• শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ০২:১৮ পূর্বাহ্ন |

তারেক জিয়া কী করছেন, কী করতে পারবেন!

Roniগোলাম মাওলা রনি: তিনি যে এত দূর পর্যন্ত নামবেন তা আমি ভাবতেও পারিনি। সম্ভবত দেশবাসীও ভাবতে পারেননি। কিন্তু তিনি নেমেছেন, আশ্চর্যজনক ও অদ্ভুত সব কথা বলেছেন এবং সবাইকে হতবাক করে দিয়েছেন। তিনি জাতির জনকের কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনাকে তুই/তুমি করে সম্বোধন করেছেন। সম্প্রতি তিনি মালয়েশিয়া সফরে এসে এতসব কাণ্ড করে গেছেন। তার এই কর্ম সম্পর্কে যাদের দায়িত্ব ছিল সেই তারা অর্থাৎ তার পক্ষ বা বিপক্ষের লোকজন অজানা ও অজ্ঞাত কারণে টুঁ-শব্দটি করেননি। না আওয়ামী লীগের প্রথম সারির নেতৃবৃন্দ এ কাজের উপযুক্ত জবাব দেয়ার জন্য ঝাঁপিয়ে পড়েছেন, না বিএনপির নেতৃবৃন্দ তাদের নেতার এই কর্মকাণ্ড সমর্থন করে বক্তৃতা-বিবৃতি দিয়েছেন। তবে হ্যাঁ, বিএনপি ঘরানার বুদ্ধিজীবী সাংবাদিক শফিক রেহমান অবশ্য বিরাট এক নিবন্ধ লিখেছেন নয়া দিগন্ত পত্রিকায়।

আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে সক্রিয়ভাবে কোনো প্রতিক্রিয়া না জানানো হলেও দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা কিন্তু প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন ঠিকই। তিনি এক সংবাদ সম্মেলনে তারেক রহমান সম্পর্কে বিভিন্ন কথাবার্তা বলেন। এসব কথাবার্তার মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য হলোÑ জিয়াউর রহমানের হত্যাকাণ্ডের জন্য বেগম জিয়া ও তারেক রহমানকে রিমান্ডে নেয়া দরকার বা উচিত। তারেক রহমান কথা বলবেন এবং সেইসব কথার উত্তর স্বয়ং বঙ্গবন্ধুকন্যা দেবেন, এমনটিই চেয়েছিলেন তিনি। বাস্তবে হয়েছেও তাই। আর এমনটি যে হবে তা আমার মতো স্বল্পবুদ্ধির লোক টের পেয়েছিল বহু আগে। নয়া দিগন্তে গত ৬ মে চাণক্যের কৌশল বিএনপি সফল হবে তো! শিরোনামে লিখিত নিবন্ধে যেসব আশঙ্কার কথা ব্যক্ত করেছিলাম, বলতে গেলে তার পুরোটাই ইতোমধ্যে বাস্তবায়িত হয়েছে। কেবল বাড়তি হয়েছে জননেত্রীকে তুই/তুমি সম্বোধনটুকু। আমার ভয় হচ্ছে আগামী দিনে এ দেশের রাজনৈতিক শিষ্টাচারের ওপর আরো আঘাত আসবে এবং আরো নানা রকম সত্য, মিথ্যা ও বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রচারের মাধ্যমে মারাত্মক ধূম্রজাল সৃষ্টি করা হবে। এ বিষয়ে আরো বিস্তারিত বলার আগে বলে নিই, কেন আওয়ামী লীগ নেতারা তাদের নেত্রীর বিষয়গুলো নিয়ে দায়িত্বপূর্ণ আচরণ করেন না।

ঘটনার দিন তারেক রহমান সম্পাদিত একটি বইয়ের প্রকাশনা উৎসব চলছিল ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের হলরুমে। ওই এলাকা দিয়ে সচিবালয়ে আসছিলেন ’৯০-এর স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনের শীর্ষস্থানীয় এক ছাত্রলীগ নেতা। বইটির শিরোনাম সংবলিত এবং তারেক রহমানের ছবিসহ শত শত ডিজিটাল ব্যানার এবং হাজার হাজার মানুষের ভিড় দেখে ভদ্রলোকের মন খারাপ হয়ে যায়। তার মনে প্রশ্ন জাগে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায়! এর পরও যদি বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধুকে অবৈধ রাষ্ট্রপতি/প্রধানমন্ত্রী এবং জিয়াউর রহমানকে প্রথম রাষ্ট্রপতি বলার মতো লাখ লাখ মুখ অনবরত প্রচার করতে করতে জনমতকে বিভ্রান্ত করার সুযোগ পায়, তবে ভবিষ্যতে কী হবে? অন্য দিকে সরকার, দল এবং প্রশাসনের নাকের ডগায় এমন একটি বইয়ের প্রকাশনা উৎসব হলো এবং পরবর্তী সময়ে বিপণন হবে এবং লোকজন পড়বে, অথচ কেউ কোনো টুঁ-শব্দটি পর্যন্ত করল না! ভদ্রলোক মন খারাপ করে সচিবালয়ে গেলেন না, চলে এলেন আমার অফিসে।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় ভদ্রলোক আমার নেতা ছিলেন। তাকে তখনো যেরূপ সম্মান করতাম, এখনো করি তদ্রƒপ বা তার চেয়েও বেশি। কারণ, দলের প্রতি তার যে নিষ্ঠা, সততা ও ত্যাগ ছাত্রজীবনে দেখেছি, পরবর্তী জীবনে তিনি সেটা জলাঞ্জলি দেননি কোনো লোভ, লালসা বা অন্য কোনো কারণে। তিনি মুখ ভার করে বললেন কোথায় ছাত্রলীগ, যুবলীগ কিংবা স্বেচ্ছাসেবক লীগ! কোনো হানাহানি না করেও তো বইটির বিরুদ্ধে মিছিল-মিটিং করা যেত। সব কাজ যদি প্রশাসন দিয়ে করতে হয় কিংবা সব কাজের জন্য যদি নেত্রীর নির্দেশ প্রয়োজন হয় তবে এত লোকজন, পদ-পদবি, সংগঠন থেকে কী লাভ? তিনি বারবার দীর্ঘশ্বাস ছাড়ছিলেন এবং নিজের বিশ্ববিদ্যালয় জীবনের নেতৃত্বের সেই স্বর্ণালি দিনগুলো স্মরণ করছিলেন। দল, নেতা-নেত্রীদের সম্মান রক্ষার্থে কত কিছুই তো করেছেন। সব সময় নিজের বিবেক-বুদ্ধির সাহায্য নিয়েছেন, কারো আদেশের জন্য অপেক্ষা করেননি। তিনি আফসোস করে বললেন প্রশাসনের ওপর ভরসা করে কি দল চালানো যায়! প্রশাসন দিয়ে কেবল প্রতিপক্ষকে হয়রানি করা যায়, মোকাবেলা করা যায় না। নেতাকর্মীরা অতিমাত্রায় প্রশাসননির্ভর হওয়ার কারণে দলের নিজস্ব অন্তর্নিহিত শক্তি শূন্যের কোঠায় নেমে এসেছে। আল্লাহ না করুক, কোনো বিপদ এলে ওরা দৌড়াতেও পারবে না। কারণ, শরীরে চর্বি জমার কারণে একেকজনের পেট আর বুক এক হয়ে গেছে। দুই রান এত মোটা হয়েছে যে, পা দুটো কমপক্ষে এক হাত ফাঁক না করলে হাঁটতেই পারে না। কথাটি বলে তিনি উচ্চৈঃস্বরে হেসে উঠলেন আমিও তার সাথে তাল মেলালাম।

ভদ্রলোক চলে যাওয়ার পর আমি ভাবতে বসলামÑ আচ্ছা, যদি সত্যিই এমন দিনটি আসে যখন দলবাজ সরকারি কর্মকর্তারা আর আমাদের সমর্থন দেবেন না, বাংলাদেশের পুলিশ ও র‌্যাব কথায় কথায় আদিষ্ট হয়ে গুলি চালাবে না, প্রশাসন সবার প্রতি সমান আচরণ করবে তখন পরিস্থিতি কেমন হবে? আমরা কি তখনো এখনকার মতো প্রতিপক্ষকে সকালে-বিকেলে বাড়িছাড়া করতে পারব? আমার আশঙ্কা অবশ্যই পারব না; বরং স্বাভাবিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি থাকলে আমাদের প্রতিপক্ষরা এখন যতটুকু করছে তার কিয়দংশও আমরা করতে পারব না। আমার এই ভাবনার দুই পয়সার মূল্যও নেই ক্ষমতাবানদের কাছে। তারা বরং এসব কথা শুনলে আমাকে মস্তিষ্কবিকৃত এক অবোধ বালক হিসেবে আখ্যায়িত করে দূর দূর করে তাড়িয়ে দেবে। কাজেই ওসব দরকার নেই বাবা! আমি বরং তারেক জিয়াকে নিয়ে গবেষণা শুরু করি। দেখি আগামী দিনগুলোতে তিনি কী করতে পারেন এবং কী বলতে পারেন।

আমার মনে হয়, তারেক রহমান ইতোমধ্যেই বুঝে গেছেন তার দলের কার কতটুকু মুরোদ রয়েছে। তিনি এও জেনে গেছেন, দলের কার কার সাথে সরকারের বা আওয়ামী লীগের আঁতাত আছে। সব কিছু জানা সত্ত্বেও তিনি টুঁ-শব্দটি করতে পারছেন না এই কারণে যে দলটি যেকোনো মুহূর্তে ভেঙে যেতে পারে। আর আওয়ামী লীগ কায়মনোবাক্যে সেটাই চাচ্ছে অনেকটা জাতীয় পার্টি টাইপের একটি গৃহপালিত বিএনপি। কাজেই এ রকম একটি সন্দেহজনক পরিস্থিতিতে আন্দোলনের কর্মসূচি দেয়া কিংবা দলের সাংগঠনিক পর্যায়ে পরিবর্তনের কোনো সিদ্ধান্ত তিনি আপাতত নেবেন না। তিনি এমনটিও ভেবে রেখেছেন, হয়তো আগামী দিনে তার মা গ্রেফতার হয়ে গৃহবন্দী বা কারারুদ্ধ হতে পারেন। ক্ষমতাসীনেরা কোকো-কেন্দ্রিক একটি পৃথক বলয়ও সৃষ্টি করতে পারে। এত্তসব ঝক্কি-ঝামেলার মধ্যে তিনি হয়তো হাওয়ার ওপর মেওয়া ফলাতে চেষ্টা করতে পারেন। অনেকটা গোয়েবলসীয় কায়দায় তিনি নিম্নোক্ত পদক্ষেপ নিয়ে নিতে পারেন।

১. সংলাপের জন্য বিনয়ের সাথে কাতর মিনতি জানিয়ে তিনি নিজেদেরকে অতিশয় দুর্বল এবং আওয়ামী লীগের করুণার পাত্র হিসেবে প্রমাণের চেষ্টা করতে পারেন। এতে করে সরকারি দল আরো অহঙ্কারী ও অত্যাচারী হয়ে উঠবে। দলের ব্যাপারে উদাসীনতা দেখিয়ে রাজনীতি থেকে দূরে থাকার ভান করে কিছু গোপন কথাবার্তা নিজেদের লোকের কাছে বিশ্বাসযোগ্য করে উপস্থাপন করবেন। এসব বিশ্বস্ত লোক আবার তাদেরকে বিশ্বাস করাবেন, যারা নিয়মিত আওয়ামী লীগের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে চলছে। ফলে ক্ষমতাসীনেরা ২০৪১ সালের মাস্টারপ্ল্যান প্রস্তুত করে সেই সব কপির প্রুফ দেখার জন্য পাঠাবেন তাদের অনুগত খয়ের খাঁ বিএনপি নেতাদের কাছে। এ অবস্থায় আওয়ামী লীগে দেখা দেবে অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাস এবং জমিদারির মনোভাব। ফলে দলটিতে আত্মঘাতী হানাহানি, মারপিট, ভোগদখলের প্রতিযোগিতা এবং দুর্নীতি বহুগুণে বেড়ে যাবে।

২. আগামী দিনে তারেক জিয়া সরাসরি বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ করে বক্তৃতা-বিবৃতি দেবেন। ভাষাগুলো হবে খুবই জঘন্য প্রকৃতির। তিনি শেখ হাসিনা, বঙ্গবন্ধু ও জয়Ñ এ তিনজনকে নিয়েই সমালোচনা শুরু করবেন। কিন্তু সব কিছুর কেন্দ্রেই রাখবেন আওয়ামী লীগ নেত্রীকে। যেমনÑ জয়কে কোনো কথা সরাসরি না বলে বলতে পারেনÑ কেমন মা হয়েছ তুমি, সন্তানের কোনো কাজের খোঁজ নাও না। তুমি জানো ও কী করছে ইত্যাদি ইত্যাদি। আবার বঙ্গবন্ধুকে নিয়েও তার ঔদ্ধত্য বাড়তে থাকবে দিনকে দিন। বলতে পারেনÑ যে পিতাকে নিয়ে গর্ব করো, সেই পিতার আসল ঘটনা কতটুকু জানো? এসব কথার বিষবাষ্প অতি দ্রুত ডালপালা বিস্তার করে অনেক কিছুই গ্রাস করে নেবে। যদি আওয়ামী লীগ কূটনৈতিক দক্ষতায় জয় লাভ করতে না পারে তবে এসব প্রপাগান্ডা অদূর ভবিষ্যতে মারাত্মক সব সমস্যার সৃষ্টি করবে। বঙ্গবন্ধু পরিবারে বিভাজন সৃষ্টির জন্য তিনি হয়তো হঠাৎ করে শেখ রেহানা বা শেখ সেলিমের প্রশংসা করে ফেলতে পারেন। অন্য দিকে শেখ হেলাল, লিটন চৌধুরী, নিক্সন চৌধুরী, তাপসসহ অনেককে হুটহাট টেলিফোন করেও বসতে পারেন। আর এসব টেলিফোনের খবরাখবর ফলাও করে প্রচারের ব্যবস্থা না করে তিনি কিছুতেই ছাড়বেন না।

৩. ফেয়ার ফ্যাক্সের মতো গোয়েন্দা সংস্থা, যারা ব্যক্তিগত ভাড়াটিয়া গোয়েন্দা হিসেবে সারা দুনিয়ায় আধুনিক শার্লক হোমসের মতো। এসব সংস্থার কোনো একটির সাথে ঘটা করে দেখাসাক্ষাৎ করতে পারেন আওয়ামী লীগের নেতাদের দেশী-বিদেশী সম্পদ, বউ-ছেলেমেয়ে, বাড়িঘর কিংবা গোপন প্রণয়িনীর সন্ধান লাভের জন্য। মিডিয়াতে এগুলো ফলাও করে প্রচার হওয়ার পর অনেকেরই কাপড়চোপড় নষ্ট হয়ে যাবে। মুখে তালা মেরে তারা সারা দিন ইয়া নফসি, ইয়া নফসি জপতে থাকবে। এই সুযোগে তিনি যদি কারো বিরুদ্ধে একটি প্রমাণ হাজির করেন এবং সাথে ১০টি গুজব যুক্ত করে বাতাসে বোমা ফাটিয়ে দেন, তাহলে চার দিকে হৈ হৈ রৈ রৈ কাণ্ড ঘটে যাবে। ভারতে বোফোর্স অস্ত্র কেলেঙ্কারিতে রাজিব গান্ধীর মসনদ যেভাবে কেঁপে উঠেছিল, তেমনি মারিয়া মমতাজের ঘটনা দিয়েই কিন্তু এরশাদের পতন হয়েছিল।

জামায়াতের দুর্ভাগ্য তাড়া করেছিল লন্ডনের একটি টেলিভিশন রিপোর্ট প্রকাশের পর। তেমনি ড. ইউনূসের মসনদে কাঁপন ধরেছিল একটি নরওয়ের টিভি কর্তৃক সংবাদ প্রকাশের পর। এসব বিষয় মাথায় রেখে তিনি আওয়ামী লীগের জাতশত্রু আলজাজিরা, সিএনএন, সিবিএস, পাকিস্তানের জিও টিভি এবং ভারতের এনডি টিভির সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করবেন। প্রথম কাজ হবে তার নিজের একটি সাক্ষাৎকার ওইসব টিভিতে প্রকাশ করা। তারপর অন্য কিছু।

৪. ইতোমধ্যেই তার কাছে সেসব তথ্য হয়তো চলে এসেছে, যা দিয়ে আওয়ামী লীগের বিদ্যমান সন্দেহ ও অবিশ্বাসের আগুনে ঘি ঢালা যাবে। আওয়ামী লীগের কোন কোন নেতার সাথে তার প্রয়াত পিতার কী কী কথা হয়েছিল, কে কত টাকা বা কী ধরনের সুযোগ নিয়েছিল, কে কে মন্ত্রিপরিষদে যোগদানের জন্য দুই পায়ে দাঁড়ানো ছিল, কে কে এক পায়ে খাড়া ছিল? আওয়ামী লীগকে শেষ করার জন্য কোন কোন নেতা রাতের আঁধারে তৎকালীন সরকারের কর্তাব্যক্তিদের সাথে মিলিত হতো এবং কী কী কথা বলতÑ এসব যদি ধীরে ধীরে প্রকাশ করতে থাকেন তাহলে অনেকের জন্যই তা বিব্রতকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করবে।
১/১১-এর প্রেক্ষাপট থেকেও তিনি ফায়দা নেয়ার চেষ্টা করবেন। এ কথা সবাই জানে যে মাসুদ উদ্দিন চৌধুরীরা যেমন তার বিরুদ্ধে ছিল, তেমনি মাসুদ-বিরোধীরাও তার পক্ষে ছিল। জেনারেল মইনের সাথে তার সম্ভবত কয়েক দফা কথাবার্তা হয়েছে। সেসব কথাবার্তার অডিও রেকর্ড বা অন্য কোনো প্রমাণ হাতে রেখে তিনি একাধিক তথ্যের বোমা ফাটাতে পারেন। বলতে পারেন, আওয়ামী লীগের কোন কোন নেতা ১/১১-এর সময় কী করেছেন, কী বলেছেন এবং এখন কী করছেন। দলীয় সভানেত্রীর বিরুদ্ধে তাদের নানা রকম আপত্তিকর কটূক্তি, অভিযোগ এবং তাকে প্রাণে মেরে ফেলার জন্য একাধিকবার তৎকালীন কুশীলবদেরকে অনুরোধ করার সচিত্র চিত্র যদি জাতির সামনে প্রকাশ হয়ে যায়, তবে তা সামাল দেয়া সত্যিকার অর্থেই কষ্টকর হবে।

৫. তিনি যেকোনো মূল্যে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সাথে সাক্ষাতের চেষ্টা চালাবেন। এ ক্ষেত্রে আরব বিশ্বে এবং চীনে তার দলের লবিং ব্যবহার করবেন। এমনকি টেলিফোন সংলাপ করতে পারলেও তিনি নিজেকে সফল ভাববেন। তিনি দুবাই, কাতার, সৌদি আরব, কুয়েতসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে কর্মরত বাংলাদেশীদের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে সরব হবেন এবং প্রবাসীদের সুখ-দুঃখ নিয়ে আশার বাণী শোনাবেন। তার এসব কর্মকাণ্ড প্রচার ও প্রসারের জন্য তিনি অনলাইনের বিভিন্ন সোস্যাল মিডিয়া ব্যবহার করবেন এবং চৌম্বক অংশটুকু প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মাধ্যমে প্রচার করবেন।

৬. শেয়ার মার্কেট কেলেঙ্কারি নিয়ে তিনি সর্বোচ্চ চেষ্টা-তদবির করবেন। এই মার্কেট থেকে লুট হওয়া অর্থ কিভাবে বাংলাদেশ থেকে সিঙ্গাপুর, তারপর কেনিয়া হয়ে কিভাবে লন্ডন এলো সে গল্প সুন্দর করে তৈরি করবেন। শেয়ার মার্কেটের টাকায় লন্ডন, নিউ ইয়র্ক, নিউজার্সি, মেরিল্যান্ড, ভার্জিনিয়া, লাস ভেগাস, মিশিগানসহ কানাডার কোন কোন শহরে কয়টি বাড়ি হলো এবং এসব বাড়ির মালিকদের ইতিকথা নিয়েও তিনি নাটক রচনা করতে পারেন। শেয়ার মার্কেট কেলেঙ্কারির নায়কের সাথে এত কিসের খাতির, এসব কথা বলতে বলতে তিনি তার সীমা ছাড়িয়েও যেতে পারেন। তার পরিবার-পরিজন নিয়ে অতীতে যেসব বাজে কথা বাজারে ছড়ানো হয়েছে, সেসব কথার সাথে পাল্লা দিয়ে তিনিও নিত্যনতুন সাসপেনস তৈরির চেষ্টা করবেন।

সাম্প্রতিক সময়ে মুক্তিযোদ্ধাবিষয়ক মন্ত্রণালয় কর্তৃক সোনার মেডেল থেকে সোনা চুরির প্রসঙ্গ নিয়ে তিনি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তৎকালীন মন্ত্রীকে জড়িয়ে ফেলবেন। তারপর তথ্যপ্রমাণ সহকারে সোনার পেছনে আর কোন কোন সোনার ইন্ধন রয়েছে এবং সেই সোনার মূল্যবান ধাতু কিভাবে খাদযুক্ত হয়ে লন্ডেন গেল তা নিয়ে রসালো রচনা প্রকাশ করবেন।
৭. হলমার্ক কেলেঙ্কারিকে তিনি বাংলাদেশ থেকে নিউ ইয়র্কের জ্যাকসন হাইটসে নিয়ে যাবেন। সেখানে বাংলাদেশের একটি জাতীয় ব্যাংকের চেয়ারম্যান পদধারী অর্থনীতিবিদ কেন এবং কোন কারণে হলমার্কের তানভীরের সাথে একত্রে ঘোরাফেরা করেছেন সেই কাহিনী বলবেন। ওই সময় কয়েকজন সাংবাদিক, একজন প্রতিমন্ত্রী এবং নিউ ইয়র্কের জাতিসঙ্ঘ মিশনে কর্মরত এক বাঙালি কর্তা কেন তানভীরের টাকায় ভর্তা খেত, তা নিয়ে চটুল চটুল কথাবার্তা ছাড়বেন।

তার জীবন যেভাবে খাম্বার সাথে একাকার করে দেয়া হয়েছে, তেমনি কুইক রেন্টাল, পদ্মা সেতু, ঢাকা-চট্টগ্রাম হাইওয়ে, ঢাকা-জয়দেবপুর, গাজীপুর হাইওয়ে, বেসিক ব্যাংক কেলেঙ্কারির সাথে একীভূত নায়ক-নায়িকাদের রঙ্গরসের নানা কাহিনী রচনা করতে তার চেষ্টা-তদবিরের কোনো ঘাটতি থাকবে না।

জনাব তারেক জিয়া তার কর্মকাণ্ড দিয়ে একের পর এক ধূম্রজাল সৃষ্টির চেষ্টা চালাবেন। এতে করে তার দলের কতুটুকু উপকার হবে তা আমি বলতে পারব না। তবে রাজনীতির ক্ষতি হবে অনেক। দেশীয় রাজনীতিতে ইদানীংকালের অশ্লীলতা হাল আমলের ঢাকাই ছবির শিরোনাম যথাÑ খাইছি তোরে, মাইরা ফ্যালামু, ইন্দুর যখন বান্দর ইত্যাদি ডিপজল মার্কা ডায়ালগ (এতই অশ্লীল যে লিখতে পারলাম না) এবং ময়ূরী মার্কা দেহকেও অতিক্রম করেছে। সেই নোংরা রাজনীতি আগামী দিনে যে আরো নোংরা হচ্ছে তার ইঙ্গিত আমরা পেয়েছি জনাব তারেক জিয়ার সাম্প্রতিক মালয়েশিয়া সফরের মাধ্যমে। এতে করে তিনি বা তার দল কি আসলেই পার পাবেন! দেখা যাক, শেষ পর্যন্ত ঢাকাইয়া রাজনীতির অশ্লীল নৃত্য এবং কুরুচিপূর্ণ সংলাপ কতটুকু নিচে নামতে পারে!

উৎসঃ   নয়াদিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ