আমদানি হ্রাস পেয়েছে ১ দশমিক ৬ শতাংশ। এতে করে শঙ্কা দেখা দিয়েছে যে, নীতিনির্ধারকরা অভ্যন্তরীণ চাহিদা বাড়িয়ে প্রবৃদ্ধি ত্বরান্বিত করার যে আশা করেছিলেন তা সম্ভবত কাজে লাগছে না।
একই সঙ্গে সাম্প্রতিক মাসগুলোতে চীনের রফতানিও চাপের মুখে পড়েছে। যদিও মে মাসে ৭ শতাংশ বৃদ্ধি ঘটেছে। কিন্তু এপ্রিলে তা ছিল মাত্র শূন্য দশমিক ৯ শতাংশ এবং ফেব্রুয়ারি ও মার্চে রফতানি বড় ধরনের ঘাটতির মুখে পড়ে।
বুধবার তাই স্টেট কাউন্সিল বলে, ইয়াংসি নদী বরাবর বহু-ধাপ পরিবহনব্যবস্থা নির্মাণের সিদ্ধান্ত এই অপেক্ষাকৃত কম উন্নত এলাকায় নতুন অর্থনৈতিক বেল্ট সৃষ্টিতে সহায়ক হবে।
এ নদীর দুই তীর বরাবর ১১টি প্রদেশ ও মিউনিসিপ্যালিটি রয়েছে। আর এ অঞ্চল চীনের মোট জিডিপির ৪১ শতাংশের ভাগিদার।  এ ছাড়া সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে চীন তার প্রবৃদ্ধি ত্বরান্বিত করতে বিভিন্ন পদক্ষেপের ঘোষণা দিয়েছে।
বলা হয়েছে, সরকার দুই হাজার ৪৬০ কোটি ডলারের বন্ড বিক্রি করবে রেলওয়ে খাতে বাড়তি বিনিয়োগের জন্য। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, শিগগিরই ব্যাংকগুলোর জন্য রিজার্ভ রিকয়ার্ড রেশিও বা আরআরআর কমানো হবে, যাতে তারা আরো বেশি করে কৃষিভিত্তিক ও ক্ষুদ্র আকারের শিল্প ও ব্যবসায় বেশি করে ধার দিতে পারে। সূত্র : বিবিসি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ