• শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ০২:০৫ পূর্বাহ্ন |

আতঙ্কে আওয়ামী লীগ নেতারা

Awamili Flagসিসি ডেস্ক: আতঙ্ক চেপে ধরেছে খোদ শাসক দল আওয়ামী লীগ নেতাদের। দলের কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য ও ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি একেএম এনামুল হক শামীমের গুলিবিদ্ধ হওয়ার ঘটনায় নিজেদের নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বিগ্ন অনেক আওয়ামী লীগ নেতা। আওয়ামী লীগ নেতারা বলছেন, রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ কিংবা ব্যবসায়িক প্রতিপক্ষ যারাই শামীমের ওপর গুলি করার সাহস করেছে তারা যে অন্যদের ওপরও করবে না তার নিশ্চয়তা কী? এ ঘটনায় তারা বিএনপির দিকে আঙুল তুললেও দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। সাবধানে চলাচল করার জন্য কেন্দ্র থেকে ইতিমধ্যে দলের নেতাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে রাখতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরে। ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর ঢাকায় কোনো কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতার ওপর হামলা এটাই প্রথম। যার ওপর হামলা হয়েছে সেই এনামুল হক শামীম সাবেক ছাত্রলীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঘনিষ্ঠ সাবেক ছাত্রনেতাদের একজন। কাউন্সিল ছাড়াই ২০১২ সালের ফেব্রুয়ারিতে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর এক বৈঠকে তাকে দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য পদ দেয়া হয়। শামীমের ভাই একেএম আমিনুল হক জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার (এনএসআই) পরিচালক। ১৯৮৯ সাল থেকে ১৯৯১ সাল পর্যন্ত জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (জাকসু) ভিপিও ছিলেন এনামুল হক শামীম। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন ১৯৯৪ সাল থেকে ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত। ছাত্রলীগের এমন প্রভাবশালী সাবেক নেতা শামীমের ওপর এ হামলায় আওয়ামী লীগের অন্য নেতারা অনেকটা মুষঢ়ে পড়েছেন। অনিরাপদ মনে করছেন নিজেদের। তারা বলছেন, বিষয়টি পলিটিক্যাল বা ব্যবসায়িক যাই হোক বুঝতে হবে এনামুল হক শামীমের ওপর হামলা হয়েছে।
শামীমকে হত্যাচেষ্টা করা হয়েছে বলে তার পরিবার ও আওয়ামী লীগ নেতাদের দাবি। সম্প্রতি এর আগেও বিভিন্ন কারণে অনেক হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। চলতি মেয়াদে দ্বিতীয় দফায় ক্ষমতা গ্রহণের মাত্র পাঁচ মাসের মাথায় সারা দেশে শতাধিক আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মী হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন। তবে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে নিজেদের দ্বন্দ্ব-সংঘাতেই জীবন হারিয়েছেন তারা। এসব খুনোখুনির ঘটনায় এমনি এতদিন আতঙ্কে ছিলেন তৃণমূল নেতাকর্মীরা। কিন্তু কেন্দ্রীয় কোনো নেতার ওপর এবারই প্রথম আক্রমণ হলো। হত্যার উদ্দেশ্যে গুলি। এর প্রতিবাদে ছাত্রলীগ ও ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ কর্মসূচি পালন করলেও নিজেদেরকে নিরাপদ মনে করছেন না বলে অনেক নেতা জানিয়েছেন। এর আগেও আওয়ামী লীগের একাধিক এমপি ও নারায়ণগঞ্জের আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী নিজের জীবনের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন।
জানা যায়, এ মুহূর্তে আওয়ামী লীগ নেতারা রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ বলতে শুধু বিএনপি-জামায়াতকেই আমলে নিচ্ছেন না, প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়িয়েছেন খোদ নিজ দলের কর্মী-সমর্থকরাই কেন্দ্রীয় নেতা ও এমপি-মন্ত্রীদের রোষানলে পড়ে যারা গত সাড়ে ৫ বছর বঞ্চিত ছিলেন। তারা এখন প্রতিবাদী হয়ে উঠছেন। নিজেদের প্রভাব বজায় রাখতে এখন আওয়ামী লীগের প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়িয়েছে আওয়ামী লীগই। এসব নিয়ে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত ১৪ দলের বৈঠকেও উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছে। বৈঠকে কয়েক নেতা অভ্যন্তরীণ কোন্দল যাতে চরম হিংসা, হানাহানি, খুনোখুনির পর্যায়ে না পৌঁছে সে ব্যাপারে যথাসময়ে ত্বরিত সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়ার জন্যও পরামর্শ দেন। তারা আরো বলেন, প্রতিটি খুনের ঘটনায় আওয়ামী লীগ তার ত্যাগী নেতা-কর্মী হারালেও এর সুফল চলে যায় বিরোধী দলের ঘরে। খুনোখুনির ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেও কঠোর ভূমিকা নিয়েছেন। তিনি প্রশাসনকে সরাসরি নির্দেশ দিয়ে বলেছেন, খুনি যে দলেরই হোক বিন্দুমাত্র ছাড় দেয়া যাবে না।
এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, সম্প্রতি সারা দেশে খুনের ঘটনায় আওয়ামী লীগ উদ্বিগ্ন। এসব ঘটনা কেন ঘটছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এসব ঘটনার যেন আর পুনরাবৃত্তি না ঘটে সে ব্যাপারে তৃণমূলের শীর্ষ নেতাদের সতর্ক করা হয়েছে। প্রশাসনকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে এসব ঘটনার সঙ্গে যারাই জড়িত তাদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনতে। এসব ঘটনা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রশ্রয় দেবেন না।
জানা যায়, আধিপত্যের লড়াই, প্রভাব বিস্তার এবং একক কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠার লড়াইয়ের কারণেই বেশির ভাগ ঘটনা ঘটেছে। তবে কিছু ক্ষেত্রে বিরোধী দলের ইন্ধন খুঁজে পেয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।
এর বাইরে নারায়ণগঞ্জ ও ফেনীর বর্বরতায় সরকার বেশ বড় রকমের ধাক্কা খেয়েছে, এর মধ্যেও লক্ষ্মীপুর, নোয়াখালীসহ কয়েকটি জেলায় সাম্প্রতিক ঘটনায় প্রকাশ হয়ে পড়েছে নিজেদের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব। ফেনীর ঘটনায় স্থানীয় বিএনপির ইন্ধনও ছিল বলে জানা গেছে। সম্প্রতি গাজীপুরের কাপাসিয়ায় হুমায়ুন নামের এক স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। তিনি সদর ইউনিয়নের স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। কুমিল্লা শহরে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে আহসান হাবিব সমু (৩৬) নামে এক যুবলীগ কর্মী নিহত হয়েছেন। তিনি স্থানীয় এমপি বাহারউদ্দিন বাহারের ভাতিজা। এর আগে গত ২৭ এপ্রিল দুপুরে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের আওয়ামী লীগ সমর্থিত ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম, আইনজীবী চন্দন সরকারসহ সাতজন অপহৃত ও নির্মম হত্যাকাণ্ডের শিকার হন। এ সাতজনের পাঁচজনই সরাসরি আওয়ামী লীগের রাজনীতি করতেন। এ হত্যাকাণ্ড যারা ঘটিয়েছেন তারাও আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মী। সাত হত্যা মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেন ছিলেন সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি।
এর পরপরই গত ২০ মে ফুলগাজী উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ সভাপতি একরামুল হক একরামকে গুলি করে, কুপিয়ে ও গাড়িসহ পুড়িয়ে হত্যা করা হয়। এখন পর্যন্ত হত্যাকাণ্ডে জড়িত ও পরিকল্পনা করার দায়ে যাদের নাম এসেছে এবং যারা ধরা পড়েছে, তাদের অধিকাংশই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। তবে অর্থ-অস্ত্রের জোগানদাতাসহ বিএনপি রাজনীতির সঙ্গে জড়িত এমন তিনজনও গ্রেফতার হন। এসব ঘটনায় নেতা-কর্মীদের মধ্যে সৃষ্টি হয়েছে অবিশ্বাস, সন্দেহ আর পারস্পরিক কোন্দল। তারা সরাসরি আঙুল তুলছেন ফেনীর এমপি নিজাম উদ্দিন হাজারীর দিকে।
২২ মে রাতে লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার করপাড়া ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নূর হোসেনকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এর পরদিন লক্ষ্মীপুর সদরেই আরো দুই আওয়ামী লীগ নেতার রক্তাক্ত লাশ পাওয়া যায়। নিহতরা হলেন- সদর উপজেলার চরশাহী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল মান্নান ভূঁইয়া ও রায়পুর পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক মো. আবদুল মজিদ। বগুড়ায় যুবলীগ কর্মী ফরহাদ হোসেন শিপলুকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তির পর তিনি মারা যান। ২৪ মে রাতে সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু রায়হানকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। ১২ এপ্রিল সিলেটের ওসমানীনগরে নিজ কক্ষে আওয়ামী লীগ নেতা জবেদ আলী খুন হন।
অভ্যন্তরীণ কোন্দলের পাশাপাশি প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক দলের হাতেও আওয়ামী লীগের বেশ কিছু নেতাকর্মী হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন। তাদের সংখ্যাও অন্তত ২৫ জন বলে জানা গেছে। প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক দল ও ক্যাডারদের হাতে সাতক্ষীরা, লক্ষ্মীপুর, দিনাজপুর, সিরাজগঞ্জ, ময়মনসিংহ, পাবনাসহ কয়েকটি জেলায় ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীর হত্যাকাণ্ড ঘটে। এসব স্থানে প্রতিপক্ষের হামলায় পঙ্গুত্বের শিকারও হয়েছেন ২০ জনের বেশি।

উৎসঃ   মানবকন্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ