• বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ০২:৩৭ পূর্বাহ্ন |

নীলফামারীতে জিং সমৃদ্ধ আমন ধানের বীজ বিতরন

Nil.নীলফামারী প্রতিনিধি: চলতি আমন মৌসুমে নীলফামারী জেলায় জিং সমৃদ্ধ ধানের উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষে চাষীদের মাঝে বিনামূল্যে ব্রি৬২ জাতের ধানের বীজ বিতরন করেছে আরডিআরএস বাংলাদেশ। বীজ বিতরন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি নীলফামারী জেলার কৃষি সম্প্রসারন অধীদপ্তরের উপ-পরিচালক এস এম সিরাজুল ইসলাম অনুষ্ঠানে জানান, প্রতি বছর যে পরিমান খাদ্য উৎপাদন হয় তাদিয়ে জেলার চাহিদা পুরন করেও দেশের অন্যন্য জেলায় চলে যায়।
কিন্তু জেলায় অনেক শিশু ও গর্ভবতী মা জিং এর অভাবে ভুগছেন। বাংলাদেশের ৪০ ভাগ শিশু যাদের বয়স ৫ বছরের নিছে তারা অপুষ্টিতে ভুগছে এবং তাদের মধ্যে ৪৪ ভাগ শিশু জিং স্বল্পতায় ভুগছে। এছাড়াও ৬০ ভাগ মহিলাও জিংক স্বল্পতা জনিত রোগে ভুগছে। যেহেুত ধান আমাদের প্রধান খাদ্য তাই জিং সমৃদ্ধ ধান এর চাষ বৃদ্ধি করে এর ভাত খেয়ে জিং এর ঘাটতি পুরন করা সম্ভব্য। তিনি আরো জানান আমন মৌসুমের সকল জাতের মধ্যে এটি সবচেয়ে স্বল্প মেয়াদি যা বীজ বপন থেকে শুরু করে ধান কর্তন পর্যন্ত ১০০ দিন সময় লাগে। যার কারনে এ ধান কর্তনের পর আগাম আলু, সরিষা সহ অন্যান্য রবি শস্য সহজেই করা সম্ভব।
আরডিআরএস বাংলাদেশ এর সিনিয়র কৃষি কর্মকর্তা মোঃ নাসির উদ্দিন জানান, নীলফামারী জেলা জলঢাকা, কিশোরগঞ্জ, ডোমার এবং সদর উপজেলায় ১৫০ জন কৃষকের মাঝে ৩ কেজি করে এবং ৫০ জন কৃষকের মাঝে ৫ কেজি করে ব্রি৬২ জাতের জিং সমৃদ্ধ ধানের বীজ বিতরন করা হয়। এছাড়াও ৫ কেজি করে বীজ পাওয়া সকল কৃষকদের প্রশিক্ষন ও সার প্রদান করা হবে। হারভেষ্ট প্লাস বাংলাদেশ এর অর্থায়নে এ প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হচ্ছে। নীলফামারী সদর উপজেলার কুন্দপুকুর ইউনিয়নের কৃষক মোঃ মমিনুর রহমান জানান, একই সাথে ভাতও হবে এবং জিং এর অভাব দুর হবে এজন্যই আমি এবার এই ধান আবাদ করছি। অনুষ্ঠানে অন্যান্যর মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন আরডিআএস বাংলাদেশ এর কর্মসূচি সমন্বয়কারী খ ম রাশেদুল আরেফীন, এসএফপি এর প্রকল্প সমন্বয়কারী মোঃ আমিনুল ইসলাম ও নীফামারী জেলার বিভিন্ন উপজেলা হতে আগত কৃষকবৃন্দ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ