• সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ১০:৪৪ পূর্বাহ্ন |

ভাড়াটে বাহিনী হিসেবেও কাজ করতো হুজি

82388_1সিসি ডেস্ক: বাংলাদেশের প্রথম প্রকাশ্য ইসলামী জঙ্গি সংগঠন হরকাত-উল-জিহাদ-আল ইসলামী (হুজি)। জিহাদ বা ইসলামী আইনের নিজস্ব ব্যাখ্যা বাস্তবায়নে মাঝেমধ্যেই সন্ত্রাসী হামলা চালাতো এই সংগঠনটি। তবে ভাড়াটে বাহিনী হিসেবেও ব্যবহৃত হয়েছে সংগঠনটি।

রাজনৈতিক ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক অঙ্গনের ধর্মনিরপেক্ষ চেতনার ধারক-বাহকরা সবসময় ছিল হুজির টার্গেটে। ১৯৯২ সালে জাতীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে সংগঠনটির উত্থান। জিহাদের ঘোষণা দিয়েই যাত্রা শুরু করে তারা। এর পর থেকেই আক্রমণাত্মক ধারা অব্যাহত রাখে সংগঠনটি।

২০০১ সালের ১৪ এপ্রিল রমনা বটমূলে ছায়ানটের বর্ষবরণের অনুষ্ঠানে বোমা হামলা চালানো হয়। ওই মামলার প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী নিজস্ব এজেন্ডা বাস্তবায়নে এ হামলা চালায় হুজি। ওই মামলায় অন্যতম শীর্ষ অভিযুক্ত হুজি নেতা মুফতি আব্দুল হান্নান। বিচারিক জবানবন্দিতে মুফতি আব্দুল হান্নান বলেছিলেন, ছায়ানটের বর্ষবরণের ওই অনুষ্ঠান ‘ইসলামবিরোধী‘। হুজি চেয়েছিল, জনসাধারণের মধ্যে আতঙ্ক ছড়ানোর মাধ্যমে প্রতিবছর এই অনুষ্ঠান আয়োজন বন্ধ করতে।

বটমুলের হামলাই হুজির প্রথম সন্ত্রাসী তৎপরতা ছিলো না। বরং এটা ছিল ১৯৯৮ সালের জানুয়ারির পর থেকে তাদের চালানো অনেকগুলো হামলার একটি।

১৯৯২ সালে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বাধীন বিএনপির প্রথম আমলে উত্থান ঘটে হুজির। পরবর্তীতে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে কবি শামসুর রাহমানের ওপর হামলার ঘটনায় এদের নাম আসে। এর আগের বছরগুলোতে প্রায় বিনা বাধায় হৃষ্টপুষ্ট হয় সংগঠনটি।

১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত আওয়ামী লীগ আমল এবং ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপি আমলে আরও কয়েকটি সন্ত্রাসী হামলা চালায় হুজি। এগুলোর মধ্যে যশোরে বাম সাংস্কৃতিক সংগঠন উদীচীর অনুষ্ঠানে বোমা হামলা, পল্টনে কমিউনিস্ট পার্টি অব বাংলাদেশ- এর জনসভায় হামলা ও ২০০০ সালে গোপালগঞ্জে বোমা পুঁতে রাখার মাধ্যমে শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টা প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য।

২০০১ থেকে ২০০৬ সালে খালেদা জিয়ার শাসনামলে আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক অর্থমন্ত্রী এএমএস কিবরিয়ার ওপর হবিগঞ্জে গ্রেনেড হামলার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় হুজিকে দায়ী করা হয়। এমনকি তারা ২০০৪ সালে সিলেটে হযরত শাহজালাল (রহ.)- এর মাজারে ঢাকাস্থ ব্রিটিশ হাইকমিশনার আনোয়ার চৌধুরীর ওপরও গ্রেনেড হামলা চালায়।

সিলেটের আদালতে আনোয়ার চৌধুরীর ওপর হামলার মামলায় মুফতি আব্দুল হান্নানসহ হুজির আরো কয়েক নেতাকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়।

এজেন্ডা বাস্তবায়নে দেশজুড়ে এ ধরনের আরো বহু হামলা চালায় আন্তর্জাতিক ইসলামী জঙ্গি সংগঠন হুজির বাংলাদেশ শাখা হুজি বি।

২০০৪ সালের ২৪ আগস্ট বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগের র‌্যালিতে গ্রেনেড হামলায় ভাড়াটিয়া বাহিনী হিসেবে ব্যবহৃত হয় হুজি। সংসদে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনাকে খুন করাই ছিল ওই হামলার উদ্দেশ্য।

পুলিশের তদন্ত ও বিচারিক নথিতে দেখা যায়, হুজির ওই ভয়ানক হামলার মূল পরিকল্পনায় ছিল ওই সময়ের ক্ষমতাসীন বিএনপি ও জামায়াতের এমপি, মন্ত্রী ও নেতারা।

ওই সময়ে ক্ষমতার বিকল্প কেন্দ্র হাওয়া ভবনে বৈঠক করে চক্রান্তকারীরা। খালেদা জিয়ার জ্যেষ্ঠ পুত্র তারেক রহমান ভবনটির দেখভাল করতেন। ২০০৮ সালে লন্ডন পাড়ি দেবার পর এখন পর্যন্ত দেশে ফেরেননি তারেক।

নিষিদ্ধ সংগঠনটি কাওমী মাদ্রাসাগুলোর মাধ্যমে মৌলবাদী নেটওয়ার্ক বিস্তার করে। হুজির নেটওয়ার্ক বিস্তৃত করতে তাদের নেতারা দেশজুড়ে কাওমী মাদ্রাসা স্থাপন করতে শুরু করেন। মূলত পাকিস্তান ও আফগনিস্তানের জঙ্গি গ্রুপগুলোর অার্থিক সহায়তা পায় হুজি।

মিয়ানমারের রোহিঙ্গা বিদ্রোহীদের সঙ্গেও যোগসূত্র রয়েছে হুজির। বৃহত্তর চট্টগ্রামের বনাঞ্চলে অনেকগুলো ক্যাম্পে তাদের অস্ত্র প্রশিক্ষণ দিয়েছে হুজি। এসব ক্যাম্প পরিচালনায় তারা রোহিঙ্গা বিদ্রোহীদের সাহায্য পায়।

বাংলাদেশে হুজির প্রতিষ্ঠাতা ও সংগঠকদের অনেকের সঙ্গেই আল কায়েদা ও এর সাবেক প্রধান ওসামা বিন লাদেন এবং বর্তমান নেতা আইমান আল-জাওয়াহিরির যোগাযোগ ছিল। অনেকেই আফগানিস্তানে তালিবানদের হয়ে লড়াই করেছেন।

হুজির অনেক নেতাই বিএনপি-জামায়াতের সঙ্গে জোটবদ্ধ ইসলামী ঐক্যজোটের সঙ্গে সম্পৃক্ত।

লালখান বাজার মাদ্রাসা নামে পরিচিতি চট্টগ্রামের জামিয়াতুল উলুম আল ইসলামিয়া মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা মুফতি ইজহারুল ইসলাম চৌধুরী। গতবছর স্থানীয়ভাবে তৈরি একটি হাতবোমা বিস্ফোরণের পর আলোচনায় আসে এ কাওমী মাদ্রাসাটি। অনেকদিন থেকে এটি হুজির গোপন আস্তানা হিসেবে পরিচিত। এখানে হুজি সদস্যদের অস্ত্র চালনার প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। ফলে তারা প্রশিক্ষিত জিহাদি হিসেবে লড়াই করার সক্ষমতা অর্জন করে।

উৎসঃ   বাংলা ট্রিবিউন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ