• সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ১০:৫৮ পূর্বাহ্ন |

সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের অর্থের তথ্য চেয়ে চিঠি

Bankঢাকা: সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের রাখা অর্থের তথ্য চেয়ে চিঠি দিয়েছে বাংলাদেশ সরকার। বিপুল পরিমাণ অর্থ পাচারের ঘটনায় সমালোচনার মুখে সরকার এ উদ্যোগ নিয়েছে।

সুইজারল্যান্ডের আর্থিক গোয়েন্দা বিভাগের সঙ্গে বাংলাদেশ আর্থিক গোয়েন্দা বিভাগ-বিএফআইইউ সমঝোতা চুক্তি সইয়ে আগ্রাস প্রকাশ করে এ চিঠি দেয়া হয়েছে।

বিএফআইইউ-এর পক্ষে চিঠিটি দিয়েছেন এই বিভাগের মহাব্যস্থাপক দেবপ্রসাদ দেবনাথ। বিয়ষটি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ম মাহফুজুর রহমান।

সুইজারল্যান্ডের ব্যাংকগুলোয় বাংলাদেশিদের অর্থ রাখার পরিমাণ ২০১৩ সালে ৬২ ভাগ বেড়েছে। বিগত আওয়ামী লীগ সরকারের মেয়াদের শেষ বছর হওয়ায় বেশি পরিমাণ রাখা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুইস ন্যাশনাল ব্যাংক (এসএনবি) কর্তৃক প্রকাশিত ‘ব্যাংকস ইন সুইজারল্যান্ড ২০১৩’ শীর্ষক বার্ষিক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

এতে দেখা যায়, গত ২০১৩ সাল শেষে সুইস ব্যাংকগুলোয় বাংলাদেশিদের অন্তত ৩৭ কোটি ১৯ লাখ সুইস ফ্রাঁ গচ্ছিত রয়েছে, যা প্রায় ৪১ কোটি ৪০ লাখ ডলার বা তিন হাজার ১৬২ কোটি ৩৭ লাখ টাকা।

এর আগে ২০১২ সাল শেষে সুইস ব্যাংকগুলোয় বাংলাদেশিদের অন্তত ২২ কোটি ৮৯ লাখ সুইস ফ্রাঁ গচ্ছিত ছিল, যা প্রায় ২৪ কোটি ৫০ লাখ ডলার বা এক হাজার ৯০৮ কোটি টাকার সমান।

গত এক দশকের মধ্যে ২০১৩ সালেই সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের সবচেয়ে বেশি অর্থ গচ্ছিত ছিল। এর আগে সর্বোচ্চ পরিমাণ অর্থ গচ্ছিত ছিল ২০০৭ সালে। সে বছর সুইস ব্যাংকসমূহে বাংলাদেশি ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের গচ্ছিত অর্থের পরিমাণ ছিল ২৪ কোটি ৩০ লাখ সুইস ফ্রাঁ বা দুই হাজার কোটি টাকার কিছু বেশি।

এটি সুইজারল্যান্ডের ব্যাংকিং ব্যবস্থায় অন্তর্ভুক্ত বিভিন্ন ব্যাংকে বাংলাদেশি ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের যে অর্থ গচ্ছিত রাখা হয়েছে, তার মোট পরিমাণ।

বাংলাদেশি বা অন্য কোনো দেশের নাগরিক বা প্রতিষ্ঠান যদি নিজের বদলে অন্যের নামে কোনো অর্থ গচ্ছিত রেখে থাকে, তাহলে তা এই হিসাবের মধ্যে আসেনি। আর তাই এই হিসাব সুইস ব্যাংকে গচ্ছিত পাচার হয়ে যাওয়া অর্থের পূর্ণ পরিমাণও নির্দেশ করে না।

একইভাবে সুইস ব্যাংকে গচ্ছিত রাখা মূল্যবান শিল্পকর্ম, স্বর্ণ বা দুর্লভ সামগ্রীর আর্থিক মূল্যমান হিসাব করে এখানে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। অনেক দেশের নাগরিকই মূল্যবান শিল্পকর্ম বা দুর্লভ সামগ্রী সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন ব্যাংকের ভল্টে রেখে থাকেন। আরটিএনএন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ