• শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ১২:৫৩ পূর্বাহ্ন |

সরকারের ক্ষমতায় টিকে থাকার একমাত্র গ্যারান্টি হলো মরনাস্ত্র ও সন্ত্রাস

Rijviঢাকা: ‘সরকারের ক্ষমতায় টিকে থাকার একমাত্র গ্যারান্টি হলো মরনাস্ত্র ও সন্ত্রাস’ এমন মন্তব্য করে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, “বিএনপির ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তায় সরকার তাল হারিয়ে ফেলছে। আর এই কারণে ক্রোধে অস্থির ও উন্মত্ত সরকার কাণ্ডজ্ঞান হারিয়ে ফেলে প্রতিদিন হাত রক্তে ডুবিয়ে রাখছে। বিএনপির বিরুদ্ধে আক্রমণ করছে।”

শুক্রবার সকালে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে রিজভী এসব কথা বলেন।

রিজভী বলেন, “আওয়ামী নেতারা সারাদেশে মরণঘাতি বর্বরতম পরিকল্পনায় এক ভৌতিক পরিবেশ সৃষ্টি করে এটাকে শান্তি বলে আত্মশ্লাঘা বোধ করছেন। জনগণের কোনো আর্তনাদ, হাহাকারে তারা বিচলিত হয় না। হত্যা, গুম, খুন, অপহরণের মাধ্যমে ক্ষমতায় থাকার আকাঙ্খার পারদ তাদের দিন দিন বেড়েই চলেছে। তাই তারা বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের রক্তে দেশকে কসাইখানা বানিয়ে ক্ষমতার আনন্দে দিশেহারা হয়ে গেছে।”

তিনি বলেন, “জনসমর্থনহীন, ভোটারবিহীন এক হাসি-তামাশার নির্বাচনে ক্ষমতা আঁকড়ে রেখে তারা এখন দেশবাসীকে বাণী শোনাচ্ছেন। মারনাস্ত্র ও সন্ত্রাসই হচ্ছে তাদের টিকে থাকার একমাত্র গ্যারান্টি।”

রিজভী অভিযোগ করে বলেন, “বৃহস্পতিবার ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলা যুবদল নেতা মোহাম্মদ শাকিলকে জিআরপি পুলিশ গ্রেফতারের পর যুবলীগ-ছাত্রলীগের চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের হাতে তুলে দেয়া হলে সন্ত্রাসীরা শাকিলকে নির্মমভাবে পিটিয়ে ও কুপিয়ে হত্যা করে। এ ঘটনায় যুবদলের আরেক নেতা কবিরকে গুরুতর আহত করা হয়। পাশাপাশি দিনাজপুর জেলার ঘোড়াঘাট উপজেলার সদ্য নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান শামীম চৌধুরীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।”

‘বিএনপি’র বিরুদ্ধে আক্রমণ চলছে’ এমন মন্তব্য করে রিজভী বলেন, “রক্ত ঝরিয়ে কবরের নিস্তব্ধতায় এই বর্তমান ফ্যাসিস্টরা ক্ষমতা ধরে রাখতে চাচ্ছে। কারণ এতকিছু নগ্ন স্বৈরতন্ত্রের বহি:প্রকাশ ঘটিয়েও বিএনপি’র ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তায় সরকার তাল হারিয়ে ফেলছে। আর এই কারণে ক্রোধে অস্থির ও উন্মত্ত্ব সরকার কান্ডজ্ঞান হারিয়ে ফেলে প্রতিদিন হাত রক্তে ডুবিয়ে রাখছে।”

নিজেদের অন্যায়, অনাচার, দুর্নীতিতে রুচিবিকৃত হয়েছে বলেই ক্ষমতাসীনরা দেশে কোনো সংকট দেখতে পাচ্ছে না বলেও মন্তব্য করেন রিজভী।

তিনি হুঁশিয়ারী উচ্চারণ করে বলেন, “ইর্ষা ও স্বার্থপরতায় দিশেহারা এই অবৈধ সরকার যদি গণতন্ত্রের পথে না হাঁটেন, যদি মানুষের ভোটাধিকার ফিরিয়ে না দেন তাহলে এই স্বেচ্ছাচারী অপশাসনের অন্ধকুপ থেকে দেশবাসীকে বের করে আনতে জনগণের দু:সাহসী আন্দোলনই একমাত্র উপায়। সংঘবদ্ধ ও উত্তাল আন্দোলনের মাধ্যমেই এই দু:শাসনের ভারি পাথরকে চূর্ণবিচুর্ণ করে নবউদ্যোমে জনগণের হারানো গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠাই এই মুহূর্তে অত্যন্ত জরুরি।”

সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন বিএনপির অর্থনৈতিক বিষয়ক সম্পাদক আবদুস সালাম, সহ-দফতর সম্পাদক আবদুল লতিফ জনি, সহ-তথ্য ও গবেষনা বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব প্রমুখ।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ