• বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৪৬ পূর্বাহ্ন |

সাত খুনের দায় স্বীকার করলো নূর হোসেন

Nurসিসিনিউজ: রিমান্ডে সাত খুনের দায় স্বীকার করেছে মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেন।
কোলকাতা পুলিশের কাছে সোমবার দায় স্বীকার করে ইন্টারপোল ওয়ান্টেড এই আসামি জানিয়েছে, সাত খুনের জন্য র‍্যাবকে ছয় কোটি টাকা দিয়েছে সে।

নূর হোসেন আরো জানায়, নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের আরো আসামি পশ্চিমবঙ্গে লুকিয়ে আছে। এমন খবরে পুলিশ নূর হোসেনকে নিয়ে রবিবার রাতে নূর হোসেনকে নিয়ে শহরের বিভিন্ন স্থানে হানা দেয়।

নূর হোসেনের দেওয়া সাত খুন সংক্রান্ত তথ্য কলকাতা পুলিশ রেকর্ড করেছে। পুলিশের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, নূর হোসেনকে বাংলাদেশের হাতে তুলে দেওয়ার সময় এ সংক্রান্ত নথিপত্র ও স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির কাগজ বাংলাদেশকে হস্তান্তর করা হবে।

শনিবার রাতে নূর হোসেন ও তার সহযোগীদের গ্রেফতার করে পশ্চিমবঙ্গের এন্টি টেরোরিজম স্কোয়াড (এটিএস)। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, নিয়মিত মদ্যপান এবং বারে গিয়ে মুঠো মুঠো টাকা উড়ানোর নেশাই কলকাতা পুলিশের জালে ধরা পড়ে সাত খুনের আসামি নূর হোসেন।

গোপনে সীমান্ত পেরিয়ে মাস আড়াই আগে কলকাতায় এসে প্রথমে উঠেছিল উল্টোডাঙার কাছে একটি গেস্ট হাউসে। দিন পনের পরেই আসে আজিজুর শামীম এবং এরপর সীমান্ত পেরিয়ে আসেন সুমন। এই উল্টোডাঙা গেস্ট হাউস থেকেই মাঝেমধ্যে বাগুআইটির চিনারপার্কে স্পাইসগার্ডেনে বার-রেস্তোরাঁয় যেতেন।

সেখানে নর্তকীদের উচ্ছৃৃংখল নাচ শেষে খুশি হয়ে বান্ডিলে বাল্ডিলে টাকা উড়িয়ে দিতেন তিনি। সেই কারণে এই বারের কর্মী এবং নর্তকীদের কাছে নিজের মানুষ হয়ে উঠেছিলেন ’নূর ভাই’। কিন্তু শনিবার সন্ধ্যায় মাতাল অবস্থায় পুলিশের সামনে কথা বলতে গিয়ে ভাষা এবং শব্দের উচ্চারণে চিহ্নিত হয়ে যায় নূর একজন বাংলাদেশী।

পুলিশকে মিথ্যা পরিচয় দিলেও পরে অনুসরণ করে বাড়ি দেখে আসে অ্যান্টি টেরোরিস্ট স্কোয়াডের সদস্যরা। কিন্তু সাড়ে ৯টা নাগাদ দেখে এলেও তখন গ্রেফতার করেনি পুলিশ।

এরপর বাংলাদেশ সরকারের কাছ থেকে ইন্টারপোলের মারফত ছবির সঙ্গে মিলিয়ে দেখে প্রায় চমকে উঠেন এসিপি অনিশ সরকার। পরে বিশাল বাহিনী নিয়ে গিয়ে গোটা বাড়ি ঘিরে ফেলেন। এটিএসের প্রথম সন্দেহ হয়েছিল নূর হোসেনের কাছে মারাত্মক আগ্নেয়াস্ত্র রয়েছে। সেই কারণে বাড়ির সিকিউরিটিকে দিয়ে নক করিয়ে দরজা খোলানো হয়।

বাইগুটির এই বাসা ভাড়াও নিয়েছিল বারের কর্মীদের সহায়তায়। তারাই বাড়ির মালিকের প্রতিনিধির সঙ্গে নূর হোসেনের পরিচয় করিয়ে দেন।

বাংলাদেশী উঠতি যুবক থেকে বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজ করে পালিয়ে থাকার জন্য বিখ্যাত হয়ে উঠেছে কলকাতার অদূরে নতুন উপশহর রাজারহাট-নিউটাউন এলাকা। কৈখালি, ভিআইপি, বাইগুটি, জোড়ামন্দির, নারায়নতলা, চালপট্টিসহ রাজারহাটের দশদ্রুণ এলাকায় এখন ব্যাঙের ছাতার মতো আবাসন গড়ে উঠছে। সেই সঙ্গে আবাসনগুলোতে চলছে নানা রকম অবৈধ ব্যবসা-বাণিজ্য। বাইগুটির এমন একটি ভবন থেকেই সঙ্গীসহ গ্রেফতার হন নূর হোসেন।

পরে রবিবার তাকে ৮ দিনের রিমান্ডে নেয় পুলিশ।

উৎসঃ   অনলাইন বাংলা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ