• বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ০২:৩৬ পূর্বাহ্ন |

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে আওয়ামী লীগের আত্মসমালোচনা কই?

Gaffarআবদুল গাফ্ফার চৌধুরী: বাংলাদেশে বড় রাজনৈতিক দল দুটি। আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। গতকাল (সোমবার) ২৩ জুন আওয়ামী লীগ তার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করেছে। তার বয়স হয়েছে ৬৫ বছর। ভারতের প্রধান দুটি দল কংগ্রেস ও বিজেপির মধ্যে চরিত্রগত পার্থক্য যেমন দ্রুত কমছে, তেমনি বাংলাদেশেও আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে চরিত্রগত পার্থক্য এখন আর খুব একটা আছে বলে মনে হয় না। ঘোষিত নীতির ক্ষেত্রে তাদের পার্থক্যের কথা বলা হয়। যেমন আওয়ামী লীগ দাবি করে, সে অসাম্প্রদায়িক দল এবং তার লক্ষ্য সেক্যুলার বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করা। তেমনি বিএনপিও দাবি করে তারা অসাম্প্রদায়িক দল। কিন্তু তাদের নীতি ও কার্যক্রম সাম্প্রদায়িকতায় ভরা। ক্ষমতায় গেলে দেখা যায়, দুই দলের কার্যক্রম প্রায় অভিন্ন। শুধু স্লোগান ভিন্ন।

আওয়ামী লীগের রাজনীতির এই ক্রমবর্ধমান অবক্ষয় সত্ত্বেও দেশের মানুষ আওয়ামী লীগের কাছ থেকে অনেক বেশি কিছু আশা করে। কারণ আওয়ামী লীগের জন্ম সামরিক ছাউনিতে নয়। এক ব্যক্তির ক্ষমতার লালসা থেকে বিএনপির মতো তার জন্ম নয়। তার জন্ম আমজনতার ইচ্ছায় এবং বিকাশ অনেক আন্দোলন ও সংগ্রামের মধ্য দিয়ে। দেশের স্বাধীনতাসংগ্রামেও নেতৃত্বদানের কৃতিত্ব এ দলটির। এই দলটির নেতা ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মতো একজন ‘গ্রেট লিডার’। এবং এখনো এই দলের নেত্রীপদে ও দেশের প্রধানমন্ত্রী পদে অধিষ্ঠিত আছেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা।

সুতরাং এই দলটির কাছে দেশের মানুষের প্রত্যাশা অনেক বেশি। এবং যখনই দলটি তাদের প্রত্যাশার অনেক দিক পূর্ণ করতে পারে না, তখন তারা হতাশ হয় এবং দলটির প্রতি ক্ষুব্ধ হয় বেশি। বিএনপির কাছে মানুষের প্রত্যাশা অনেক কম। তারা জানে, এই দলটির জন্ম কিছু দলছুট সুযোগসন্ধানী মানুষ নিয়ে এক ব্যক্তির ক্ষমতার লালসা পূর্ণ করার জন্য। মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ ও দেশপ্রেমের চেয়ে তাদের কাছে দলীয় স্বার্থ ও ক্ষমতা হচ্ছে বড়। ক্ষমতায় গিয়ে দুর্নীতি ও সন্ত্রাসের হাওয়া ভবন তৈরি, হত্যার রাজনীতির বিস্তার, স্বাধীনতাবিরোধী শক্তিকে ক্ষমতার শরিক করা, ‘বাংলাভাইদের’ প্রশ্রয় দেওয়া ইত্যাদি ছাড়া বিএনপির ভাণ্ডারে অর্জন কিছু নেই।

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে আওয়ামী লীগের আত্মসমালোচনা কই?

এদিক থেকে আওয়ামী লীগের অর্জন অনেক। এখনো আওয়ামী লীগ সরকারের হাতে উন্নয়নের অনেক ফসল। কিন্তু বোকার ফসল যেমন পোকায় খায়, তেমনি আওয়ামী লীগ সরকারের সব উপার্জনও দলের ভেতর গড়ে ওঠা এক শ্রেণির মন্ত্রী, এমপি ও নেতার মাফিয়াতন্ত্রের হাতে লুট হয়ে যাচ্ছে। পরিবারতন্ত্রের সঙ্গে মাফিয়াতন্ত্রের যোগ হলে যে সর্বনাশ হয়, বাংলাদেশে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে সেই যোগ ঘটায় দেশটি এত উন্নয়ন সত্ত্বেও আর্থসামাজিক ও রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার দিকে এগোতে পারছে না। একটি অসাধু ও অদক্ষ আমলাতন্ত্র দেশটির ঘাড়ে চেপে বসেছে। দেশের সবচেয়ে প্রিভিলেজ্ড্ শ্রেণি সেনাবাহিনী। তাদের আর প্রত্যক্ষভাবে দেশ শাসনের দরকার নেই। কারণ পলিটিক্যাল কালচারের চেয়ে সামরিক কালচারের প্রাধান্যই এখন দেশের প্রশাসনে বেশি দেখা যায়। এই প্রাধান্য রক্ষায় আওয়ামী লীগ ও বিএনপি এই দুই দলই সমান তৎপর।

আগেই বলেছি, ভারতে কংগ্রেস ও বিজেপির মধ্যে ঘোষিত নীতির যতই পার্থক্য থাক, অঘোষিত কার্যক্রমে তাদের মধ্যে পার্থক্য কম। তেমনি বাংলাদেশে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মধ্যে ঘোষিত নীতি ও লক্ষ্যের ব্যাপারে বিরাট পার্থক্যের কথা বলা হলেও দুর্নীতি ও সন্ত্রাস লালনে, সন্ত্রাসীদের গডফাদারদের আশ্রয়দানে, দলের ভেতর মাফিয়াতন্ত্র পালনে দুই দলই সমান পারদর্শিতা প্রদর্শন করছে। আওয়ামী লীগ এখন ক্ষমতায়। তাই এই সরকারের ত্রুটিগুলোই সবার চোখে বড় হয়ে উঠেছে। এর ওপর আওয়ামী লীগের দোষত্রুটি-ব্যর্থতাগুলোই দেশের মানুষের চোখে পড়ে বেশি। কারণ আওয়ামী লীগ ও বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার কাছে তাদের প্রত্যাশা অনেক অনেক বেশি। সেই প্রত্যাশায় যখন আঘাত পড়ে, তখন তারা বিএনপির চেয়েও আওয়ামী লীগের ওপর ক্ষুব্ধ হয় এক শ গুণ বেশি এবং এই ক্ষোভেরই বহিঃপ্রকাশ ঘটছে দেশের সাম্প্রতিক নির্বাচনগুলোতে।

আওয়ামী লীগের এবারের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে আশা করা গিয়েছিল, দলটি আত্মসমালোচক হবে, আত্মবিশ্লেষণ করবে। নিজেদের দোষত্রুটিগুলো খুঁজে বের করবে এবং তা সংশোধনের জন্য বলিষ্ঠ কার্যক্রম গ্রহণ করবে। দেশের এত উন্নয়ন ও অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি ঘটা সত্ত্বেও দেশের মানুষ কেন আওয়ামী লীগের প্রতি বিমুখ এর কারণ খুঁজে বের করে অবিলম্বে প্রতিকারের ব্যবস্থা করবে। আমাদের অনেকের এই আশা পূর্ণ হয়নি। বরং প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সভাগুলোতে আওয়ামী লীগ সরকারের বড় বড় সাফল্য ও জননেত্রীর যত বন্দনা গাওয়া হয়েছে, তাতে মনে হয় দলের শীর্ষ নেতারাও তাঁদের বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে সম্যক অবহিত নন। সচেতন তো ননই।

আওয়ামী লীগ ও আওয়ামী লীগ সরকারের সামনে বর্তমানে মোটা দাগের সমস্যাগুলো কী? সেগুলো কি তারা চিহ্নিত করতে পারছে না? এক, আওয়ামী লীগ সরকারের এত উন্নয়নমূলক কার্যক্রম, তার খবর জনগণের কাছে পৌঁছে দেওয়ায় মতো শক্তিশালী প্রচারযন্ত্র নেই। গণমাধ্যমগুলোর সঙ্গেও সরকারের সম্পর্ক ভালো নয়। অধিকাংশ গণমাধ্যম যেকোনো কারণেই হোক সরকার সম্পর্কে ‘হস্টাইল’। দুই, সংগঠন এত দুর্বল ও আত্মকলহে জর্জরিত যে জনগণের কাছে দল ও সরকারের কার্যক্রম সঠিকভাবে তুলে ধরতে পারছে না। এক শ্রেণির মন্ত্রী, এমপি ও নেতার দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতি এমন চরমে পৌঁছেছে যে এলাকার মানুষ তাদের প্রতি অতিমাত্রায় বিমুখ। ফলে দলটির জনবিচ্ছিন্নতা বাড়ছে। তিন, মানুষের ধারণা, সন্ত্রাস ও দুর্নীতির অধিকাংশ গডফাদারই এখন আওয়ামী লীগে রয়েছে। দেশে গুম-খুনের সংখ্যা তাই বাড়ছে। পুলিশ ও প্রশাসন সমাজ-শত্রুদের বিরুদ্ধে সব সময় ব্যবস্থা নিতে পারছে না। নারায়ণগঞ্জের সেভেন মার্ডারের পর স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী কেন একটি পরিবারের পক্ষে কথা বলতে গেলেন, তা আমি জানি না। এই পরিবারের শামীম ওসমান হয়তো ভালো লোক। কিন্তু তাঁর পাবলিক ইমেজ ভালো নয়। প্রধানমন্ত্রী তাঁকে এক শ্রেণির মিডিয়ার উইচ হান্টিং থেকে রক্ষা করার ব্যবস্থা করুন, তাতে দোষের কিছু নেই। কিন্তু তাঁর পক্ষে সংসদে দাঁড়িয়ে কথা বলার দরকারটা কী? তাতে তো জনমতকে আরো উসকে দেওয়া হলো। প্রধানমন্ত্রীর নিজের ভাবমূর্তিও ক্ষুণ্ন হলো। দেশের সব মানুষকে নিরাপত্তা দান প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব। তিনি কেবল একটি পরিবারের নিরাপত্তার কথা ভাববেন কেন? চার, একাত্তরের যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ও দণ্ডদান ঝুলে পড়ায় স্বাভাবিকভাবেই জনমনে সন্দেহ জেগেছে যে জামায়াত ও হেফাজতিদের সঙ্গে সরকারের কোনো ধরনের সমঝোতা হয়েছে। এই সন্দেহ বাড়তে দেওয়া ঠিক নয়। একটা কথা আওয়ামী লীগ নেতাদের স্মরণ করিয়ে দিতে চাই যে মাদ্রাসার মঞ্জুরি বাড়িয়ে, হেফাজতিদের বিস্তর জমিজমা দিয়ে, মৌলবাদীদের তোয়াজ করে এই দল নির্বাচনে ধর্মীয় রাজনীতির শিবিরের একটি ভোটও পাবে না। তাদের ভোটব্যাংক আমজনতাই। মৌলবাদীদের সঙ্গে আপসবাদী কার্যক্রম দ্বারা আওয়ামী লীগ যেন এই আমজনতার মধ্যেও তাদের সম্পর্কে সন্দেহ ও ক্ষোভ না বাড়ায়। এই আমজনতা একাত্তরের যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ও দণ্ডদান দেখতে চায়। পাঁচ, সংখ্যালঘু সম্প্রদায়গুলোর মধ্যে আওয়ামী লীগের সমর্থনের শিকড় ছিল শক্ত। তা এখন ক্রমেই দুর্বল হচ্ছে। সংখ্যালঘুরা দেখছে, আওয়ামী লীগকে নির্বাচনে ভোট দিয়ে তারা বিএনপি-জামায়াতের অত্যাচার থেকে বাঁচতে পারছে না। আওয়ামী লীগ তাদের নিরাপত্তা দিতে পারছে না। বরং বিএনপিকে ভোট দিলে তারা অত্যাচারিত হবে না; স্বস্তিতে দেশে থাকতে না পারুক, কিছুটা নিরাপদে থাকবে। এই ধারণা থেকে সংখ্যালঘুদের মধ্যে এখন গয়েশ্বর রায়দের সংখ্যা বাড়ছে। এই সংখ্যালঘু ভোট ক্রমাগত হারাতে থাকলে আওয়ামী লীগের পক্ষে আগামী দিনে কোনো নির্বাচনে বিএনপি অথবা বিএনপি-জামায়াতকে মোকাবিলা করা অসম্ভব হয়ে দাঁড়াবে।

আওয়ামী লীগের জন্য সবচেয়ে আশঙ্কার কথা, গত সাধারণ নির্বাচনের আগে ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখিয়ে তরুণ প্রজন্মের মধ্যে আওয়ামী লীগ যে বিরাট সাড়া জাগিয়েছিল ও তাদের ভোট পেয়েছিল, আওয়ামী লীগের জন্য সেই সাড়া ও সমর্থন এখন তরুণ প্রজন্মের ভোটদাতাদের অধিকাংশের মধ্যে নেই। এর একটি বড় কারণ, একাত্তরের যুদ্ধাপরাধীদের বিচারকে কেন্দ্র করে তরুণ প্রজন্ম যে বিরাট গণজাগরণ মঞ্চ গড়ে তুলে গণ-আন্দোলনের জোয়ার তৈরি করেছিল; কৌশলে সরকার কর্তৃক সেই জাগরণটিকে ব্যর্থ করে দেওয়া। সরকারের জন্য এই আন্দোলনটি ছিল একটি বিরাট হেলপিং হ্যান্ড। সরকার নিজেই সেই হাতটি গুঁড়িয়ে দিয়েছে। জনগণের ধারণা, গণজাগরণ মঞ্চ ভেঙে দিয়ে সরকার ভেবেছে তারা জামায়াতি ও হেফাজতিদের সন্ত্রাস সৃষ্টি থেকে নিবৃত্ত রাখতে পারবে! এই আশা পূর্ণ হওয়ার নয়।

এ কথা সত্য, গণজাগরণ মঞ্চের ভেতর আওয়ামী লীগবিরোধী উসকানিদাতারা ঢুকেছিল। তাদের মধ্যে সিপিবির হতাশ নেতারা, ড. ইউনূস, ড. কামাল হোসেন, সিরাজুল আলম খান প্রমুখ ছিলেন বলে শোনা যায়। তাঁরা আন্দোলনটিকে হাইজ্যাক করে আওয়ামী সরকারের বিরুদ্ধে নিয়ে যাবেন ভেবেছিলেন। অর্থাৎ নিজেরা যা করতে পারছেন না, তা গণজাগরণ মঞ্চকে দিয়ে করাবেন। এই অভিযোগ সত্য হলে সরকারের উচিত ছিল, এই পলিটিক্যাল অরফানদের রাজনৈতিক চক্রান্ত ব্যর্থ করা; গণজাগরণ মঞ্চকে বিভক্ত ও ব্যর্থ করা নয়। সরকারের এই কৌশল স্বাধীনতার শত্রু শিবিরের শক্তি বৃদ্ধি করেছে; স্বাধীনতার পক্ষের এবং আওয়ামী লীগের শক্তি ও তরুণ প্রজন্মের মধ্যে সমর্থন ব্যাপকভাবে হ্রাস করেছে।

পঁচাত্তরের ট্র্যাজেডির দীর্ঘকাল পর অনেক অসত্য ও মিথ্যা প্রচারণায় বূ্যহ ভেদ করে যে তরুণ প্রজন্ম আবার একাত্তরের চেতনাকে ধারণ করে জেগে উঠেছিল, তাদের জাগরণ কাজে না লাগিয়ে ব্যর্থ করে দিয়ে আওয়ামী লীগ একটা বড় ভুল করেছে। এর খেসারত তাকে ভবিষ্যতেও দিতে হবে। তরুণ প্রজন্মের মধ্যে এ ছাড়া রয়েছে সরকারবিরোধী অসন্তোষ ও ক্ষোভ। শিক্ষাঙ্গন থেকে সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য দূর করা, শিক্ষিত তরুণ, বেকারদের সংখ্যা হ্রাস করা এবং তাদের ভবিষ্যতের স্বপ্ন বাস্তবায়নে সাহায্য জোগাতে সরকারের নৈরাজ্যজনক অবহেলা অথবা ব্যর্থতা আওয়ামী লীগের প্রতি তরুণ প্রজন্মের এক বিরাট অংশকে বিমুখ করে তুলছে। দেশে তরুণ প্রজন্মের ভোটদাতাদের সংখ্যা দ্রুত বাড়ছে। কিন্তু তাদের মধ্যে আওয়ামী লীগ সমর্থকের সংখ্যা বাড়ছে না।

ইমাজিনেশন ও ইমিটেশন এক কথা নয়। আওয়ামী লীগ একসময় ছিল ‘এ পার্টি অব ইমাজিনেশন’, এ পার্টি অব ইমিটেশন’ বা অনুকরণ করে চলা পার্টি। নিজের সেক্যুলার চরিত্রের কথা ভুলে বিএনপি-জামায়াতের ধর্মীয় রজনীতির কালচার অনুকরণ করে চলছে। আওয়ামী লীগ এখন ধর্মনিরপেক্ষতার কথা বলতে ভয় পায়। ভাবে প্রতিপক্ষে তাকে ধর্মহীন বলে প্রচার চালাবে। প্রতিবেশী ভারতের সঙ্গে নিজ দেশের স্বার্থে সম্পর্কোন্নয়নের কথা বলতে ভয় পায়। ভাবে তাকে ভারতের দালাল বলে প্রচার চালানো হবে। এই ফিয়ার কমপ্লেক্স বা ভয়ের মানসিকতা থেকে আওয়ামী লীগের রাজনীতিকে মুক্ত করা প্রয়োজন। নইলে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা রক্ষা ও বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ গঠনে আওয়ামী লীগ ব্যর্থ হবে। ৬৫ বছরের পুরনো এবং আন্দোলন ও সংগ্রামের দীর্ঘকালের ঐতিহ্যপূর্ণ এই সংগঠনটিকে তার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে এই সতর্কবাণীটি আজ জানিয়ে রাখতে চাই।
(কালের কন্ঠ)


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ