• শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৩৭ পূর্বাহ্ন |

শিক্ষককে দিগম্বর করলো এমপি’র ক্যাডাররা

imagesসিসি ডেস্ক: ‘এমপির সমালোচনা করলে কী হয় জানস না, আজকে দেখ কী হয়?’ একথা বলেই ঝাপটে ধরে প্যান্ট-শার্ট খুলে দিগম্বর করে ফেললো মুমিনুন্নেছা সরকারি মহিলা কলেজের ইতিহাস বিভাগের সহযোগি অধ্যাপক মো. ফরিদ উদ্দিন আহম্মেদকে। সাবেক স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ও ময়মনসিংহ-৩ (গৌরীপুর) আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য ক্যাপ্টেন (অব.) ডা. মজিবুর রহমান ফকিরের সমর্থকরা রোববার বিকেল ৩টার দিকে ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ সড়কের গৌরিপুর উপজেলার কলতাপাড়া বাজারে এ ঘটনা ঘটায়। ফরিদউদ্দিন মোটরসাইকেলযোগে কর্মস্থল ময়মনসিংহ শহরের মুমিনুন্নেছা সরকারি মহিলা কলেজ থেকে নিজ বাসভবন গৌরীপুরে ফিরছিলেন। ঘটনার সময় এমপি উপস্থিত ছিলেন না।
সহযোগি অধ্যাপক মো. ফরিদ উদ্দিন আহম্মেদ নয়া দিগন্তকে জানান, কর্মস্থল থেকে বাড়ি ফেরার পথে রোববার বিকেল তিনটার দিকে ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ সড়কের গৌরিপুর উপজেলার কলতাপাড়া বাজারে সাবেক স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রীর ভাতিজা মো. ফারুক আহম্মেদ ফকির, ডৌহাখলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মো. শহিদুল ইসলাম ও আকরাম মেম্বারসহ ৩০/৪০ জন আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী তার গতিরোধ করেন। তিনি মোটরসাইকেল থামানোর সাথে সাথেই ক্যাডার বাহিনী ঘিরে ধরে তাকে।  এসময় তাকে উদ্দেশ করে বলা হয়, ‘এমপির সমালোচনা করস। জানস না এমপির সমালোচনা করলে কী হয়। আজকে দেখ কী হয়?’ একথা বলেই তাকে ঝাপটে ধরে এবং টেনেহিঁচড়ে প্যান্ট-শার্ট খুলে দিগম্বর করে ফেলে। এরপর তার দুই হাত ধরে টেনে নিকটস্থ ‘সেবালয়ে’ নিয়ে যাওয়া হয়। সেবালয় হলো সাবেক স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ও ময়মনসিংহ-৩ (গৌরীপুর) আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য ক্যাপ্টেন (অব.) ডা. মজিবুর রহমান ফকিরের রাজনৈতিক কার্যালয়। এলাকাবাসীর কারো কারো মতে সেবালয় হলো ‘টর্চারসেল’। সেখানে তাকে দিগম্বর অবস্থায় শারিরীক ও মানসিক নির্যাতন করা হয়। একপর্যায়ে তাকে জবাই করার কথা বললে তিনি বলেন, ‘জবাই করলে প্রকাশ্যে করেন।’ এ সময় আকরাম মেম্বার মোবাইল ফোনে কাকে যেন বলেন, ‘স্যার ল্যাংটা করানো হয়েছে, এখন কী করবো?’ ফোনটা ছাড়ার কিছুক্ষণ পর তাকে দিগম্বর অবস্থায়ই ছেড়ে দেয়া হয়। তিনি দিগম্বর অবস্থায় সেবালয় থেকে বের হয়ে বাজারে এসে একজনের কাছ থেকে একটা লুঙ্গি নিয়ে পরিধান করেন। পরে তিনি গৌরিপুরে চলে যান। সন্ধ্যা সাড়ে সাতটায় এ প্রতিনিধির সাথে আলাপকালে তিনি থানায় মামলা করতে এসেছেন বলেও জানান।
প্রত্যক্ষদর্শীরা এঘটনায় কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে পড়েন। ক্যাডার বাহিনীর ভয়ে উপস্থিত লোকজন প্রতিবাদ করাতো দূরের কথা রা করতেও এগিয়ে আসেননি।
এ ব্যাপারে এমপির ভাতিজা মো. ফারুক আহম্মেদ ফকির বলেন, বিগত নির্বাচনের সময় ওই অধ্যাপক এমপির বিরোধিতা ও সমালোচনা করায় দলীয় নেতাকর্মীরা তার প্রতি ুব্ধ ছিল। তার সাথে কর্মীদের হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। তাকে দিগম্বর করা হয়নি। গৌরীপুর ডৌহাখলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, এমপির সমালোচনা করার অভিযোগে ুব্ধ কর্মীরা তাকে নিয়ে টানাহেঁচড়া করেছে। পরে তিনি তাকে উদ্ধার করে মোটরসাইকেলে করে বাসায় পাঠান। কলতাপাড়া আঞ্চলিক ইউনিয়ন শ্রমিক লীগের আহবায়ক মো. আকরাম মেম্বার বলেন, তিনি নিজে এ ঘটনায় জড়িত ছিলেন না। তবে খবর পেয়ে সেবালয়ে এসে অধ্যাপককে উত্তেজিত নেতাকর্মীদের হাত থেকে তিনি ছাড়িয়ে নেন।
গৌরিপুর থানার ওসি মোহাম্মদ আলী জানান, খবর পেয়ে এসআই মাইনুদ্দিনকে তিনি ঘটনাস্থলে পাঠান এবং তিনি অধ্যাপক মো. ফরিদ উদ্দিন আহম্মেদকে উদ্ধার করে বাসায় পৌঁছে দেন। এসময় তিনি দিগম্বর ও নির্যাতন করার কথা পুলিশকে জানান। এ ব্যাপারে মামলা প্রস্তুতি চলছে। নয়াদিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ