• সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:৫৩ পূর্বাহ্ন |

বীরগঞ্জে র‌্যাব সদস্যদের উপর হামলার মামলায় আটক ৮

Hand Cupদিনাজপুর প্রতিনিধি: জেলার বীরগঞ্জ উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে জাল ডলার বিক্রি ও প্রতারনার অভিযোগে র‌্যাব সদস্যদের পক্ষ থেকে দায়ের করা প্রথক দু’টি মামলায় ৮ জনকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। পালিয়ে থাকা ১২ আসামীকে গ্রেফতার প্রক্রিয়া চলছে। এদিকে বীরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আরমান হোসেন পিপিএম’র বিরুদ্ধে র‌্যাবের উপর হামলা ও জাল ডলার ব্যবসায়ীদের রক্ষার চেষ্টা করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।
দিনাজপুর জেলার বীরগঞ্জ থানার এসআই ও মামলা দু’টির তদন্তকারী কর্মকর্তা শফিকুজ্জামান জানান, জাল ডলার বিক্রি, প্রতারনা ও র‌্যাব সদস্যদের উপর হামলার ঘটনায় থানায় র‌্যাব-১৩ এর ডিএডি শশধর ভট্টাচার্য বাদী হয়ে প্রথক ২টি মামলা দায়ের করেছেন। ওই ২টি মামলায় গত সোমবার পর্যন্ত ৮ জাল ডলার ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। মামলার এজাহার নামীয় ২০ আসামীর মধ্যে ১২ জন পলাতক রয়েছে। তাদেরকে গ্রেফতার করতে পুলিশ এবং র‌্যাব সদস্যদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।
গত ১৯ জুন দুপুরে বীরগঞ্জ উপজেলার মরিচা ইউনিয়নের সাতখামার গ্রামের মিরাজ উদ্দীনের ছেলে করিমুল ইসলাম (৩৫) এর বাড়ীতে জাল ডলার বিক্রির সময় র‌্যাব সদস্যরা অভিযান চালায়। এ সময় করিমুল ও তার সহযোগিরা র‌্যাবর সদস্যদের উপর হামলা চালায়। এই হামলায় র‌্যাবের এএসআই দুলাল হোসেন ও কনস্টেবল খায়রুল ইসলামক গুরুতর আহত হন। বর্তমানে র‌্যাবের এই ২ সদস্য রংপুর সেনানিবাস হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
ওই দিন র‌্যাব সদস্যদের অভিযানে ঘটনাস্থল থেকে ৩৬৪টি জাল ইউএস ডলার এবং ৬টি বিভিন্ন কোম্পানীর  রেজিস্ট্রেশনবিহীন মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়। ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে করিমুল ইসলাম ও তার সহযোগি সাফিউল ইসলাম (৩৫), আতিকুল ইসলাম (২২), জুহুরুল ইসলাম ওরফে ভাঙ্গা (৩৬), খোরশেদ আলম (২৪), নাজমুল হক (২৫), তারা মিয়া (৩৭) ও ইয়াসমিনকে (২২) গ্রেফতার করা হয়। গ্রেতারকৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় ১২ জনের নাম উল্লেখ ও অপর ৮ জন অজ্ঞাত জাল ডলার ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়।
বীরগঞ্জ উপজেলার সাতখামার ইউপি চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান চৌধুরী বাদশা জানান, এই ঘটনার সাথে ওই এলাকার প্রভাবশালী ব্যক্তিরা জড়িত রয়েছে। এদের মধ্যে বীরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আরমান হোসেন পিপিএম, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান বাবলু চৌধুরী, তার ভাতিজা হেলা চৌধুরী ও সুমন চৌধুরী সরাসরি জড়িত রয়েছেন। ঘটনার পর থেকে এ দু’জন গা ঢাকা দিয়েছে। এদের ছত্রছায়ায় বীরগঞ্জ উপজেলার একাধিক স্থানে জাল ডলারের রমরমা ব্যবসা চলে। আর এ কারণে এলাকায় বিভিন্ন অঘটন ঘটছে।
এ ব্যাপারে উপজেলা পরিষদের আইন শৃঙ্খলা সভায় আলোচনা করে পুলিশ প্রশাসনকে ব্যবস্থা নেয়ার তাগিদ দিয়েও কোন প্রতিকার হয়নি। এই ইউনিয়নের মেম্বার নজিবুল ইসলাম অভিযোগ করেন, বীরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সহযোগিতায় এই এলাকায় ডলার ব্যবসায়ীরা সক্রিয় রয়েছে। এ ব্যাপারে পুলিশ সুপারসহ একাধিক স্থানে অভিযোগ করে কোন প্রতিকার পাওয়া যায়নি। তিনি জাল ডলার ব্যবসায়ী ও প্রতারকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা  নেয়ার দাবী জানান।
বীরগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম জানান, উপজেলাকে অপরাধমুক্ত রাখতে পুলিশ প্রশাসনকে একাধিকবার অনুরোধ করেছি। আমরা এসব অপরাধীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে রাস্তা অবরোধসহ মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা করেছি। কিন্তু কি কারণে পুলিশ জাল ডলার ব্যবসায়ী ও প্রতারকদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করছে না তা জানি না।
বীরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আরমান হোসেন পিপিএম জাল ডলার ব্যবসার ঘটনার ব্যাপারে কথা বলতে অপরাগতা প্রকাশ করেন। তবে বীরগঞ্জবাসি জাল ডলার ব্যবসায়ী প্রতারক চক্রকে নির্মুল ও তাদের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার  দাবী জানিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ