• বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৩৭ পূর্বাহ্ন |

কাজ না পেয়ে ক্ষুব্ধ এরশাদ

Arsad-5সিসিনিউজ: সরকারের ওপর বেজায় ক্ষেপেছেন প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। বিশেষ দূতের পদ পাওয়ার প্রায় ছয় মাস পার হতে চললেও এ সংক্রান্ত কোনো কাজ না পেয়ে তিনি ক্ষুব্ধ ও বিরক্ত। তাই অগত্যা নিজের অবস্থান জানান দিতে তিনি একের পর এক দলীয় কর্মসূচিতে যোগ দিচ্ছেন।
প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত হিসেবে কী করছেন_ জানতে চাইলে এইচএম এরশাদ যায়যায়দিনকে বলেন, তিনি কয়েক দেশের ভিসার জন্য আবেদন করেছেন। কিন্তু ভিসা না পেলে কিভাবে যাবেন। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে চীন সফরেও যাওয়ার কথা ছিল, কিন্তু কোন অদৃশ্য কারণে তা হয়নি, কেন হয়নি তিনি সেটা জানেন না। তিনি নিজে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যাওয়ার পরেও মন্ত্রণালয় যদি কোনো উদ্যোগ না নেয়, তাহলে তার কি করার রয়েছে বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি। এখন কুয়েতের ভিসার জন্য অপেক্ষা করছেন উল্লেখ করে সাবেক এ রাষ্ট্রপতি বলেন, দেখা যাক কি হয়।
সূত্র জানায়, বহু নাটকীয়তার পর ৫ জানুয়ারির একতরফা নির্বাচনে সরকারের নির্বাচন সঙ্গী হয় এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টি। পরে এরশাদের স্ত্রী রওশনকে করা হয় বিরোধীদলীয় নেতা। আর কৃতজ্ঞতার পুরস্কার স্বরূপ সাবেক রাষ্ট্রপতিকে দেয়া হয় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূতের পদ। কিন্তু গত ছয় মাসে এপদ সংশ্লিষ্ট কোনো কাজই করতে পারেননি এরশাদ। যেতে পারেননি দেশের গ-ি পেরিয়ে বিদেশের কোনো অনুষ্ঠানে। এতদিন ব্যাপারটি নিয়ে দলের নেতাকর্মীদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষের মাঝে কৌতুহল ছিল_ বিশেষ দূত হিসেবে কী দায়িত্ব পালন করেছেন এরশাদ? কিন্তু এবার খোদ এরশাদের মনেই ক্ষোভ জেগেছে তাকে নিয়ে সরকারের আচরণে। কারণ এতদিনেও সরকারের তরফ থেকে তাকে কোনো দেশে পাঠানো হয়নি। যদিও এরই মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অর্থনৈতিক শক্তিধর দুই দেশ জাপান ও চীন সফর করে এসেছেন। শুধু তাই নয়, সরকারের একাধিক মন্ত্রী, এমপি ও প্রতিনিধি দল ইতোমধ্যেই বিশ্বের বিভিন্ন দেশ সফর করেছেন। এখনো যুক্তরাষ্ট্র সফরে রয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এবং বন ও পরিবেশ মন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু।
জাপার একাধিক সূত্র জানায়, ১২ জানুয়ারি শপথ নেয়ার পর এরশাদকে যখন প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূতের পদ দিয়ে পুরস্কৃত করা হয় তখন দলের নেতাকর্মীরা মিশ্র প্রতিক্রিয়া জানান। কেউ বলেন, এরশাদ লোভী। তাই রাষ্ট্রপতি থেকে প্রতিমন্ত্রী মর্যাদার প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত হয়েছেন। কেউ বলেছেন, যে এরশাদ সবচেয়ে বেশি সময় ধরে সেনাপ্রধান ও একটানা নয় বছর দোর্দ- প্রতাপশালী রাষ্ট্রপতি ছিলেন, সেই এরশাদ কিভাবে মন্ত্রী মর্যাদার একটি পদ পেয়ে সন্তুষ্ট? নেতাকর্মীদের এসব তীর্যক আলোচনা-সমালোচনার পর এরশাদ জানান কেন তিনি বিশেষ দূতের পদ পেয়ে সন্তুষ্ট। এপদ নিয়ে তার পরিকল্পনার কথাও জানান। বলেন, সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে তার সুসম্পর্ক রয়েছে। এই ঘনিষ্ঠতা কাজে লাগিয়ে ওইসব দেশে জনশক্তি রপ্তানিসহ দুই দেশের সম্পর্ক আরো জোরদার করবেন। সেজন্য গত ১২ মার্চ তিনি হঠাৎ একদিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যান। কথা বলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর সঙ্গে। এ সময় তার দায়িত্ব কী তা জানতে চান। মধ্যপ্রাচ্যে জনশক্তি রপ্তানির বিষয়েও দু’জনে কথা বলেন। ওইদিন দুপুরে এরশাদ সংসদ ভবনে তার নতুন অফিস পরিদর্শন করেন। এ সময় কিছুক্ষণ তিনি সেখানে অবস্থানও করেন। কয়েকদিন পর এরশাদ তার নিজের বাসায় মধ্যপ্রাচ্যের সব রাষ্ট্রদূতের সম্মানে একটি নৈশভোজেরও আয়োজন করেন। সর্বশেষ গত এপ্রিল মাসে সৌদি আরব, কুয়েত এবং চীন সফরের জন্য আবেদনও করেন। এছাড়া শ্রমবাজারে আধিপত্য বিস্তারের লক্ষ্যে পর্যায়ক্রমে তিনি আরব আমিরাত, কাতার, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, জাপানসহ এশিয়া, ইউরোপ ও আমেরিকার ধনী রাষ্ট্রের সঙ্গে বাংলাদেশের বাণিজ্যিক সম্পর্কের উন্নতি করার প্রচেষ্টা চালান। বিশেষ করে যেসব দেশের সঙ্গে বাংলাদেশের কূটনৈতিক, বাণিজ্যিক ও ম্যানপাওয়ার বিষয়ে সঙ্কট সৃষ্টি হয়েছে বা সম্পর্কের ঘাটতি রয়েছে সেসব দেশের সঙ্গে তিনি ব্যক্তিগত সম্পর্কের মাধ্যমে সম্পর্কোন্নয়ন ঘটাতে চেয়েছেন। কিন্তু এরশাদ যেসব দেশে যেতে আবেদন করেছেন সেসব দেশ থেকে এখনো তার বিদেশ যাওয়ার আমন্ত্রণ আসেনি। আর অপর দেশগুলোর ব্যাপারে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কোনো উদ্যোগই গ্রহণ করেনি।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত এইচএম এরশাদ সংসদ ভবনে একটি অত্যাধুনিক অফিসসহ সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছেন ঠিকই, কিন্তু তার কাজ কি এ নিয়ে এতদিনেও তাকে সরকারের তরফ থেকে সুস্পষ্ট কোনো নির্দেশনা দেয়া হয়নি। এ নিয়ে সরকারের আচরণে এরশাদ খুবই মর্মাহত। তিনি বিভিন্ন সভা সমাবেশে সরকারের ওপর ক্ষোভ ঝাড়ছেন। বিরোধিতা করছেন সরকারের বিভিন্ন কর্মকা-ের। সর্বশেষ গত সপ্তাহে লালমনিরহাটে দলীয় এক কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে তিনি বলেন, ‘তিনি নির্বাচন করেননি। তার নাম লালমনিরহাটের পাটগ্রাম আর রংপুরে এসেছে। ভোট করতে রাজি না হওয়ায় তাকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে, এরপর সব যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। নির্বাচন হলো, জাতীয় পার্টি কিছু আসন পেল।’ তিনি আরো বলেন, দেশের মানুষ এখন শান্তিতে নেই, তারা শান্তিতে কোনো কাজ করতে বা ঘুমাতে পারেন না। এখন ঘরে থাকলে মানুষ খুন হয় আর বাইরে গেলে গুম হয়। বর্তমান সরকারকে দেশের মানুষ চায় না উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রীর এ বিশেষ দূত বলেন, দেশি বা বিদেশিরা নতুনভাবে দেশে কোনো কাজে বা ব্যবসায় অর্থলগি্ন করতে চায় না। দেশের ব্যাংকে দেদার লুট হচ্ছে। অথচ সরকার কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না।
এদিকে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূতের কাজ না থাকায় এরশাদ তার অবস্থান ও ব্যস্ততার জানান দিতে এখন একের পর এক দলীয় কর্মসূচিতে যোগ দিয়ে দেশময় ঘুরে বেড়াচ্ছেন। গত দেড় মাসে তিনি দলের ৬টি কর্মসূচিতে গেছেন। তবে সবগুলোই ছিল জাতীয় পার্টির দুর্গ বলে পরিচিত রংপুর, লালমনিরহাট ও কুড়িগ্রাম জেলায়। একইভাবে চলতি মাসের শেষ সপ্তাহে তিনি রাজশাহী সফরে যাবেন। এছাড়া এ মাসের শেষ দিকে কমপক্ষে ৬টি কর্মসূচিতে এরশাদের প্রধান অতিথি থাকার কথা রয়েছে বলে জাপার দপ্তর সূত্রে জানা গেছে।
এ ব্যাপারে জাপা মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু বলেন, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূতের প্রকৃত কাজ এখনো শুরু করতে পারেননি স্যার (এরশাদ)। তবে জাপা চেয়ারম্যানকে কাজে লাগাতে পারলে মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশ আবারো শ্রমবাজার দখল করতে সক্ষম হবে।

উৎসঃ   যায়যায়দিন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ