• মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:৪১ অপরাহ্ন |

জামায়াতের বিদেশ মিশন

Jamatসিসিনিউজ: টানা দ্বিতীয় মেয়াদে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ঐকমত্যের সরকার ক্ষমতায় আসার পর অস্তিত্ব রক্ষায় নতুন করে বিদেশ মিশনে নেমেছে জামায়াতে ইসলামী। দলটির সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল ও মানবতাবিরোধী অপরাধে বিচারাধীন দলের শীর্ষ নেতাদের প্রধান আইনজীবী ব্যারিস্টার আবদুর রাজ্জাকই এ মিশনে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। আর এরই অংশ হিসেবে তিনি এবং দলের আরো কয়েক নেতা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও সৌদি আরবসহ বিভিন্ন দেশের জামায়াতকে পৃষ্টপোষকতা দেন এমন নেতা কর্মকর্তাদের সঙ্গে ধারাবাহিকভাবে বৈঠক চালিয়ে যাচ্ছেন। এসব বৈঠকে যুদ্ধাপরাধের বিচারকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করাসহ নানা ইস্যু স্থান পাচ্ছে। অন্যদিকে জামায়াতে ইসলামীর সদস্যরা অবৈধভাবে সীমান্ত পার হচ্ছে এমন খবরে ভারতের রাজনীতিতে এক ধরনের অস্বস্তি দেখা দিয়েছে। কূটনৈতিক ও বেশ কটি সূত্রে এ তথ্য পাওয়া গেছে।
অভিযোগ রয়েছে, ব্যারিস্টার আবদুর রাজ্জাক দেশি-বিদেশি মানবাধিকার সংগঠনের কর্তা ব্যক্তি, কূটনীতিক ও দেশ দুটির প্রভাবশালী সরকারি-বেসরকারি লোকদের সঙ্গেও দেখা করছেন। তিনি বাংলাদেশের চলমান সংকট বিশেষ করে জামায়াতের শীর্ষ নেতাদের বিচার, সারাদেশে বহু নেতাকর্মী আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর গুলিতে নিহত ও মামলা-হামলার পরিসংখ্যান এবং মানবাধিকার লঙ্ঘনের চিত্র ভিডিও ফুটেজসহ লিখিতভাবে তুলে ধরছেন।
দায়িত্বশীল এক সূত্র জানায়, বর্তমানে লন্ডনে অবস্থান করা ব্যারিস্টার রাজ্জাক সহসাই দেশে ফিরছেন না। আর তিনি কবে দেশে ফিরবেন কিংবা ফিরবেন কিনা এ নিয়ে তার পরিবার, আইনজীবী সহকর্মী ও জামায়াত নেতারাও মুখ খুলছেন না। জামায়াতের অন্যতম সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আবদুল কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় কার্যকরের ৬ দিনের মাথায় গত ১৭ ডিসেম্বর ঢাকা ত্যাগ করেন তিনি। প্রথমে রাজ্জাক মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করেন। এর পর যুক্তরাজ্যে যান। সম্প্রতি সৌদি আরবে গিয়ে ওমরা পালন শেষে আবার লন্ডন চলে যান।
সূত্র বলছে, রাজ্জাক দেশে না ফেরায় আসন্ন রোজার আগেই ছাত্র শিবিরসহ জামায়াতের অঙ্গসংগঠনগুলো চূড়ান্ত আন্দোলন শুরু করবে কিনা তা নিয়ে দ্বিধাবিভক্ত রয়েছে। ঢাকায় থাকা দলের নেতাদের গ্রিন সিগন্যালের অপেক্ষায় রয়েছে নেতাকর্মীরা।
কূটনৈতিক সূত্র জানায়, মূলত ব্যারিস্টার রাজ্জাকের নেতৃত্বে একটি শক্তিশালী উইং দেশ-বিদেশে কাজ করছে। এ উইংয়ে ছাত্রশিবিরের অর্ধশতাধিক সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা রয়েছেন। যাদের অধিকাংশই আইনজীবী ও ডাক্তার। এছাড়া জামায়াতের পক্ষে ব্যারিস্টার রাজ্জাকের সঙ্গে রয়েছেন আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ মামলা পরিচালনায় বিশেষজ্ঞ মার্কিন আইনজীবী টবি ক্যাডম্যান।
ব্যারিস্টার রাজ্জাকের ঘনিষ্ঠ সূত্র জানায়, যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানকালে ব্যারিস্টার রাজ্জাক মিডিয়াকে এড়িয়ে সেখানে অবস্থানরত দলীয় নেতাদের নিয়ে নিয়মিত বৈঠক করছেন। কখনো বা সেমিনার সিম্পোজিয়ামেও যোগ দিচ্ছেন। এসব সেমিনার ও সিম্পোজিয়ামের আয়োজন করছেন জামায়াতপন্থি প্রবাসী পেশাজীবীরা।
এছাড়া যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যে অবস্থানকালে ব্যারিস্টার রাজ্জাক শীর্ষ নেতাদের বিচারাধীন মামলা ও জামায়াতের নিবন্ধন ফিরে পেতে জামায়াত সমর্থিত প্রভাবশালী ব্যক্তি, সামাজিক সংগঠন ও মানবাধিকার সংস্থার সঙ্গে বৈঠকে মিলিত হচ্ছেন। মামলার আইনি দিকগুলো খতিয়ে দেখার পাশাপাশি সেখানকার বিজ্ঞ আইনজীবীদের পরামর্শও নিচ্ছেন তিনি। জামায়াত নিষিদ্ধ ঠেকাতে যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্রের সরকারি-বেসরকারি প্রভাবশালী মহলের সঙ্গে দেন দরবার করছেন।
শুধু যুক্তরাজ্য বা যুক্তরাষ্ট্র নয়, দেশ দুটিতে অবস্থান করে সৌদি আরব, তুরস্ক ও মালয়েশিয়ার মতো প্রভাবশালী মুসলিম দেশগুলোর উচ্চ পর্যায়ের লোকদের সঙ্গেও যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছেন তিনি। প্রবাসী জামায়াত নেতারা এ ব্যাপারে ব্যারিস্টার রাজ্জাককে সহযোগিতা করছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।
সূত্র বলছে, বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্যসহ অন্যান্য দেশের কূটনীতিকদের সঙ্গে যোগাযোগ করছেন জামায়াতের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ডা. সৈয়দ আব্দুল্লাহ মো. তাহেরের নেতৃত্বে ৩-৫ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল। তারা বিভিন্ন দূতাবাসের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন এবং গত মহাজোট সরকারের আমলে নির্যাতিত হওয়ার নানা তথ্য উপাত্ত ভিডিও ফুটেজসহ উপস্থাপন করছেন।
জানা গেছে, জামায়াতের আমির মাওলানা মতিউর রহমান নিজামী ও নায়েবে আমির মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর মামলার রায় যে কোনো দিন ঘোষণা হতে পারে। জামায়াতের এ দুই শীর্ষ নেতার রায়ের ওপরও ব্যারিস্টার রাজ্জাকের দেশে ফিরে আসা না আসার বিষয়টি নির্ভর করছে। শীর্ষ এ দুই নেতার রায় যদি কাঙ্খিত (জামায়াত নেতাকর্মীরা যা চান) না হয় তাহলে ব্যারিস্টার রাজ্জাকের দেশে ফেরা অনেকটাই অনিশ্চিত বলে সূত্র দাবি করে।
নির্ভরযোগ্য আরেকটি সূত্র জানায়, ব্যারিস্টার রাজ্জাকের বিরুদ্ধেও মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ রয়েছে বিভিন্ন মহল থেকে। তার বিরুদ্ধে ট্রাইব্যুনালে মামলা করারও উদ্যোগ নেয়া হতে পারে বলে আভাস পাওয়া গেছে। আর এ আভাস পেয়েই তিনি দেশে ফিরছেন না।
ট্রাইব্যুনালে ব্যারিস্টার রাজ্জাকের নেতৃত্বাধীন ডিফেন্স টিমের সদস্য গাজী এইচ এম তামিম বলেন, আমরা যতটুকু জানি সহসাই ব্যারিস্টার রাজ্জাক দেশে ফিরছেন না। এ মূহূর্তে তিনি লন্ডনে অবস্থান করছেন এবং ব্যক্তিগত কাজে ব্যাস্ত সময় পার করছেন।
ব্যারিস্টার রাজ্জাক কবে দেশে আসবেন, নাকি আসবেন না এ ব্যাপারে তার ছেলে ব্যারিস্টার ইমরান সিদ্দিকীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে ভাই আমি কোনো মন্তব্য করতে চাই না। জামায়াতের কয়েক কেন্দ্রীয় নেতাও এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।
এদিকে ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) অভিযোগ করেছে, বাংলাদেশের জামায়াতে ইসলামীর সদস্যদের অবৈধভাবে সীমান্ত পার করিয়ে ভারতে আসতে সাহায্য করছেন তৃণমূল কংগ্রেসের নেতাদের একাংশ। এর ফলে মূলত উত্তর-চব্বিশ পরগনা জেলাতে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা তৈরি হচ্ছে। বিজেপি কেন্দ্রীয় নেতা ও অন্যতম জাতীয় মুখপাত্র মুক্তার আব্বাস নাগভি সাংবাদিকদের জানান, ভারত বাংলাদেশ সীমান্ত অঞ্চলে যেভাবে সন্ত্রাসবাদী, বিচ্ছিন্নতাবাদী ও জেহাদি শক্তিগুলো নিরাপদে আর সুরক্ষিত অবস্থায় থাকতে পারছে আর এ এলাকাগুলোকে ব্যবহার করতে পারছে সেটা অত্যন্ত চিন্তার বিষয়।
এদিকে বিজেপি কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে যে রিপোর্ট জমা দিয়েছে, তার প্রথমটিই হলো, তৃণমূল কংগ্রেসের কিছু নেতার সঙ্গে ইসলামপন্থি কট্টর গোষ্ঠীগুলোর যোগাযোগ আর জামায়াতে ইসলামীর সদস্যদের ভারতে আসার ব্যবস্থা করার বিষয়টি।
জামায়াত নেতাদের আইনজীবী তাজুল ইসলাম বলেন, সরকার ব্যারিস্টার রাজ্জাককে দেশে আসতে দিচ্ছে না। তিনি দাবি করেন, ব্যারিস্টার রাজ্জাক যাতে মামলা পরিচালনা করতে না পারেন সে জন্যই পরিকল্পিতভাবে তাকে মিথ্যা মামলায় আসামি করা হয়েছে এবং তিনি দেশে এলে বিমানবন্দরেই তাকে হয়তো আটক করা হতে পারে। সেজন্যই তিনি দেশে আসছেন না।
যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশ, মুসলিম দেশ এবং বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠনে আইসিটির মামলা ও জামায়াতের নিবন্ধনের বিষয়ে তদবির চালাচ্ছেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তাজুল ইসলাম বলেন, দেখুন রাজ্জাক সাহেবের বিরুদ্ধে এমন মন্তব্য সব সময়েই করা হচ্ছে। যেহেতু তিনি আমাদের প্রধান আইনজীবী সেহেতু আন্তর্জাতিক মহল থেকে তার কাছে প্রশ্ন করা হলে তিনি জবাব দেবেন এটাই স্বাভাবিক।
আবদুর রাজ্জাক দীর্ঘদিন দেশে না থাকায় জামায়াতের শীর্ষ নেতাদের মামলা পরিচালনায় জটিলতায় পড়েছেন কিনা জানতে চাইলে তাজুল ইসলাম বলেন, আবদুর রাজ্জাক একজন অভিজ্ঞ আইনজীবী, তার অভাব পূরণ হওয়ার নয়। কোর্টে বিভিন্ন মামলার শুনানিতে তার বিকল্প আইনজীবী পাওয়া যাচ্ছে না। সরকার জেনে বুঝেই মামলা পরিচালনা থেকে দূরে রাখতে তার বিরুদ্ধে দুটি মিথ্যা অভিযোগের মামলা দিয়েছে বলে মন্তব্য করেন তিনি। উৎসঃ   মানবকন্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ