• সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ০৯:৪৮ পূর্বাহ্ন |

ক্রসফায়ারের তালিকায় ২ হাজার ব্যক্তির নাম

Crossfire-rabসিসি ডেস্ক: আশরাফুল, আনারুল চেয়ারম্যান, আমিনুর আর আনারুল গাজীই নয়, সাতক্ষীরায় নিহত ৩৪ জন মানুষের পরিবারেই চলছে শোক। কোনো কোনো পরিবার একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তিকে হারিয়ে এখন দিশেহারা। অর্ধাহার আর অনাহারে দিন কাটছে তাদের। এর পরও ওই সব পরিবারের সদস্যদের এখন পালিয়ে বেড়াতে হচ্ছে। কোনো কোনো পরিবারের দূরসম্পর্কের আত্মীয়স্বজনও পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। তাদের সন্তানদের লেখাপড়া বন্ধ হয়ে গেছে। কেউ কেউ এলাকা ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছেন। নিহতদের মধ্যে কয়েকজন ছিলেন স্কুল-কলেজপড়–য়া ছাত্র। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অব্যাহত হয়রানিতে তারাও এখন দিশেহারা। মামলার ঝামেলা তো আছেই। ওই সব পরিবারের সাথে কথা বলে জানা গেছে, প্রতিটি গুলির ঘটনায় পুলিশ বাদি হয়ে মামলা করেছে। আর ওই সব মামলায় আসামি হয়েছেন নিহত ব্যক্তিরাও। এসব ব্যক্তির মধ্যে অনেকেই রয়েছেন যারা কোনো রাজনীতির সাথে সরাসরি সম্পৃক্ত নন; কিন্তু হয়রানি থেকে তাদের পরিবার রেহাই পাচ্ছে না। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, সাতক্ষীরায় আরো অনেকের নাম রয়েছে ক্রসফায়ারের তালিকায়। সূত্রটির দাবি অন্তত দুই হাজার ব্যক্তির নাম রয়েছে এই তালিকায়।
গত বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি সাতক্ষীরার কদমতলী বাজার থেকে একটি মিছিল বের হয়। মিছিলটি সার্কিট হাউজ মোড়ে পৌঁছলে যৌথবাহিনীর সদস্যরা এলোপাতাড়ি গুলি চালায়। এ সময় গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন রবিউল ইসলাম (৩০), আলি মোস্তফা (২০), সাইফুল্লাহ (২০), শাহিন (২০), ইকবাল হাসান তুহিন (২০), মাহমুদুল হাসান (৩০) এবং আব্দুস সালাম (৫৫)। নিহত মাহমুদুল হাসানের বড় ভাই আলমগীর হোসেন নয়া দিগন্তকে বলেন, তারা দুই ভাই ছিলেন। মাহমুদ নিহত হয়েছে। দুই ভাই-ই ছিলেন শ্রমিক। দিনমজুরি করে স্ত্রী, সন্তান এবং তাদের বাবা-মাকে নিয়ে মোটামুটি দিন চলত। গত মাসের প্রথম দিকে পুলিশ তাকেও গ্রেফতার করে। এর পর তাকে পাঁচটি মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়। গত বৃহস্পতিবার তিনি জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। মুক্তি পেতে খরচ করতে হয়েছে ৮৫ হাজার টাকা। এক বিঘা পাঁচ কাঠা জমি ছিল। ওই জমি বন্ধক দিয়ে তার জামিনের ব্যবস্থা হয়েছে। এর মধ্যে ৪০ হাজার টাকা দিতে হয়েছে একজনকে। তার নাম বলতে রাজি হননি আলমগীর। বলেছেন তার ওপর চাপ আছে। তিনি বলেন, এখন তারা নিঃস্ব। মাহমুদুলের সোয়া দুই বছরের একটি মেয়ে রয়েছে। ওই মেয়েটি এখন আলমগীরকেই বাবা বলে ডাকে। তিনি বলেন, এক ভাই নিহত এবং পুলিশ তাকে গ্রেফতার করলে তার বাবা-মা প্রায় পাগল হয়ে যান। এই অবস্থায় তারা এখন খুবই অসহায়ভাবে দিনাতিপাত করছেন। এর পরও কারো প্রতি ক্ষোভ নেই তার। বললেন, দুনিয়ার সবাই ভালো থাকুক, দোয়া করি।
নিহত আব্দুস সালাম ছিলেন মাছের ঘেরের মালিক। তিন মেয়ে এবং দুই ছেলের জনক ছিলেন তিনি। বড় দুই মেয়ের বিয়ে হয়ে গেছে। ছোট মেয়েটি একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী। বড় ছেলেটি এবার মাস্টার্স পাস করেছে। ছোট ছেলেটি এইচএসসির ছাত্র। সালামের স্ত্রী মমতাজ বলেন, এখন আর ঘের দেখাশোনার কেউ নেই। বন্ধক দিয়েছেন ঘেরের জমি। কোনো মতে চলছে এখন সংসার। এর পরও ছেলেমেয়েদের পড়াশোনার খরচ চালিয়ে যাচ্ছেন। তিনি বলেন, কষ্ট করে চালাতে হচ্ছে, ওদের পড়াশোনা তো আর বন্ধ করে দেয়া যাবে না।
গত বছরের ৩ মার্চ সাতক্ষীরার রইচপুরে বিজিবির গুলিতে নিহত হন মাহবুবুর রহমান (৩৫)। এক ছেলের জনক ছিলেন তিনি। মাহবুবের মা বলেন, কষ্টেই কেটে যাচ্ছে তাদের দিন। তিনি বলেন, ছেলেকে হারিয়ে কিভাবে দিন কাটছে তা ব্যক্ত করার মতো শক্তি তার নেই।
৪ মার্চ কলারোয়া উপজেলার ওফাপুর স্কুলের সামনে নিরপরাধ গ্রামবাসীর ওপর হামলা চালানো হয়। অভিযোগ পাওয়া গেছে, স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা মনছুর গাজীর নির্দেশে যৌথবাহিনীর সদস্যরা ওই গ্রামে হামলা চালায়। সেখানে গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন রুহুল আমিন (৪৪), আরিফ বিল্লাহ (৪১) ও শামসুর রহমান (৪৫)। রুহুল আমিন এবং আরিফ বিল্লাহ আপন দুই ভাই। গুলিতে তারা ঘটনাস্থলেই নিহত হন। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর এলোপাতাড়ি গুলিতে তারা প্রাণ হারিয়েছেন। তাদের অপর ভাই মিজানুর রহমান বলেন, এখন কষ্টে চলছে আরিফ বিল্লাহ ও রুহুল আমিনের পরিবার। আরিফ বিল্লাহর দুই ছেলেমেয়ে। মেয়েটি আলিমে এবং ছেলেটি সপ্তম শ্রেণীতে পড়ে। আরিফ বিল্লাহর ধান-পাটের ব্যবসায় ছিল। তার নিহত হওয়ার পর তিনি যাদের কাছে টাকা পেতেন অনেকেই টাকা মেরে দিয়েছেন। অপর দিকে রুহুল আমিন ছিলেন ক্ষেতমজুর। প্রতিদিন কাজ করে যে টাকা পেতেন তাই দিয়ে চলত সংসার। দুই ছেলে এক মেয়ের জনক ছিলেন তিনি। ঘটনার সময়ও তিনি ক্ষেতে কাজ করছিলেন। হট্টগোলের খবর পেয়ে তিনি ঘটনাস্থলে যান। সেখানে তিনিও গুলিতে প্রাণ হারান। পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তিকে হারিয়ে এখন দিশেহারা পরিবারটি। শামছুর রহমান এলাকায় গোশতের ব্যবসা করতেন। দুই ছেলে এবং এক মেয়ের জনক ছিলেন শামছুর রহমান। তার পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হয়, একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তিকে হারিয়ে এখন তাদের অর্ধাহার ও অনাহারে দিন কাটছে।
গত ৪ জুলাই কালিগঞ্জের পাউখালীতে ভোর সাড়ে ৬টার দিকে হরতাল সমর্থকেরা পিকেটিং করার সময় সেখানে পুলিশ গুলি চালায়। সেখানে ঘটনাস্থলে গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন দশম শ্রেণীর ছাত্র মোস্তফা আরিফুজ্জামান (১৭) ও রুহুল আমীন গাজী (৩৭)।
সাতক্ষীরার আশাশুনি থানার বড়দল গ্রামে আতিয়ার সরদারের বাড়িতে পুলিশ গিয়েছিল তার ছেলেকে গ্রেফতারের জন্য। এ সময় ছেলেকে না পেয়ে পুলিশ আতিয়ার রহমান এবং তার পরিবারের ওপর নির্যাতন শুরু করে। তার ছেলের বউয়ের ওপর পুলিশ যখন নির্যাতন চালায় তখন তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। এরপর তাকে হাসপাতালে নেয়া হলে ডাক্তার মৃত ঘোষণা করেন। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, এর পরও পুলিশ ওই পরিবারের ওপর অব্যাহত হয়রানি চালিয়ে যাচ্ছে। গত ৫ নভেম্বর পাটকেলঘাটা থানার সুরুলিয়া বাজার থেকে দোকান বন্ধ করে বাড়ি ফেরার পথে হত্যা করা হয় আব্দুস সবুরকে।
সাতক্ষীরার আগড়দাঁড়ীতে গত ২৭ নভেম্বর গভীর রাতে পুলিশ অভিযান চালায়। এ সময় গ্রামের লোকজন প্রতিরোধের চেষ্টা করলে পুলিশ সেখানে এলোপাতাড়ি গুলি চালায়। গুলিবিদ্ধ হয়ে সেখানে নিহত হন শিয়ালডাঙ্গা গ্রামের শামসুর রহমান (৩৫)। স্থানীয় সূত্র জানায়, ওই রাতে শিয়ালডাঙ্গা গ্রামের অনেক মানুষ গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই গ্রামের একাধিক ব্যক্তি জানান, আহতদের হাসপাতালে নিতেও বাধা দেয় পুলিশ। হাসপাতালে নেয়ার পথে অনেক মানুষকে সেই রাতে পুলিশ আটক করে। এসব মানুষের অনেকেই রাজনীতির সাথেও জড়িত নন। গ্রামের একেবারেই খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ। গ্রামের মানুষ জানান, সেই রাতে ওই অভিযানের নেতৃত্বে ছিলেন সাতক্ষীরার এসপি মঞ্জুরুল কবীর।
গত ৩ ডিসেম্বর দেবহাটা উপজেলার সখীপুর এবং গাজিরহাটে অবরোধ চলাকালীন রাস্তা অবরোধ করে রাখে অবরোধ সমর্থকেরা। এ সময় পুলিশের সার্কেল এএসপি কাজী মনিরুজ্জামানের নেতৃত্বে যৌথবাহিনীর সদস্যরা অবরোধকারীদের ওপর গুলি বর্ষণ করে। এতে হোসেন আলী ও আরিজুল ইসলাম ঘটনাস্থলেই নিহত হন। ২৩ ডিসেম্বর সাতক্ষীরার ঝাউডাঙ্গা বাজারে অবরোধকারীদের ওপর গুলি চালায় পুলিশ। এতে হাফিজুল ইসলাম নামে একজন ভ্যানচালক এবং হারার পাল নামে এক সাইকেল মিস্ত্রি গুলিবিদ্ধ হন। পরে হাফিজুল ইসলাম মারা যান। হাফিজুলের পরিবারের সদস্যরা দাবি করেন, পুলিশ বিনা কারণে হাফিজুলকে গুলি করে হত্যা করেছে। এর পরও পুলিশ একেবারে খেটে খাওয়া ওই পরিবারটিকে নানাভাবে হয়রানি করে যাচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
১২ ডিসেম্বর আগরদাঁড়ীতে নিহত হন জাহাঙ্গীর হোসেন ও শামসুর রহমান নামে দুই ব্যক্তি। জাহাঙ্গীরের সাত বছরের একটি ছেলে রয়েছে। জাহাঙ্গীরের চাচা আব্দুল ওয়াহেদ জানান, ছেলেটি সারাক্ষণই খোঁজে তার বাবাকে। শামসুর রহমান ছিলেন একজন রাজমিস্ত্রি। তারও তিন বছরের একটি ছেলে রয়েছে। পরিবারের সদস্যরা বলেন, এখন আর কোনো ঝামেলা নেই। কিন্তু স্বামী হারানো- বাবা হারানোর কষ্ট তো আছেই। এই কষ্ট তো শেষ হওয়ার নয়।
গত ১৮ জানুয়ারি বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে সাতক্ষীরা ভোমরার পদ্মশখরা গ্রামের শহর আলী গাজীর ছেলে আবু হানিফ ছোটনকে হাড়তদহমুখী ঘেরের বাসা থেকে পুলিশ আটক করে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পুলিশ তাকে আটকের পর মাথায় কালো টুপি পরিয়ে গাড়িতে তুলে নেয়। সেখান থেকে তাকে পাঁচ কিলোমিটার দূরের পুষ্পকাঠি পুরাতন ইটভাটায় নিয়ে যায়। রাতে সেখানে তাকে ব্যাপক নির্যাতন চালানো হয়। স্থানীয় সূত্র জানায়, ভোর রাতে ছোটনকে ভোমরা বন্দরের লাভলু স্টোরের সামনে নিয়ে যায়। সেখানে তার ওপর ৮-১০ রাউন্ড গুলি করা হয়। ভোমরা বন্দরের একাধিক ব্যক্তি নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, তারা গুলির শব্দ শুনেছেন। কিন্তু ভয়ে কেউ ঘটনাস্থলে যেতে পারেননি। পরে পুলিশ হানিফের লাশ হাসপাতালে নিয়ে রেখে যায়।
২৬ জানুয়ারি যৌথবাহিনীর গুলিতে নিহত হন দেবহাটার মারুফ হোসেন (২২) ও আবুল কালাম আযাদ (২০)। নিহতদের পরিবারের দাবিÑ মারুফ ও আযাদকে তাদের বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়। দেবহাটা থানার ওসি তারকনাথ বিশ্বাসের নেতৃত্বে ২৪ জানুয়ারি রাতে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। আযাদের মা বলেছেন, তার কাছেই ঘুমন্ত ছিল আযাদ। পুলিশ তার কাছ থেকে উঠিয়ে নিয়ে যায় আযাদকে। পরে তাদেরকে ২৬ জানুয়ারি ভোরে নারিকেলি গ্রামে নিয়ে চোখ বেঁধে গুলি করে হত্যা করা হয়। পুলিশ এটিকে বন্দুকযুদ্ধ বলে প্রচার করে।
আক্তার হোসেন আকু (৪০)। পেশায় একজন ভাজা ও ঠোঙা বিক্রেতা। ২ মে মোটরসাইকেলযোগে ঠোঙা সাপ্লাইয়ের কাজ শেষ করে তিনি নওয়াপাড়া ইউনিয়নের স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা ও উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল গনির বাড়ির মসজিদে মাগরিবের নামাজ আদায় করেন। নামাজ পড়া শেষে মসজিদ থেকে বের হলে শহীদুল্লাহ গাজীর নেতৃত্বে রায়হান ও ড্রাইভার ময়নাসহ ৮-১০ জন ‘জামায়াতকর্মী’ বলে আক্তার হোসেনকে পিটিয়ে হত্যা করে। এই ঘটনায় থানায় মামলা পর্যন্ত হয়নি। প্রকাশ্যে পিটিয়ে হত্যাকারীদেরকে গ্রেফতারও করা হয়নি। গত ২৯ এপ্রিল বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে দেবহাটা থানা পুলিশ সখীপুর ইউনিয়নের চিনেডাঙ্গা গ্রামের বাসিন্দা সিরাজুল ইসলাম সরদারকে (৫২) বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে যায়। এ সময় শত শত মানুষ তাকে আটকের বিষয়টি প্রত্যক্ষ করেন। তার ছেলেমেয়েরা বাধা দিতে গেলে তাদেরকে পুলিশ ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। পরে পুলিশ পরদিন ভোররাতে তাকে গুলি করে হত্যা করে বন্দুকযুদ্ধ বলে চালিয়ে দেয়। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, সাতক্ষীরায় অন্তত দুই হাজার মানুষের নাম রয়েছে ক্রসফায়ারের তালিকায়।
এ দিকে সাতক্ষীরার এসপি বলেছেন, তার কাছে ক্রসফায়ারের কোনো তথ্য নেই। নিহতদের পরিবারের সদস্যরা বলেন, যাদেরকে পুলিশ হত্যা করেছে তাদের বিরুদ্ধে ইতঃপূর্বে কোনোই মামলা ছিল না। তাদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসের কোনো অভিযোগ নেই। অথচ সেসব মানুষকে হত্যার পর দায়ের করা হচ্ছে মামলা। পেন্ডিং মামলাতেও তাদের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে। পুলিশের ক্রসফায়ারের ভয়ে অনেকেই এখন এলাকা ছেড়ে অন্যত্র অবস্থান করছেন।

উৎসঃ   নয়াদিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ