• বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ০২:২৩ পূর্বাহ্ন |

ঘটনার পরও ১৭ দিন নূর হোসেন দেশেই ছিলেন

nurসিসিনিউজ: নারায়ণগঞ্জে অপহরণ এবং সাত খুনের প্রধান আসামি নূর হোসেন ঘটনার পরও ১৭ দিন দেশে ছিলেন। এ সময় তিনি নারায়ণগঞ্জ, ঢাকা ও সীমান্ত এলাকায় অবস্থান করেন। কলকাতা পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে এই তথ্য দিয়েছেন নূর হোসেন। দেশের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা এত দিনেও তাকে গ্রেফতার করতে পারেনি। এ দিকে একাধিক সূত্র জানিয়েছে, নারায়ণগঞ্জ ও ঢাকা থেকে বের হয়ে যেতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীরই কিছু সদস্য নূর হোসেনকে সহায়তা করেছে।
গত শনিবার রাতে পশ্চিমবঙ্গের সল্ট লেক কমিশনারেটের অ্যান্টি টেরোরিস্ট সেল ও বাগুইআটি থানা পুলিশ দুই সঙ্গীসহ নূর হোসেনকে গ্রেফতার করে। তিনজনকে রোববার বারাসত আদালতে তোলা হলে বিচারক তাদের আট দিনের পুলিশ রিমান্ড মঞ্জুর করেন। আগামী ২৩ জুন তাদের আবার আদালতে হাজির করার কথা রয়েছে। রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে নূর হোসেন জানিয়েছেন তিনি গত ১৪ মে কলকাতায় প্রবেশ করেছেন। এর আগে তিনি বাংলাদেশের ছিলেন। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ২৭ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র নজরুল ও সিনিয়র আইনজীবী চন্দন সরকারসহ সাত অপহরণের পর নজরুলের স্ত্রী বাদি হয়ে ফতুল্লা থানায় একটি মামলা করেন। সেই মামলায় প্রধান আসামি করা হয় নূর হোসেনকে। মামলা দায়েরের পরও তিন দিন নূর হোসেন নারায়ণগঞ্জেই ছিলেন। এমন কি সিদ্ধিরগঞ্জ থানাতেও তাকে দেখা গেছে ওই সময়ের মধ্যে। কিন্তু পুলিশ তখন তাকে গ্রেফতার করেনি। অভিযোগ রয়েছে, পুলিশই তাকে নারায়ণগঞ্জ ছেড়ে যেতে সহায়তা করেছে। ৩০ এপ্রিল অপহৃতদের লাশ উদ্ধার শুরু হলে তিনি গা ঢাকা দেন। অভিযোগ রয়েছে, ওই সময় তিনি এক আওয়ামী লীগ নেতার ঢাকার বাসায় গিয়ে অবস্থান নেন। পরিস্থিতি বেগতিক দেখে তিনি ভারতের উদ্দেশে রওনা দেন। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ওই সময় নূর হোসেনসহ অন্যান্য আসামি আটকের জন্য সীমান্ত এলাকায় কড়া নজরদারি ছিল। আর এ কারণেই তিনি ওই সময় সীমান্ত পাড়ি দিতে পারেননি। সীমান্ত এলাকায় একাধিক স্থানে তিনি অবস্থান করেন ওই সময়। এরপর সময় সুযোগ অনুযায়ী তিনি ১৪ মে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে কলকাতায় পৌঁছেন। সেখানে তিনি ছদ্মবেশে বিভিন্ন স্থানে ঘুরে বেড়ান। এর আগেও তিনি ভারতে গিয়ে বেশ কয়েক বছর অবস্থান করায় সেখানকার পথঘাট তার পরিচিত ছিল। এর আগে তার মাথার যখন ইন্টারপোলের রেড অ্যালার্ট ছিল তখন তিনি বেশ কয়েক বছর ভারতে গিয়ে আশ্রয় নিয়েছিলেন। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পরে তিনি দেশে ফিরে আসেন এবং ২০১১ সালে ইন্টারপোলের গ্রেফতারি পরোয়ানা থেকে তার নাম প্রত্যাহার করা হয়।
এ দিকে নূর হোসেনকে পশ্চিমবঙ্গে গ্রেফতারের পর তাকে দেশে ফেরত আনার ব্যাপারে জোরালো দাবি উঠলেও এখনই তাকে দেশে ফেরত আনা সম্ভব হচ্ছে না বলে একাধিক সূত্র জানায়। তাকে ফেরত আনা সম্ভব হলেই নারায়ণগঞ্জ শত খুনের রাঘব বোয়ালদের মুখোশ উন্মোচিত হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। সূত্র জানায়, এ মুহূর্তে তাকে দেশে ফেরত আনা সম্ভব না হলেও তদন্তকারীরা তার সাথে দেখা করে তথ্য জানতে কলকাতায় যাবেন এবং সেখানে তারা নূর হোসেনকে জিজ্ঞাসাবাদ করবেন। যে দিন তাকে চব্বিশ পরগনার আদালতে হাজির করা হয় সে দিন তিনি নিজেকে নির্দোষ দাবি করেছেন।
গত ২৭ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র ওয়ার্ড কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম, তার বন্ধু লিটন, তাজুল, স্বপন, গাড়ির ড্রাইভার জাহাঙ্গির এবং নারায়ণগঞ্জের সিনিয়র আইনজীবী চন্দন সরকার ও তার ড্রাইভার ইব্রাহিমকে অপহরণ করা হয়। অপহরণের পরই নজরুলের স্ত্রী নূর হোসেনকে প্রধান আসামি করে একটি মামলা করেন। ৩০ এপ্রিল ছয়টি লাশ উদ্ধার করা হয় শীতলক্ষ্যা থেকে। পর দিন সকালে বাকি লাশটিও উদ্ধার করা হয়। এই ঘটনায় র‌্যাব ও পুলিশের শীর্ষ কর্তাসহ উল্লেখযোগ্য সব সদস্যকে নারায়ণগঞ্জ থেকে প্রত্যাহার করা হয়। পরে র‌্যাবের তিন কর্মকর্তার সংশ্লিষ্টতা পাওয়ার পরে র‌্যাব-১১ এর তৎকালীন সিও লে. কর্নেল তারেক মোহাম্মদ সাঈদ, সহঅধিনায়ক মেজর আরিফ এবং নারায়ণগঞ্জ ক্যাম্প কমান্ডার লে. কমান্ডার এম এম রানাকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের কয়েক দফায় রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আরিফ ও রানা ১৬৪ ধারায় আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী প্রদান করেন। তারেক এখনো স্বীকারোক্তি করেননি। তবে র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে তিন কর্মকর্তাই এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন। তারা বলেছেন, টাকার বিনিময়ে এই খুনের ঘটনা তারা ঘটিয়েছে। সূত্র: নয়াদিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ