• বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৪৩ পূর্বাহ্ন |

মিরপুর বিহারি পল্লী ট্র্যাজেডি: দুর্বৃত্তায়নের বিরুদ্ধে রুখে দাড়াও বাংলাদেশ

Sahabaz Uddinমো: সাহবাজ উদ্দিন সবুজ: শুধু মিরপুরের কালশী নয়, স্বাধীন বাংলাদেশের চারদিকে উন্নয়নের দাপটের মধ্যে এক ছোট দ্বীপের মত বিহারিদের বস্তি। চোখ বন্ধ করে বলা যায় এরুপ পল্লীতে বড় হওয়া যেন জীবনযুদ্ধ। তারা গরিবদের মধ্যে গরিবতর, তার দুর্বল অবাঙালী বিহারি, তাদের উপর একাত্তরের বির্তকিত গ্লানি। বাঙালি অধ্যুষিত দেশ হলেও আমাদের দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি, সৌহাদ্য ও ধর্মীয় পরিবেশ ভ্রার্তৃত্বসুলভ, অর্থবহ ও স্বাভাবিক। তবে পবিত্র শবে বরাতের প্রথম প্রহরে পূর্বের জের ধরে গত ১৪ জুন রাজধানীর পল্লবীর কালশী বিহারিপল্লীতে যে লোমহর্ষক, অমানবিক ও ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটল তা বিহারি কেন কোন সম্প্রদায়ের জন্য কাম্য নয়। এটি বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক সুসম্পর্ককে শুধু ধুলিসাৎই করেনি সাংবিধানিক অনুশাসনকেও হার মানিয়েছে বলে আমার কাছে মনে হয়।
ওইদিনের লোমহর্ষক ও হিংসার আগুনে পুড়ল একই পরিবারের ৮জন সহ ১০ জন। পৃথিবীতে আসার আগেই পুড়ে মারল দুটি ভ্রুণ। এরা আগুনে পুড়ে মারা গেছে নিজ ঘরে বাইরে থেকে ছিটকিনি লাগিয়ে দেওয়া অবস্থায়। এই নারী ও শিশুরা কেউই কোনো গোলমালে ছিল না। ছিল না কোন রাজনৈতিক মাঠের কর্মী। এরা ফলমূল বা রাজনীতিতে ফরমালিনের অভিযোগে অভিযুক্ত ছিল না। এরা ছিল বিহারি সংখ্যালঘু সম্প্রদায়। যারা পেট্রল ঢেলে আগুন লাগায়, তারা ছিল অপ্রতিরোধ্য, গডফাদার আর ফরমালিন ওয়ালাদের প্রতিনিধি। পুলিশের লাঠি-টিয়ার-গুলির কারণে ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও কার সাধ্য ছিল না হতভাগ্যদের বাঁচাও বাঁচাও আর্তনাদে সাড়া দেওয়ার। কালশীর বিহারি ক্যাম্পবাসির অভিযোগ এটা পরিকল্পিত হত্যাকান্ড। শবে বরাতের রাত শেষের ভোরে কালশীর বিহারিপল্লীতে হত্যা-ভাংচুর ও আগুন চলে, তখনো নাগরিকের ট্যাক্সের টাকা দিয়ে যাদের বেতন ভাতা দেওয়া হয় সেই পুলিশ ছিল জীবনের বিপক্ষে। নৈরাজ্যের দেশে এভাবে কত কত গণমৃত্যুর চর জেগে উঠছে, তার খোঁজ রাখে কি কোন সরকার?
ঘটনার সূত্রপাত আতশবাজিকে কেন্দ্র করে নয়, বরং আতশবাজির অছিলায় ওই ঘটনা পূর্ব পরিকল্পিত। বিদ্যুত সংযোগ দেওয়াকে কেন্দ্র করে ওই এলাকার সংসদ সদস্য ও কালশীবাসির মধ্যে বাকবিতন্ডার ঘটনাই রুপ নেয় ভয়াল ওই হত্যাকান্ডের।
১১৬টি ক্যাম্পে যে আড়াই তিন লাখ উর্দুভাষী বাংলাদেশে বাস করছে, তাদের অধিকাংশেরই জন্ম স্বাধীনতার পরে। ঘরে তারা উর্দু বললেও বাংলা ভাষাতেই কথা বলে। তাদের সন্তানরা বাংলা স্কুলে পড়ে। তাদের মুখে প্রতিদিন উচ্চারিত হয় আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি জাতীয় সংগীতটি। এক রিট করে তারা ভোটাধিকার পেয়েছে। অর্থনীতিতে তারা অবদান রাখছে। অতি অল্প কেউ ছাড়া এখন তারা পাকিস্তানে যেতে আগ্রহী নয়। ১৬ কোটি মানুষের মধ্যে লাখ আড়াই মানুষের পুনর্বাসন কি এতই কঠিন?
বঙ্গবন্ধু তার ৭ মার্চের ভাষণে বলেছিলেন, “এই বাংলায়- বাঙালি, অবাঙালি যারা আছে, তারা আমাদের ভাই। তাদের রক্ষার দায়িত্ব আমাদের ওপর,  আমাদের যেন বদনাম না হয়।” কিন্তু বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক বলে যারা নিজেদের দাবি করেন তারা বদনামের পরোয়া করেন না। তাদের কাছে ধর্মীয়, ভাষাগত ও জাতিগত সংখ্যালঘুরা নিরাপদ নয়। এমনকি ঘরের মধ্যে তালা লাগিয়ে আগুনে পুড়িয়ে মারতেও তাদের বুক কাঁপে না। আর মরহুম রাষ্ট্রপ্রতি জিয়াউর রহমান সব সম্প্রদায়ের মৌলিক চাওয়া পাওয়া পূরনের জন্যই সংবিধানে বাঙালি জাতীয়তাবাদের পরিবর্তে বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ নিরুপন করে ছিলেন। তবে তার আদর্শের সৈনিকরাই কি তার আদর্শকে পরিপূর্ণরুপে লালন করেছেন।
দেশে এখন নতুন খলনায়ক গজিয়েছে। তাদের নাম ‘দুর্বৃত্ত’। বেশির ভাগ সময় সেই দুর্বৃত্তদের গোড়াটা আমরা ধরতে পারি না। নারায়ণগঞ্জে বিপথগামী একদল র‌্যাব কর্মকর্তার নামে ‘দুর্বৃত্ত’দের পরিচয় ফাঁস হওয়া বিরল ঘটনা। আমরা দুবর্ৃৃত্তদের কার্যকলাপের কথা শুনলেও অধিকাংশক্ষেত্রে তাদের নাম-ধাম জানা যায় না। ধরতে পারি না তাদের উদ্দেশ্য ও পরিকল্পনা। একটি দেশে যদি এরুপ দুর্বৃত্তদের আগ্রাসন চলতে থাকে, মাফিয়াতন্ত্র যদি রাজনৈতিক দস্যুতন্ত্র চালু করে প্রশাসন ও আইনকে কবজা করে, তখনই দেশ হয়ে ওঠে যুদ্ধের মাইনফিল্ডের মত। তখন কারও না কারও পা সেসব মাইনের ওপর পড়বে আর আচমকা বিস্ফেরণে অনেকের প্রাণ যাবে। এটা ঘটছে এবং ঘটবে কিন্তু প্রতিকারের আশা থাকবে না এ কেমন দেশ!
রাজধানীর আটটি প্রবেশপথে চেকপোস্ট বসিয়ে এক সপ্তাহের জন্য ফলে ফরমালিন কমানো সম্ভব কিন্তু রাজনীতি থেকে পুরো সমাজে যে বিষ ছড়িয়ে পড়েছে, তার বিরুদ্ধে চেকপোস্ট কোথায়। এ চেকপোস্ট বসাতে হবে আপনাকে আমাকে। দলগুলো থেকে যদি গডফাদাররা বিতাড়িত না হয়, তাহলে দলগুলোকে বিতাড়িত করতে হবে। বিষদাঁত উপড়ে না ফেললে বিষ ছড়াবে পুরো শরীরে। বলা বাহুল্যে, সবই করতে হবে আইনের মধ্যে থেকে আইনি পন্থায়।
স্বাধীনতার চার দশক পরে আজ সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় হয়েছে বিহারিদের সম্পর্কে রাষ্ট্রের দৃষ্টিভঙ্গি পরিস্কার করার। আইনি লড়াইয়ে নাগরিক পাওয়া আদম সন্তানরা এভাবে পুড়ে মরবে আর রাষ্ট্র তার দায়দায়িত্ব নেবে না, তা হবে না, হতে পারে না। এই মুর্হূতে আমাদের করণীয় এই নোংরা রাজনীতির যারা সূত্রধর তাদের সনাক্ত করা, প্রহসনের চ্যাম্পিয়ানদের খুঁজে বের করা। অথচ এই কাজটি হচ্ছে না। যারা রাজনীতির মোড়কে থেকে পুরো ঘটনার কলকাটি নেড়েছেন তারা এখনো ধরাছোঁয়ার বাইরে। জানি না আমাদের প্রিয় স্বদেশে ঘটনার প্রকৃত রহস্য উদঘাটনের বদলে ঘটনা থেকে রাজনৈতিক স্বার্থ উদ্ধারের অপসংস্কৃতি কখন দূর হবে। ছোট ইস্যুতে বড় প্রাণহানির নেপথ্যের ওই (বিহারিপল্লীর ট্র্যাজেডি) হত্যাকান্ডের বিচার বিভাগীয় তদন্ত এখন সময়ের দাবি। মিরপুরের হৃদয়হীন বর্বরতার পর আমাদের অবশ্যই জেগে ওঠার সময় হয়েছে। বলার সময় হয়েছে দুর্বৃত্তায়নের বিরুদ্ধে জেগে ওঠো বাংলাদেশ।

লেখকঃ রাষ্ট্রবিজ্ঞানের ছাত্র ও তরুণ সাংবাদিক


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ