• সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:৫৫ পূর্বাহ্ন |

ঢাকা চিড়িয়াখানার ৩৮ প্রাণী বার্ধক্যে ন্যুব্জ

gondar20140623180515সিসিনিউজ: দেশের অন্যতম শিক্ষামূলক বিনোদন কেন্দ্র হচ্ছে ঢাকা চিড়িয়াখানা। এখানে বর্তমানে ৩৮টি প্রাণী রয়েছে যারা বয়সের ভারে ন্যুব্জ এবং প্রদর্শনীর জন্য অনুপযুক্ত। এদের বয়স ১৭ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে। অতিরিক্ত বয়সের কারণে এসব প্রাণীর দেহে শারীরিক নানা সমস্যা দেখা দিচ্ছে। আক্রান্ত হচ্ছে নানা রোগে। এ কারণে এদের পেছনে সরকারি অর্থের একটি বিরাট অংশ ব্যয় হচ্ছে। এছাড়া, জনবলকে এদের পেছনে ব্যস্ত থাকতে হচ্ছে বলেও চিড়িয়াখানা সূত্রে জানা গেছে।

সূত্র জানায়, বার্ধক্যে ন্যুব্জ প্রাণীগুলোর মধ্যে রয়েছে – ঘড়িয়াল, ইশ্চুরাইন কুমির, সোনালী বুক বানর, অলিভ বেবুন, বাগদাস, ভোদর, শংখিনী সাপ, উট পাখি, কোশোয়ারি, সারস সক্রেন, লিলফোর্ড সারস, সাদা পেলিক্যান, মদনটাক (৬টি), রয়েল বেঙ্গল টাইগার সম্রাট, ভারতীয় সিংহ (ভাস্কর, শান্তি), চিত্রা হায়েনা, ডোরাকাটা হায়েনা, কালো ভল্লুক (মিজি ও মিলা), গন্ডার, শিম্পাঞ্জি, নীল গাই, হাতি (কুসুমতারা), জলহস্তি(২টি)।

এদের মধ্যে ঘড়িয়ালের ৩৬ বছর,  ইশ্চুরাইন কুমির ৭৯, সোনালী বুক বানর ৩১, সংখিনী সাপ ২০, উটপাখি ২৬, মদনটাক ২৭, সিংহ ভাস্কর ১৯, গন্ডার ৩৮, শিম্পাঞ্জি ৩৬ এবং জলহস্তির বয়স হয়েছে ২৯ বছর।

ভ্যাটেরিনারি ডাক্তার ও পশু বিশেষজ্ঞদের মতে, প্রকৃতিতে বেড়ে ওঠাদের চেয়ে আবদ্ধ অবস্থায় প্রাণীদের জীবনী শক্তি কমতে থাকে। ঢাকা চিড়িয়াখানায় বর্তমানে এসব প্রাণীর প্রকৃত বয়সসীমা অনেক আগেই পার হয়েছে। এদের অধিকাংশেরই আবদ্ধকালীন বয়স ১৫-২০ বছরের মধ্যে। তবে ব্যতিক্রমও রয়েছে। উদাহরণ স্বরূপ- আবদ্ধ অবস্থায় ইশ্চুরাইনের কুমির ৬০-৮০, পাখি ১৫-২০, হাতি ৬০, গন্ডার ২০-২৫, শিম্পাঞ্জি ১৫-১৬, জলহস্তি ২৫-৩০ বছর বাঁচতে পারে।

চিড়িয়াখানার ডেপুটি কিউরেটর ডা. মাকসুদুল হাসান হাওলাদার রাইজিংবিডিকে জানান, বয়স্ক প্রাণীদের চিড়িয়াখানার বিভিন্ন জায়গায় রাখা হয়েছে। ফলে তাদের পরিচর্যা ও খাবার সরবরাহে নানা সমস্যা হচ্ছে। এ কারণে এ প্রাণীদের নিরিবিলি পরিবেশে এক জায়গায় রাখার পরিকল্পনা রয়েছে। এতে দর্শনার্থীরাও তাদের বিরক্ত করতে পারবে না। প্রাথমিকভাবে নিরিবিলি পরিবেশ হিসেবে উত্তরলেকের পাশের জায়গাটি নির্ধারণ করা হয়েছে। বয়স্কদের মধ্যে অবস্থা খারাপ এমন ৫-৬টি প্রাণীকে রাখা হয়েছে হাসপাতালে। এদের অনেকের দাঁত নেই, নেই হাঁটা চলার শক্তি, চোখও নষ্ট রয়েছে কয়েকটির। খাবার দিতে হয় পিষে অথবা গুঁড়ো করে।

মাকসুদুল হাসান বলেন, ‘জাতীয় চিড়িয়াখানা আইন না থাকার কারণে ওয়ার্ল্ড অ্যাসোসিয়েশন অব জু অ্যান্ড অ্যাকুরিয়ামসের (ওয়াজা) সদস্য পদ পাওয়া থেকেও বঞ্চিত বাংলাদেশ। বন বিভাগ এবং প্রাণিসম্পদ বিভাগের মধ্যে সমন্বয়হীনতার কারণে জু আইন চূড়ান্ত করা সম্ভব হয়নি। বন বিভাগ চাইছে চিড়িয়াখানার নিয়ন্ত্রণ তারা নিতে। অপরদিকে প্রাণিসম্পদ বিভাগ চাইছে তাদের নিয়ন্ত্রণেই থাকুক চিড়িয়াখানা। এ কারণেই চিড়িয়াখানা আইন চূড়ান্ত করা সম্ভব হচ্ছে না। ফলে চিড়িয়াখানা বিষয়ক অনেক সিদ্ধান্ত নেওয়াও সম্ভব হচ্ছে না। চিড়িয়াখানার বয়স্ক প্রাণীদের স্লো পয়জনিং বা যন্ত্রণাহীন মৃত্যুর বিষয়েও কোনো সিদ্ধান্ত নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না।’

ঢাকা কেন্দ্রীয় পশু হাসপাতালের প্রধান ও ঢাকা চিড়িয়াখানার সাবেক কিউরেটর ডা. এ বি এম শহীদুল্লাহ বলেন, ‘বয়স্ক প্রাণীদের মেরে ফেলার জন্য আমাদের দেশে কোনো আইন না থাকার কারণে বছরের পর বছর এসব প্রাণীর পেছনে অর্থ ও শ্রম ব্যয় করতে হচ্ছে। অথচ বিশ্বের অন্যান্য দেশে বয়স্ক ও প্রদর্শনীর জন্য অনুপযুক্ত প্রাণী হত্যা বা মেরে ফেলার জন্য সুনির্দিষ্ট আইন রয়েছে। আমাদের পাশ্ববর্তী দেশ ভারতেও রয়েছে এ ধরনের আইন।

তবে আশার কথা হলো বর্তমানে এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তর উদ্যোগী হয়ে উঠেছে। এসব প্রাণীর বেদনাহীন মৃত্যু সম্পন্ন করতে একটি খসড়া আইন চুড়ান্ত করা হয়েছে। সোমবার জাতীয় সংসদে মৎস ও প্রাণীসম্পদমন্ত্রী মোহাম্মদ ছায়েদুল হক এ তথ্য জানিয়েছেন।

রাইজিংবিডি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ