• সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ১০:৩৭ পূর্বাহ্ন |

পাশ্চাত্যকে ধমকাতেই চীনের সঙ্গে প্রণয়: আলজাজিরা

Hasinaসিসি ডেস্ক: ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের বিরুদ্ধে পশ্চিমা বিশ্ব সরব হওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চীনের সঙ্গে গভীর সম্পর্ক গড়ে তোলার প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন।

প্রভাবশালী টিভি স্টেশন আলজাজিরার এক প্রতিবেদনে সোমবার এমন মন্তব্যই করা হয়েছে।

‘বাংলাদেশ ঊস চায়না ইন স্নাব টু ওয়েস্ট (পাশ্চাত্যকে ধমকানির জন্য চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের প্রণয়)’শিরোনামে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়,সম্প্রতি চীন সফরকালে শেখ হাসিনা ‘চীন নেতৃত্বাধীন শতাব্দীতে’ বেইজিংয়ের সক্রিয় অংশীদার হওয়ার প্রতিশ্র“তি দিয়েছেন।

তবে চীনের সঙ্গে সম্পর্কের ব্যাপারে সতর্ক দৃষ্টি রাখছে ভারতের মোদি সরকার।

চীন, জাপান ও রাশিয়া ঐতিহ্যগতভাবে কোনো দেশের সরকারের বৈধতা নিয়ে মাথা ঘামায় না।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক মুহাম্মদ শহীদুজ্জামান বলেন, ‘ এই সফরের ফলাফল সম্পর্কে নয়াদিল্লি স্বাভাবিকভাবেই সন্দিহান। তবে তারা বুঝতে পারছে যে চীনের অর্থনৈতিক সহায়তা ছাড়া বর্তমান সরকার টিকতে পারবে না।

গত ৪০ বছর ধরেই চীনের সঙ্গে গভীর সম্পর্ক বজায় রেখে চলেছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা ক্রয়, যোগাযোগ ও অবকাঠামো প্রকল্পের অন্যতম অংশীদার চীন।
তবে ঢাকার পররাষ্ট্র সম্পর্কের বিশেষজ্ঞরা বলছেন, চীনে শেখ হাসিনার এবারের সফরের উদ্দেশ্য সেসব দেশের সাথে সম্পর্ক উন্নয়ন করা যাদের পশ্চিমাদের মত সরকারের বৈধতা নিয়ে কোনো মাথাব্যথা নেই। এর মধ্যে রয়েছে চীন, জাপান ও রাশিয়া।
সম্প্রতি শেখ হাসিনা জাপান সফর করেছেন এবং সেখানে বেশ কয়েকটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে।

এছাড়া তিনি রাশিয়া সফরকালে দেশের প্রথম পরমাণু বিদ্যুত এবং শত কোটি ডলারের অস্ত্রক্রয় চুক্তি স্বাক্ষর করেছেন।
গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচন নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের সমালোচনার জবাবে শেখ হাসিনার সরকার কৌশলগত এই উদ্যোগ নিয়েছে।

ওই নির্বাচন বর্জন করে বিরোধী দল।

ব্যাপক সহিংসতা ও জালিয়াতির ওই নির্বাচনকে ‘বিশ্বাসযোগ্য নয়’ বলে মন্তব্য করেছে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন।

এছাড়া ওয়াশিংটন দক্ষিণ এশিয়ার এই দেশটির মানবাধিকার লঙ্ঘনের কড়া সমালোচনা করছে।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, ৫ জানুয়ারির সংসদ নির্বাচনে পর শেখ হাসিনার কৌশলও সীমিত হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নের কথা বললে। চীন বাংলাদেশের সরকার ব্যবস্থা নিয়ে ততোটা মাথা ঘামায় না।

অধ্যাপক শহীদুজ্জামান বলেন, ‘টিকে থাকার জন্য বাংলাদেশের বর্তমান সরকার বৈধতার পেছনে ছুটছে।’

তিনি বলেন, চীন, জাপান ও রাশিয়া গত নির্বাচনের ফলাফল বাংলাদেশের সরকার ব্যবস্থা নিয়ে মাথা ঘামায় না বলে এসব দেশের সাথে আগামী দিনে সম্পর্ক উন্নত হতে পারে।

নয়াদিল্লির সতর্ক দৃষ্টি

তবে চীনের সাথে শেখ হাসিনার এই সম্পর্ক উন্নয়নের ব্যাপারে সতর্ক দৃষ্টি রাখবে নয়াদিল্লি। বিশেষ করে সোনাদিয়ায় গভীর সমুদ্রবন্দর হলে চীনের জ্বালানি আমদানি সহজ হবে এবং বঙ্গোপসাগরে চীনের প্রবেশাধিকার বাড়বে।
তবে ভারতও এই বন্দর ব্যবহার করতে পারবে।
অধ্যাপক শহীদুজ্জামান বলেন, ভারতও হয়তো উত্তরাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোর পণ্য পরিবহনে সোনাদিয়া সমুদ্রবন্দর ব্যবহার করার সুযোগ চাইবে।
এছাড়া বাংলাদেশ বিরোধী কড়া সুর নিয়ে মোদি সরকার হয়তো বাংলাদেশের ভেতর তিয়ে ট্রানজিট পাবার জন্য আগ্রাসীভাবে চাপ দিবে

এদিকে ২৫ জুন থেকে তিন দিনের সফরে ঢাকা আসছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ