• সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ০৯:৪৩ পূর্বাহ্ন |

বিএনপির পরিকল্পনায় আগাম নির্বাচন

khaledaসিসিনিউজ: শের বৃহৎ রাজনৈতিক দল বিএনপি এখন অনেকটাই নিস্প্রভ। গতি নেই সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডে। কর্মসূচি না থাকায় নেতাকর্মীরাও লক্ষ্যহীন। দলের আপাত এই অবস্থান বছর শেষে পাল্টে যাবে বলেই আভাস পাওয়া যাচ্ছে। সাজানো হচ্ছে নতুন পরিকল্পনা। দ্রুততম সময়ের মধ্যে আরেকটি নির্বাচন আদায় করাই এর একমাত্র লক্ষ্য।

৫ জানুয়ারি বিরোধী দলবিহীন ‘নজিরবিহীন’, ‘একতরফা’ নির্বাচনের পর বিএনপি যতটা উত্তপ্ত থাকার কথা ছিল, এখন ততটাই নীরব, নিস্তব্ধ। মূলত এই নীরবতার আশ্রয় নেয়া হয়েছে টানা আন্দোলনে ক্লান্ত দলকে ফের চাঙ্গা করতে, সংগঠনকে মজবুত ভিতের ওপর দাঁড় করাতে।

অবশ্য নির্বাচনের পর ইতোমধ্যে পার হয়ে গেছে ছয় মাস। কিন্তু বিএনপি এখনো গুছিয়ে উঠতে পারেনি। তৃণমূল সংগঠন যেখানে ঢাকার মাঠ গরম করতে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার দাবি তুলছে, সেখানে কেন্দ্র এক অজানা ইশারায় থমকে আছে। এতে করে নেতাকর্মীদের মধ্যে সৃষ্টি হচ্ছে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া। তারা আরো হতাশ হচ্ছেন, অনেকে হাল ছেড়ে দিচ্ছেন।

তবে হতাশা দীর্ঘমেয়াদি না করেতে বিএনপির অভ্যন্তরে নানামুখী আলোচনা চলছে। আগামী দিনে আন্দোলনের ধরন কী হবে, কবে নাগাদ ফের আন্দোলনে নামা যায়, তা নিয়ে শলাপরামর্শ শুরু হয়েছে। বিএনপির বিভিন্ন পর্যায়ের ভাবনা অনুযায়ীÑ আগাম নির্বাচনের দাবিতে এ বছর তীব্র আন্দোলন গড়ে তুলতে না পারলে পরবর্তী ফল বেশি একটা ভালো না-ও হতে পারে। তৃণমূলসহ দলের সব পর্যায়ের নেতাকর্মীরাও আরেকটি নির্বাচন কবে হবে, তার দিনক্ষণ গুনছেন। তবে আন্দোলন ছাড়া যে এ দাবি আদায় করা সম্ভব নয়, সে বিষয়ে সবাই একমত।

নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে আগাম নির্বাচনের দাবিতে আসছে সেপ্টেম্বর থেকেই মাঠে নামতে চায় বিএনপি। পরিকল্পনা অনুযায়ী এই আন্দোলন বছর শেষ হওয়ার আগেই চূড়ান্ত রূপ লাভ করবে। সরকারকে নির্বাচন দিতে বাধ্য করতে এ সময়ে নেয়া হবে বিভিন্নমুখী কৌশল। ৫ জানুয়ারির একতরফা নির্বাচন ও চলমান রাজনৈতিক অবস্থা তুলে ধরে কূটনৈতিক চাপ বাড়াতেও থাকবে দলীয় তৎপরতা। বিএনপি চেয়ারপারসনের একটি ঘনিষ্ঠ সূত্র জানিয়েছে, দল গুছিয়ে আন্দোলনে নামার বিষয়ে খালেদা জিয়াও বদ্ধপরিকর। তবে মোক্ষম সময়ের জন্য অপেক্ষা করছেন তিনি।

বিএনপির শীর্ষস্থানীয় নেতারা মনে করছেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচন ছিল প্রহসনের। ছিল না কোনো প্রার্থী, ছিল না ভোটার। ওই নির্বাচন না হলেও শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী হতে পারতেন। কারণ ১৫৪ আসনে নির্বাচন ছাড়াই তারা জয়লাভ করেছেন। এ রকম একটি প্রহসনের নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণের ভোটের অধিকার কেড়ে নেয়া হয়েছে। এখন দেশজুড়ে যে গুম-খুন চলছে, এটা ওই নির্বাচনেরই ফসল। এ অবস্থায় দ্রুত আরেকটি নির্বাচন ছাড়া দেশে স্থিতিশীল পরিবেশ ফিরে আসবে না। নির্দলীয় সরকারের অধীনেই সে নির্বাচন হতে হবে। তারা বলছেন, রোজার পর আবারো আন্দোলন শুরু হবে। একবার আন্দোলন শুরু হলে সরকার বাধ্য হবে দ্রুত নির্বাচন দিতে।

দলের হাইকমান্ডের ভাবনা অনুযায়ী দ্রুত নির্বাচনের দাবিতে সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হওয়া আন্দোলন চূড়ান্ত পর্যায়ে ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের আগের তিন মাসের মতো অবস্থায় গিয়ে দাঁড়াতে পারে। ওই তিন মাস টানা হরতাল, অবরোধ পালন করেছিল বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট।

৫ জানুয়ারির নির্বাচন ঠেকাতে ওই সময়ে টানা আন্দোলনের সফলতা কিংবা ব্যর্থতা নিয়ে দলের অভ্যন্তরে মতদ্বৈধতা থাকলেও সিনিয়র নেতারা বলছেন, ফের আন্দোলনে নামলে কোনোভাবেই ‘ফল’ ঘরে না তুলে মাঠ ছাড়া যাবে না। যদি দ্রুত আরেকটি নির্বাচন আদায়ে বিএনপি ব্যর্থ হয়, তা হলে সাংগঠনিক শক্তি ভেঙে পড়তে পারে। নেতাকর্মীরা দীর্ঘমেয়াদে নিষ্ক্রিয় হয়ে যেতে পারেন। মামলা-হামলার ঘানি টানতে হতে পারে শীর্ষ পর্যায় থেকে তৃণমূল পর্যন্ত নেতাদের।
বিএনপি নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর দ্রুত দল গোছানোর যে ঘোষণা খালেদা জিয়া দিয়েছিলেন, তা ততটা দ্রুত না হওয়ায় তৃণমূলে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।

ঢাকা মহানগরসহ বিএনপির গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি অঙ্গসংগঠন এখনো আছে আগের অবস্থায়ই। ঢাকা মহানগর কমিটি হচ্ছে হচ্ছে করেও হচ্ছে না। ৫ জানুয়ারির নির্বাচন-পূর্ব আন্দোলন সফল করার ক্ষেত্রে মহানগরের বর্তমান আহবায়ক সাদেক হোসেন খোকার ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন থাকলেও তাকেই আবার দায়িত্ব দেয়া হতে পারে, এমন আভাস দলের অভ্যন্তরে বেশ জোরালো। অন্য দিকে তেজহীন ছাত্রদল চলছে নিভু নিভু করে। যুবদল নিষ্ক্রিয়। যুবদলে নতুন নেতৃত্ব এখনো কেন দেয়া হচ্ছে না, তা নিয়ে প্রশ্ন অনেকেরই।

৫ জানুয়ারি বিরোধী দলবিহীন একতরফা নির্বাচনের পর এখনো সরকারের ওপর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কিংবা ইউরোপীয় ইউনিয়নের নেতিবাচক মনোভাবের কোনো পরিবর্তন হয়নি। তারাও গণতন্ত্রের স্বার্থে আলোচনার মাধ্যমে চলমান পরিস্থিতির একটি সন্তোষজনক সমাধান আশা করছে। সব দলের অংশগ্রহণে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের মধ্য দিয়ে শান্তিপূর্ণ অবস্থা আবার ফিরে আসতে পারে বলে মনে করছে প্রভাবশালী ওই দেশগুলো।

বিএনপির ভাবনা অনুযায়ী আবার আন্দোলন শুরু হলে আন্তর্জাতিক ‘সমর্থন’ তাদের পক্ষেই থাকবে। প্রতিবেশী দেশ ভারতের নতুন সরকারও দ্রুত আরেকটি নির্বাচন অনুষ্ঠানে ভূমিকা রাখবে বলে আশা করে বিএনপি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ