• শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৪৯ পূর্বাহ্ন |

ফুলবাড়ীতে মাদ্রাসার অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ

Oniomফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: দিনাজপুরের ফুলবাড়ী দারুস সুন্নাহ্ সিদ্দিকিয়া ফাজিল মাদ্রাসা অধ্যক্ষের অনিয়ম দুর্নীতি অভিযোগ উঠেছে। অধ্যক্ষের খেয়াল খুমি মতো চলছে মাদ্রাসা।
কোন নিয়ম নীতি তোয়াক্কা না করে তিনি উৎকোচের বিনিময়ে শিক্ষক চাকুরীচ্যুত ও নিয়োগ বানিজ্য করে হাতিয়ে নিয়েছেন লাখ লাখ টাকা। তার এই অন্যায়ের শিকার হয়ে পথে পথে ঘুরছেন ঐ মাদ্রাসার চাকুরীচ্যুত শিক্ষক মোঃ খাদেমুল ইসলাম ও কোরবান আলীসহ অনেকে। এ সব ঘটনায় শিক্ষা সচিব এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর বরাবরে করা আবেদনের প্রেক্ষিতে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। দিনাজপুর জেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ এনায়েত হোসেনের নেতৃত্বে গঠিত ইতোমধ্যে ঐ মাদ্রাসার দুর্নীতির তদন্ত শুরু করেছেন।
প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, দিনাজপুরের ফুলবাড়ী দারুস সুন্নাহ্ সিদ্দিকিয়া ফাজিল মাদ্রাসার প্রভাষক (আরবী) নিয়োগের জন্য ২০১১ সালের ২২ এপ্রিল দৈনিক সমকাল পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হয়। এ প্রেক্ষিতে একই বছরের ৪ জুন লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ফলাফলের ভিত্তিতে সকল প্রকার যাচাই বাছাই শেষে প্রথম স্থান অধিকারী মোঃ খাদেমুল ইসলামকে নিয়োগ দেয়া হয়। এর পর শুরু হয় অধ্যক্ষ এএসএম মুসার অন্যায় আবদার। তিনি বিভিন্নভাবে খাদেমুলকে মাদ্রাসা থেকে সরিয়ে দেয়ার ষড়যন্ত্র শুরু করেন। অসমর্থিত একাধিক সূত্রে জানা গেছে, অধ্যক্ষ মুসা প্রভাষক খাদেমুলকে তার মেয়ে জামাই করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু খাদেমুল তাতে রাজি না হওয়ায় খাদেমুলের বিরুদ্ধে অধ্যক্ষ এ ষড়যন্ত্র শুরু করে। এ সময় অধ্যক্ষ মুসা তার ষড়যন্ত্র সফল করেন। খাদেমুল ইসলামের নিবন্ধন সনদ ভূয়া ও জাল বলে অভিযোগ দেখিয়ে তাকে বিনা নোটিশে এবং আত্মপক্ষ সমর্থনের কোন সুযোগ না দিয়ে ২০১১ সালের ৫ জুলাই খাদেমুলকে চাকুরীচ্যুত করেন। ফুলবাড়ী দারুস সুন্নাহ সিদ্দিকিয়া ফাজিল মাদ্রাসার সভাপতি শাহাজাহান আলী সরকার স্বাক্ষরিত এক চিঠির মাধ্যমে তাকে একবারে নিয়োগ ও যোগদানপত্র বাতিল ও দায়িত্ব হতে অব্যাহতি প্রদান করা হয়। যার স্মারক নং-ফু:ম:/১১-১১১, তারিখ-০৫-০৭-২০১১। যা চাকুরী বিধিমালা সম্পূর্ণ পরিপন্থি। এর পর দুর্নীতিবাজ অধ্যক্ষ এএসএম মুসা বিশাল অংকের টাকার বিনিময়ে মাহাবুবুর রহমানকে নিয়োগ প্রদান করে। কোন প্রকার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ বা নিয়োগ বোর্ড গঠন ছাড়াই সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে এই নিয়োগ দেয়া হয়। যুক্তি হিসেবে দেখানো হয় পূর্বের নিয়োগ বোর্ডের দ্বিতীয় স্থান অধিকারী ছিলেন এই মাহাবুবুর রহমান। প্রথম স্থান অধিকারী খাদেমুলকে যেহেতু চাকুরীচ্যুত করা হয়েছে সেহেতু দ্বিতীয় স্থান অধিকারী এখানে নিয়োগ পাবে। কিন্তু অধ্যক্ষে এ যুক্তি কোনভাবে ধোপে টেকে না। কারণ খাদেমুল ইসলামকে নিয়োগ দেয়া হয়েছিল এবং তিনি যোগদানও করেছিলেন। এর পর তাকে চাকুরীচ্যুত করায় পদটি শূন্য হয়ে যায়। শূণ্যপদটিতে দুর্নীতিবাজ অধ্যক্ষ যেভাবে নিয়োগ দিয়েছেন চাকুরীর বিধি এমনটা নয় বলে জানিয়েছেন দিনাজপুর জেলা শিক্ষা অফিস সূত্র। এ নিয়োগের বিরুদ্ধে শিক্ষা সচিব এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বরাবরে লিখিত আবেদন করেছেন ওই নিয়োগ পরীক্ষায় তৃতীয় স্থান অধিকারী মোঃ কোরবান আলী। তিনি তার আবেদনে অভিযোগ করেছেন মাহবুর রহমানের নিয়োগটি সম্পূর্ণ অবৈধ কারণ মাহাবুবুর রহমান রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় হতে ইসলামী শিক্ষায় স্নাতকত্তোর ডিগ্রী অর্জন করেন এবং একই বিষয়ে নিবন্ধন নেন। এই নিবন্ধন সনদ দিয়ে শুধুমাত্র কলেজ (সাধারণ) প্রতিষ্ঠানে দরখাস্ত করতে পারবেন। তাছাড়া কোন ফাজিল/কামিল মাদ্রাসায় আরবী প্রভাষক হিসেবে নিয়োগ পেতে হলে অবশ্যই তাকে শর্ত অনুযায়ী আরবী বিষয়ে নিবন্ধন থাকতে হবে। যাহা ৬ষ্ঠ নিবন্ধন পরীক্ষা ২০১০ বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ রয়েছে। তাই তার কোন অবস্থায় মাদ্রাসায় আরবী প্রভাষক হিসেবে দরখাস্ত বা চাকুরী করার সুযোগ নাই। কোরবার আলী তার আবেদনে মাহাবুবুর রহমানের নিয়োগ বাতিল করে তাকে নিয়োগ দানের আবেদন জানিয়েছেন এই আবেদনের প্রেক্ষিতে দিনাজপুর জেলা শিক্ষা অফিসার এনায়েত হোসেনের নেতৃত্বে গঠিত ওই তদন্ত কমিটি ইতোমধ্যে অধ্যক্ষের অনিয়ম দুর্নীতির তদন্ত শুরু করেছেন। এ মাসের শুরুর দিকে সরেজমিনে মাদ্রাসা পরিদর্শন করেছেন। কমিটির সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে রিপোর্ট প্রদান করবেন বলে জানান। অধ্যক্ষের রোষানলে পড়ে প্রভাষক খাদেমুল ইসলাম চাকুরী হারিয়ে এখন পথে পথে ঘুরছেন। দীর্ঘদিন ধরে এ অবস্থা চলতে থাকায় তিনি মানবেতর জীবন যাপন করছেন। কোরবান আলী অন্যায়ের শিকার হয়ে চাকুরী না পেয়ে মানুসিক যন্ত্রণায় ভুগছেন। স্থানীয় সুধিমহল দুর্নীতিবাজ অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা কর্তৃপক্ষের প্রতি সুদৃষ্টি কামনা করেছেন। অপর দিকে জেলা শিক্ষা অফিসার এনায়েত হোসেন জানান, একটি অভিযোগের প্রেক্ষিতে আমাকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে তদন্ত কাজ চলছে। এবং সম্পূর্ণ হলেই জেলা প্রশাসককে তদন্তের রিপোর্ট প্রদান করা হবে। তদন্তের স্বার্থে বিষয়টি নিয়ে এখন কিছু মন্তব্য করা যাচ্ছে না। গত কয়েক বছর আগে ওই মাদ্রাসায় নিয়োগ বানিজ্য যেভাবে হয়েছে তাতে লাখ লাখ টাকার নিয়োগ বানিজ্য হয়েছে অতি গোপনে।
ফুলবাড়ী দারুস সুন্নাহ্ সিদ্দিকিয়া ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ জানান, এ সব অভিযোগের অনিয়মের সাথে আমি কোন ভাবে জড়িত নই। বিধি অনুযায়ী শুধুমাত্র চাকুরীচ্যুত ও নিয়োগ কার্যক্রম পরিচালনা করেছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ