• শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৪৩ পূর্বাহ্ন |

অর্থনৈতিক জোন পাঁচ স্পটে

kঅর্থ-বাণিজ্য ডেস্ক: বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা) প্রতিষ্ঠার প্রায় চার বছরের মধ্যেই দেশের বেশ কয়েকটি অঞ্চলকে ইকোনমিঙ্ জোনের জন্য চিহ্নিত করেছে প্রতিষ্ঠানটি। ইতিমধ্যে অন্তত চারটি জেলার পাঁচটি স্পটে জমি অধিগ্রহণের কাজ শুরু করেছে বেজা। আরও চারটি জেলায় প্রাথমিকভাবে স্থান নির্বাচন করা হয়েছে। সরকারি উদ্যোগের পাশাপাশি বেসরকারিভাবে ইকোনমিঙ্ জোন তৈরি করার জন্য পলিসি নির্ধারণে কাজ করছে বেজা নির্বাহী কমিটি ও বোর্ড। বেজা সূত্রে জানা গেছে এসব তথ্য। দেশের অনগ্রসর ও পশ্চাৎপদ এলাকাসহ সম্ভাবনাময় এলাকাগুলোকে দ্রুত অর্থনৈতিক উন্নয়ন, তথা শিল্পায়ন, কর্মসংস্থান, উৎপাদন এবং রপ্তানি বৃদ্ধি ও বহুমুখীকরণে উৎসাহ প্রদানের লক্ষ্যে বিগত মহাজোট সরকারের সময় ২০১০ সালের ১ আগস্ট গঠন করা হয় বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল আইন ২০১০। এই আইনের আওতায় গঠন হয় বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা)। প্রতিষ্ঠানটি গঠনের পর থেকেই কাজ শুরু করে দেশের ৬৪টি জেলায়। প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলতে জমি নির্বাচনে প্রাথমিক তথ্য চেয়ে জেলা প্রশাসকদেরকে চিঠি দেওয়া হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, জেলা প্রশাসকদের কাছ থেকে প্রাথমিক তথ্য সংগ্রহ করার পর অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার জন্য ওই জমি কতটা উপযোগী, অবকাঠামোগত বিশেষ করে রাস্তাঘাট, বিদ্যুৎ, গ্যাসসহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা কী রকম আছে তা যাচাই-বাচাই করা হয়। জমিটি অর্থনৈতিক অঞ্চলের জন্য উপযোগী হলে তবেই প্রাথমিকভাবে নির্বাচন কমিটির কাছে উপস্থাপন করা হয়। এভাবেই ধাপে ধাপে অগ্রসর হতে থাকে পরবর্তী কার্যক্রম। চূড়ান্ত পর্যায়ে বেজা গভর্নিং বোর্ডের সভায় নীতিগতভাবে স্থান নির্বাচন চূড়ান্ত করা হয়। সূত্র জানায়, ইতিমধ্যে চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে ছয় হাজার ৬১৫ একর, আনোয়ারার গহিরায় ৬১১ একর, মৌলীবাজারের শেরপুরে ৩৫২ একর, সিরাজগঞ্জের বঙ্গবন্ধু সেতু সংলগ্ন এলাকায় এক হাজার ৪১ একর এবং বাগেরহাটের মংলায় ২০৫ একর জমি চূড়ান্তভাবে নির্বাচন করা হয়েছে। এই পাঁচটি স্পটের ব্যাপারে গভর্নিং বোর্ড নীতিগত অনুমোদন দেয় ২০১২ সালের ১৮ এপ্রিল। মিরসরাই, আনোয়ারার গহিরা এবং মৌলভীবাজারের শেরপুরে অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য এক্সপ্রেশন অব ইন্টারেস্ট (ইওআই) আহ্বান করলে ২২টি প্রস্তাব জমা পরে। এর মধ্যে ছয়টি প্রতিষ্ঠানকে সংক্ষিপ্ত তালিকাভুক্ত করে প্রস্তাব পাঠানোর অনুরোধপত্র দেওয়া হলে চারটি প্রতিষ্ঠান প্রস্তাব দাখিল করে। পরবর্তীতে ওই চারটি প্রস্তাব মূল্যায়নের পর জাপান ডেভেলপমেন্ট ইনস্টিটিউট ইন জয়েন্টভেঞ্চার ম্যাঙ্ওয়াল স্টাম্প লিমিটেড (বিডি) এবং শেলটেক প্রাইভেট লিমিটেডের সঙ্গে গত বছরের ৩০ জুন সম্ভাব্যতা যাচাইরে লক্ষ্যে চুক্তি সম্পাদন হয়। বর্তমানে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের কাজ চলছে। এ ছাড়া সিরাজগঞ্জে সরকারি ও ব্যক্তিমালিকানাধীন জমি অধিগ্রহণের জন্য যৌথ তদন্ত অনুষ্ঠিত হয়। ইতিমধ্যে সিরাজগঞ্জে জমি অধিগ্রহণের কাজ শুরু হয়েছে। আর মংলা অর্থনৈতিক অঞ্চলের জন্য ডেভেলপার নিয়োগের প্রস্তাব আহ্বান করা হলে দুটি প্রস্তাবও পাওয়া যায়। এর বাইরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে ৩২৮ একর, নীলফামারীর সদর উপজেলায় ১০৭ একর, নোয়াখালীর সুবর্ণচরে ৩৫০ একর এবং মানিকগঞ্জের পুরাতন আরিচা ফেরিঘাট এলাকায় ৩০০ একর জমিতে অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ গঠনের জন্য জেলা প্রশাসকদের প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে নির্বাচন কমিটি প্রাথমিকভাবে জমি নির্বাচন করেছে। এ ছাড়া বেসরকারিভাবে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ার বাউশিয়ায় বিজিএমইএ কর্তৃক গার্মেন্টস শিল্প পার্ক স্থাপনের জন্য ৫০৫ একর এবং নরসিংদীর পলাশে শীতলক্ষ্যা নদীর তীর এলাকায় এ কে খান অ্যান্ড কোম্পানি লিমিটেড কর্তৃক নিজস্ব ২০০ একর জমিতে অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার জন্য প্রাথমিকভাবে স্থান নির্বাচন করা হয়েছে। এ দুটি প্রস্তাব গভর্নিং বোর্ডের পরবর্তী সভায় উপস্থাপন করা হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ