• বুধবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:১৮ পূর্বাহ্ন |

সৈয়দপুরের রশিদ মাষ্টারের বাড়িতে নাইট কুইন ফুটেছে

Knight Queenসিসিনিউজ: চাকুরী সূত্রে সন্তানরা বাইরে থাকায় নিরবতা ভর করেছিল নীলফামারীর সৈয়দপুরে আব্দুর রশিদ মাষ্টারের বাড়িতে। এখন সেখানে বিভিন্ন ফুলেরা খেলায় মেতেছে। সন্ধ্যায় নাইট কুইন আর দিনে অন্যান্য ফুল। রঙ্গীন সুগন্ধে আলো-আধারের ক্ষণকে আরো আলোকিত করেছে। এতেই যেন তারা কচিকাচাদের চেচামেচি শুনতে পান। আর এ দৃশ্যেই ফুল প্রেমিক সত্তোরর্ধ দম্পত্তির একাকিত্ব কেটে যায়। তবে রহস্যে ভরা নাইট কুইনের পরিস্ফুটনে বিমোহিত ফুল প্রেমিক পরিবারটি এখন সতর্ক ও ব্যস্ত এ গাছের যতেœ। কারণ সন্ধ্যায় ফুটন্ত নাইট কুইন দেখতে দর্শনার্থীদের ভীড় বাড়ছে।
গত রাত আটটায় আব্দুর রশিদ মাষ্টারের শহরের নতুন বাবুপাড়ার বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, আঙ্গীনায় লাগানো বিভিন্ন ধরনের ফুলের গাছ। সারিসারি করে টবে ও মাটিতে লাগানো নাইট কুইন, অর্কিড, আনারকলি, পাথরকুচি, রংগন, বেলি, রজনীগন্ধা, ষ্টার , ডালিয়াসহ লাল, হলুদ, সাদা বিভিন্ন উপজাতের গোলাপ এবং অচেনা অনেক ফুলের গাছ। এ সবের মধ্যে কিছু গাছে ফুল ফুটেছে। এতে পুরো বাড়িতে সুগন্ধি ছড়িয়ে পড়েছে। এর মধ্যে ভিন্ন রকম দেখতে নাইট কুইন ফুলের গাছ। দশ ফুটের উচ্চতার গাছে দুই থেকে তিন ইঞ্চি চওড়া ও দেড় ফুট লম্বা পাতা। কোন ডালপালা নেই। পাতা থেকে শাখা বের হয়ে কলির মাধ্যমে ফুটেছে শাপলা সাদৃশ্য কয়েকটি  ধবধবে সাদা নাইটকুইন ফুল। সন্ধ্যায় ফোটে আর অর্ধ রাত্রে ঝড়ে যায়। এমন ফুলের কথা শুনে ফুলটিকে দেখতে উপচে পড়া ভিড় জমে যায় ওই মাস্টারের বাড়িতে।  আব্দুর রশিদ মাষ্টারের স্ত্রী মনোয়ারা বেগম জানান, সংসারের যে ক’জন ছেলে মেয়ে আছে সকলের বিয়ে হয়েছে। ছেলেরা চাকুরির কারণে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে বাইরে থাকে। আর এ বাড়িতে আমার স্বামীসহ দেবর অবসরপ্রাপ্ত প্রাইমারি শিক্ষক আলতাফ আলী মিলে একত্রে থাকি। একাকিত্ব ঘোচাতে বাড়িতে যে সকল ফুলের চারা আছে সেগুলোর পর্যাপ্ত যতœ নেয়াই বর্তমানে আমাদের কাজ। তাই দিন দিন ফুলের চারা সংগ্রহ সমৃদ্ধ করি। এভাবে প্রায় পঁচিশ রকম ফুলের চারা লাগিয়েছি আঙ্গিনায়। এর মধ্যে গত চার বছর আগে রংপুরের এক আত্মীয়ের বাড়ি থেকে একটি নাইট কুইনের পাতার শাখা এনে একটি আঙ্গিনায় লাগাই। সেটা থেকে দুই বছর পরেই ফুল ধরা শুরু হয়েছে। আর এক ফুটের গাছটি এখন দশ ফুট উঁচু হয়েছে। আব্দুর রশিদ মাষ্টার জানান, এপ্রিল থেকে আগষ্ট পর্যন্ত এ ফুলটি ফোটে। সন্ধ্যায় ফুটে রাত বারোটার মধ্যেই ঝরে যায়। তাই সম্ভবত এর নাম নাইট কুইন। আর পাতার মধ্য বা এক কোণ থেকে কলির মাধ্যমে ফুলটি ফোটে। তাই এ ফুলের জন্ম ও ঝড়ে পরা ব্যতিক্রমধর্মী রহস্য দেখে ফুলপ্রেমি পরিবারটির কাছে এর কদর বেশি বলে জানান তিনি। আব্দুর রশিদ মাষ্টারের ছোট ভাই অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক আলতাফ আলী জানান, অবসর জীবনে দিনে দুবার ছেলে মেয়েদের পড়াই। আর সারাদিনই কেবল গাছের যতœ নিয়েই সময় কেটে যায়। তবে ফুলের গাছের এ সংগ্রহশালা আরো বাড়াতে চাই। কারণ এর মধ্যে জীবনের অনেক অর্থই খুঁজে পাওয়া যায়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ