• সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ১১:০৬ পূর্বাহ্ন |

জলঢাকায় কাবিখার গম ভাগ বাটোয়ারা

Durnitiনীলফামারী প্রতিনিধি: জলঢাকায় কাজের বিনিময়ে খাদ্য প্রকল্প (কাবিখা) বরাদ্দের ২৪০ মেট্রিক টন কাজ না করেই প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাসহ সরকার দলীয় নেতাকর্মীদের মাঝে ভাগবাটোয়ারা করে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে।
উপজেলা বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় সুত্র জানায়, ২০১৩-১৪ অর্থ বছরের কর্মসূচীতে গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষনাবেক্ষণসহ বিভিন্ন সংস্কার প্রকল্পের নামে ২৪০ মেট্রিকটন গম ২৬টি প্রকল্পের জন্য স্থানীয় সাংসদ কর্তৃক বরাদ্দ দেয়া হয়। ১১টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় ৯টন করে প্রকল্প প্রতি বরাদ্দ দেওয়া হয়।
সরেজমিনে দেখা গেছে, কোথাও ৪০ দিনের কর্মসুচীর লোক দিয়ে মাটি ভরাট করে প্রকল্পের পুরো টাকা পিআইওসহ প্রকল্প সভাপতি আত্মসাত করেছেন। উপজেলার কৈমারী আহলে হাদিস জামে মসজিদের মাঠ ভরাট ও সংস্কার প্রকল্পে বরাদ্দ দেয়া হয় ৯মেট্রিক টন গম। মসজিদের মুয়াজ্জিন আব্দুল কাদের জানান, ৯ মেট্রিক টন গম মসজিদে বরাদ্দ দিলেও মাত্র ২৬ ট্রলি বালু এখানে ফেলা হয়েছে। প্রকল্পের সভাপতি শরিফুল ইসলাম বলেন, এমপি সাহেবের আস্থাভাজন ডিও ব্যবসায়ী হেদায়েতুল ইসলাম (হেদ্দা) ২টন গম তোলার জন্য আমার কাছে একটি কাগজে সই নেন এবং আমাকে ১০হাজার টাকা দেয় পরে শুনি আমার প্রকল্পের বরাদ্দের সব গম তোলা শেষ।’ ডাকালীগঞ্জ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের অধ্যক্ষ ও প্রকল্প সভাপতি ওয়াহিদুজ্জামান রুবেল বলেন, এখানে ৯ মেট্রিক টন গমের প্রকল্প দেয়া হয়েছে প্রকল্পের সভাপতি আমি নামে মাত্র। মুলত প্রতিষ্ঠানটির সভাপতি ইয়াকুব আলী আমাকে যা দিয়েছেন তাই দিয়ে টুকিটাকি কাজ করেছি এছাড়া পিআইওকে টন প্রতি ২হাজার টাকা দিতে হয়েছে বলে জানান তিনি’।
এদিকে ডাউয়াবাড়ী ইউনিয়নের নেকবক্ত উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠ ভরাট ও সংস্কার প্রকল্পে ৯ মেট্রিক টন গম বরাদ্দ দেওয়া হয়। বিদ্যালয় সংলগ্ন দোকানদার গোলাম মোস্তফা ও খায়রুল আলম বলেন, ‘প্রকল্পের সভাপতি অত্র ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের ছোট ভাই হওয়ায় ৪০দিনের কর্মসুচীর শ্রমিক দিয়ে কিছু বালু কয়েকদিন আগে মাঠে ফেলেছেন।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন (পিআইও) অফিস সুত্র জানায়, ‘২০১৩-১৪ অর্থ বছরের গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার(কাবিখা) ১ম পর্যায় কর্মসূচীর আওতায় সংসদ সদস্য নীলফামারী-৩ জলঢাকা উপজেলার অনুকুলে ২৬টি প্রকল্পের বিপরীতে ২৪০ মেট্রিক টন গম বরাদ্দ দেওয়া হয়।
এবিষয়ে জলঢাকা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা(পিআইও) মজিবর রহমান নিজের দোষ এড়িয়ে গিয়ে বলেন,‘ এমপির বরাদ্দকৃত কাবিখা প্রকল্পের বিপরীতে ২৪০ মেট্রিক টন গম যেসব প্রকল্পে দেওয়া হয়েছে সেসব প্রকল্পের সভাপতি সবাই সরকার দলীয় নেতাকর্মী।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হাসান হাবিব বলেন, ‘প্রকল্পগুলোর কাজ শতভাগ নিশ্চিত করে আমি বিল প্রদান করব। তিনি আরও বলেন, ‘দুর্নীতি করলে কোন রেহাই নেই।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ