• বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৪৬ পূর্বাহ্ন |

স্কুলে স্কুলে গান শেখানোর ব্যবস্থা করবেন নূর

82222_1ঢাকা: সংগীত চর্চা এমন একটি বিষয় যেটাকে আমরা জীবনের মূলে ধারণ করতে পারি। এ জন্য স্কুলে স্কুলে গান শেখানোর ব্যবস্থা করবেন সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর।

এমনই আশ্বাস দিয়ে তিনি জানান, পড়া লেখার পাশাপাশি স্কুলগুলোতে বাচ্চাদের গান শেখানোর ব্যবস্থা শুরু করা যায় কি না, আমরা এ ব্যাপারে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কথা বলেছি।

রোববার সন্ধ্যায় শিল্পকলা একাডেমির নাট্যশালায় বাংলাদেশ সংগীত সমন্বয় পরিষদ আয়োজিত ‘বিশ্ব সংগীত দিবস ২১০৪’ এর দ্বিতীয় দিনের আয়োজনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ বলেন।

স্কুলে গান শেখানো প্রসঙ্গে সংস্কৃতি মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা ছোট শহর ও বড় বড় শহরগুলোতে কিছু অসচ্ছল শিল্পীদের ভাতা দিয়ে থাকি। যদি সরকার কোনো বাড়তি বাজেট না দিতে পারে, আমরা যাদের ভাতা প্রদান করছি তাদের অনুরোধ করতে পারি ‘আপনারা আপনাদের কিছুটা সময় শিশুদের গান শেখানোর কাজে ব্যয় করতে পারেন। আপাতত সেই রকম একটা ভাবনা আছে আমাদের।’

এ প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, ‘এ চিন্তাটা হয়তো খুব দরিদ্র, কিন্তু আমরা যদি এভাবে সংগীত চর্চা শুরু করতে পারি, এটায় হয়তো এক সময় অনেক ভালো একটি অবস্থানে পৌঁছে যাবে।’

আসাদুজ্জামান নূর এ সময় শিশুদের কথা উল্লেখ করে বলেন, ‘আমাদের শিশুরা আমাদের সন্তানেরা সংগীত চর্চা করবে কিভাবে! আমাদের শিশুরা বড় হচ্ছে ব্রয়লার মুরগীর মতো। বই এর ব্যাগ বয়তে বইতে তারা পেরেশান। তাদের ওপার জিপিএ ফাইফ নির্যাতন শুরু হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘আমি যে শহরে বড় হয়েছি। খুব ছোট্ট একটা শহর। সকালবেলা রাস্তা দিয়ে হেঁটে গেলে প্রায় কুড়িটা বাড়ি থেকে গানের আওয়াজ শোনা যেত। এখন একটা বাড়ি থেকেও শোনা যায় না। এখন শোনা যায় টেলিভিশনের আওয়াজ। তাহলে আমরাই তো আমাদের ছেলে-মেয়েদের গান শেখাচ্ছি না, নাটক শেখাচ্ছি না আবৃতি শেখাচ্ছি না। তাহেলে বাচ্চারা শিখবে কি?’

এ সময়ের শিল্প কাঠামো প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমাদের এখনকার শিল্প চর্চার অবকাঠামো অনেক উন্নত। আমরা যখন ১৯৭৩ সালে নাটক করেছি তখন নাটকের তেমন কোনো মঞ্চ ছিল না। তখন অনেক ভালো ভালো নাটক তৈরি হয়েছে। তখন যে নাটক তৈরি হয়েছে তার সমতূল্য নাটক কি খুব একটা হয়?’

এছাড়াও শিল্পীদের রয়্যালিটির ব্যাপারে যে সমস্যা রয়েছে সে বিষয়েও তার ভাবনার কথা জানিয়েছেন তিনি।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ব আইটিআই’র সভাপতি রামেন্দ্র মজুমদার। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ সংগীত সংগঠন সমন্বয় পরিষদের সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিৎ রায়।

বাংলাদেশ সংগীত সংগঠন সমন্বয় পরিষদের সভাপতি তপন মাহমুদের সভাপতিত্বে আরও আলোচনা করেন গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আক্তারুজ্জামান, শিল্পকলা একাডেমির সংগীত ও নৃত্যকলা বিভাগের পরিচালক সোহরাবউদ্দীন, নৃত্য শিল্পী মুনমুন আহমেদ প্রমুখ।

বিশ্ব সংগীত দিবসের এ আয়োজনে বাংলাদেশ সংগীত সমন্বয় পরিষদের পক্ষ থেকে প্রবীণ শিল্পী পণ্ডিত অমরেশ রায় চৌধুরী ও শিল্পী মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকীকে সম্মাননা প্রদান করা হয়।

সম্মানা হিসেবে আসাদুজ্জামান নূর শিল্পী দয়ের হাতে তুলে দেন ২৫ হাজার টাকার চেক ও ক্রেস্ট। এর আগে তাদের উত্তরীয় পরিয়ে দেন তিনি।

শিল্পী মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকীর অসুস্থতার কারণে তার স্ত্রী সুরাইয়া সিদ্দিকা এ সম্মাননা গ্রহণ করেন। পরে নিজের অনুভূতি ব্যক্ত করতে গিয়ে তিনি মোহাম্মদ আলীর সুস্থতা কামনা করে সবার কাছে দোয়া চান।

সম্মাননা গ্রহণ করার পর ৮২ বছর বয়সী পণ্ডিত অমরেশ রায় চৌধুরী তার অনুভুতি ব্যক্ত করে বলেন, ‘আজকে এই সময় আমার মতো একজন সাধারণ ব্যক্তিকে সম্মাননা দেওয়ায় আমি খুব আনন্দিত। আমি এসেছি রাজশাহী থেকে। আমি নিজেকে একজন সংগীতের সেবক মনে করি। সংগীতে শক্তি, সংগীতে ভক্তি সংগীতে মুক্তি এই তিন ধারণা নিয়েই আমার সংগীত জীবন। এই তিন ধারণা নিয়েই আমি সংগীতকে লালন পালন ও ধারণ করি। আমি এখনও একজন সংগীতের শিক্ষার্থী।’

তিনি বলেন, ‘অনেক কিছু শেখার আছে যা এক জীবনে শেখা যায় না। আমার একটাই ইচ্ছে আমি যেন জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত শুদ্ধ মন ও শুদ্ধ জীবন নিয়ে গান গাইতে পারি।’

উল্লেখ্য, বিশ্ব সংগীত দিবসের প্রথম ধারণা আসে ফ্রান্সের সংগীত শিল্পীদের মধ্যে ১৯৮২ সালে। এ দিবস পালনের উদ্দেশ্য ছিল সংগীতকে সাধারণ মানুষের কাছে নিয়ে যাওয়া। এবং বিশ্বের সকল মানুষের কাছে সংগীতের সুর ও মাধুরী পৌঁছে দেওয়া। সেই ধারাবাহিকতা থেকেই এখন সারা বিশ্বে সংগীত দিবস পালিত হয়ে আসছে।

উৎসঃ   প্রাইমনিউজ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ