• শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২, ০৩:৫২ অপরাহ্ন |

হত্যা করে আরিফ, লাশ দেখে আতঁকে উঠি: তারেকের জবানবন্দি

7murdurসিসিনিউজ: নারায়ণগঞ্জের বহুল আলোচিত সেভেন মার্ডার মামলায় আদালতে দেওয়া ১৬৪ ধারার স্বীকারোক্তিমূলক ও পুলিশের কাছে দেওয়া ১৬১ ধারার জবানবন্দিতে র‌্যাব-১১ এর সাবেক অধিনায়ক লে. কর্নেল তারেক সাঈদ নিজের দোষ স্বীকার করলেও সেটার দায় চাপিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছেন আরিফ হোসেন, এম এম রানা ও নূর হোসেনের দিকে।

তারেকের দাবি, অপহরণের পরের বিষয়গুলো তদারকি করেছেন তিনি। পুরো কাজ ফিল্ডে থেকে সেরেছেন আরিফ হোসেন ও এম এম রানা। আর এ দুজনের সঙ্গে পরিকল্পনায় ছিলেন নূর হোসেন। সাতজনকে হত্যার বিষয়টি তারেক জানতেন না। যখনই জেনেছেন তখনই তিনি হতবিহবল হয়ে পড়েছিলেন।

বুধবার সকাল ১১টা হতে বিকেল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কে এম মহিউদ্দিনের খাস কামরায় সাত খুনের ঘটনায় দায়ের করা দুটি মামলায় জবানবন্দি গ্রহণ করা হয়। জবানবন্দি শেষে বিচারক তারেক সাঈদকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

কারাগারে তিনি সাধারণ সেলেই বয়েছেন। সুযোগ-সুবিধা পাবেন সাধারণ বন্দিদের মতো। নিজের সেলে তিনি একাই রয়েছেন তারেক।

এর আগে একই আদালতে গত ৪ জুন আরিফ হোসেন ও পরদিন ৫ জুন এম এম রানা ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় নিজেদের দোষ ও দায় স্বীকার করেন।

আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেওয়ার আগে পুলিশের কাছে ১৬১ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশের এক কমকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, সকাল ৮টায় নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ লাইন হতে তারেক সাঈদকে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থায় নারায়ণগঞ্জ আদালতে আনা হয়। পরে তাকে নেওয়া হয় সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কে এম মহিউদ্দিনের আদালতে। সেখানে তাকে প্রথমে জবানবন্দি দেওয়ার ব্যাপারে চিন্তা ভাবনার সুযোগ দেওয়া হয়। সকাল ১১টা হতে জবানবন্দি দেওয়া শুরু করেন তারেক সাঈদ।

তারেক সাঈদ বলেন, “সাতজনকে অপহরণের বিষয়টি জানলেও সকলকে হত্যার বিষয়টি তাকে জানানো হয়নি। অপহরণের পর তাদেরকে ভয় ভীতি দেখিয়ে ছেড়ে দেওয়া হবে এমনটাই জানানো হয়েছিল। কিন্তু রাতে সাতজনকে হত্যার পর বিষয়টি জানানো হয়। সাতজনকে মারার পর আমি অনেকটাই হতবিহবল হয়ে পড়ি। হত্যার পর বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার জন্য লাশ নদীতে ফেলে দেওয়ার কথা বলি আরিফকে।“

এদিকে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেওয়ার আগে পুলিশের কাছে দেওয়া ১৬১ ধারায় জবানবন্দিতে তারেক বলেন, নজরুলকে তুলে আনার বিষয়ে তিনি জানতেন। যখন ওই ৭ জনকে তুলে আনা হয় তখন তিনি নিজের অফিসেই ছিলেন। তার সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ রক্ষা করছিলেন আরিফ ও রানা। সাত জনকে অপহরণের পর তাদের বহনকৃত মাইক্রোবাসটি নরসিংদী নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই তাদেরকে হত্যার পরিকল্পনা হলেও আরিফ চেয়েছিল নারায়ণগঞ্জে এনেই হত্যা করবে। আরিফ রিস্ক নেওয়াতেই অপহৃতদের নারায়ণগঞ্জে এনে হত্যা করা হয়। রাতে যখন ৭জনের লাশ শীতলক্ষ্যার পশ্চিম তীরে কাঁচপুর সেতুর জনশূন্য স্থানে নিয়ে আসা হয় তখন ৭ জনের লাশ দেখে আঁতকে ওঠেন তারেক সাঈদ। তখন তিনি ৭ জনকেই হত্যা করায় আরিফ ও রানাকে বকাঝকা করেন। কিন্তু তখন তার কিছুই করার ছিল না। পরে ৭ জনের লাশ শীতলক্ষ্যার বন্দর উপজেলার মদনগঞ্জের চর ধলেশ্বরী এলাকায় ডোবানোর মিশনে তারেক সাঈদ অংশ নেন।

প্রসঙ্গত সাত খুনের ঘটনায় দুটি মামলা দায়ের হয়। প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম ও তার ৪ সহযোগীকে হত্যার ঘটনায় নজরুলের স্ত্রী সেলিনা ইসলাম বিউটির দায়ের করা হত্যা মামলায় প্রথমে জবানবন্দি দেন তারেক সাঈদ।

পরে তারেক সাঈদ সেভেন মার্ডারের ঘটনায় নিহত অ্যাডভোকেট চন্দন সরকার ও তার গাড়ি চালক হত্যার ঘটনায় চন্দন সরকারের জামাতা বিজয় পালের দায়ের করা মামলায় জবানবন্দি দেন।

জবানবন্দিতে কী উল্লেখ করা হয়েছে সেটা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে রিমান্ডে থাকার সময়ে তারেক সাঈদ বার বার হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে নিজের দায় অস্বীকার করেছিলেন।

নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন খান জানান, নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের খাসখামরায় তারেক সাঈদের জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়েছে। এতে সে বেশ কিছু তথ্য প্রদান করেছে।

নারায়ণগঞ্জ কোর্ট পুলিশের এস আই আশরাফ ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি প্রদানের বিষয়টি স্বীকার করেছেন।

উল্লেখ্য ২৭ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম, তার বন্ধু মনিরুজ্জামান স্বপন, তাজুল ইসলাম, লিটন, গাড়িচালক জাহাঙ্গীর আলম, আইনজীবী চন্দন কুমার সরকার এবং তার ব্যক্তিগত গাড়িচালক ইব্রাহিম অপহৃত হন। পরদিন ২৮ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন নজরুল ইসলামের স্ত্রী। ৩০ এপ্রিল বিকেলে নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদী থেকে ৬ জন এবং ১ মে সকালে একজনের লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত সবারই হাত-পা বাঁধা ছিল। পেটে ছিল আঘাতের চিহ্ন। প্রতিটি লাশ ইটভর্তি দুটি করে বস্তায় বেঁধে ডুবিয়ে দেওয়া হয়। সাতজনকে অপহরণের পর ২৯ এপ্রিল রাতে সে সময়ের জেলা প্রশাসক মনোজ কান্তি বড়াল, পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম, র‌্যাব-১১ এর সিইও তারেক সাঈদ, মেজর আরিফ, ক্রাইম প্রিভেনশনাল স্পেশাল কোম্পানির কমান্ডার লে. কমান্ডার এমএম রানা, ফতুল্লা থানার ওসি আক্তার হোসেন, সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি আব্দুল মতিনকে প্রত্যাহার করা হয়। পরে তারেক সাঈদ, আরিফ হোসেন ও এম এম রানাকে র‌্যাব থেকে চাকুরিচ্যুত এবং পরে সেনাবাহিনী ও নৌ বাহিনীও তাদের অকালীন অবসরে পাঠায়।

সেভেন মার্ডারের ঘটনায় হাইকোর্টের নির্দেশে গত ১৬ মে দিনগত রাতে ঢাকার সেনানিবাস থেকে আরিফ হোসেন ও তারেক সাঈদকে ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার করে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ