• সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ১০:৪৩ পূর্বাহ্ন |

ঘটনাস্থল ডিমলা: তদন্ত না করে ফিরে গেলেন তদন্ত টীম

Tistaনীলফামারী প্রতিনিধি: নীলফামারীর ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের চুক্তিভিক্তিক ৩৭ জন শ্রমিকের চাকরী স্থায়ীকরণের নামে তাদের কাজ থেকে ১১ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়া এক শ্রমিকলীগ নেতার বিরুদ্ধে তদন্ত না করে ফিরে গেলেন তদন্ত টীম। তদন্ত টীম ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়েও তদন্ত না করে ফিরে যাওয়ায় এনিয়ে ভুক্তভোগীদের মনে নানা প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে।
অভিযোগ মতে ১৯৮৩ সাল থেকে পানি উন্নয়ন বোর্ড ডিমলা উপজেলার ডালিয়া, দোয়ানী ও তিস্তা ব্যারেজ এলাকায় গেট অপারেটন, সার্ভে খালাশি, গার্ড ও ঝাড়ুদার পদে চুক্তিভিক্তিক ৩৭ জন শ্রমিক কাজ করে আসছেন। এদিকে বিগত আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে ওইসব চুক্তিভিক্তিক শ্রমিকদের চাকরী স্থায়ী করার প্রলোভন দেখাতে থাকেন পানি উন্নয়ন বোর্ড ডালিয়া বিভাগের চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী ও শ্রমিক-কর্মচারী লীগের সাধারণ সম্পাদক  এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা সোহরাব হোসেন। চাকরী স্থায়ী করণের  খরচ বাবদ বিভিন্ন সময়ে ১৫ থেকে ৫০ হাজার টাকা করে ৩৭ জনের কাছ থেকে মোট ১১ লাখ ২ হাজার টাকা হাতিয়ে নেন ওই শ্রমিকলীগ নেতা। কিন্তু দীর্ঘ দিনেও চুক্তিভিক্তিক শ্রমিকদের চাকরী স্থায়ী না হওয়ায় তারা টাকা ফেরতের চাপ প্রয়োগ করলে আজ কাল বলে কালক্ষেপন ও তালবাহানা করতে থাকেন ওই শ্রমিকলীগ নেতা। বাধ্য হয়ে এর প্রতিকার চেয়ে ৩৭জন শ্রমিক স্বাক্ষরিত একটি অভিযোগপত্র পানি উন্নয়নের বোর্ডের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট দাখিল করা হয়। এ ছাড়া এনিয়ে বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হয়। এর প্রেক্ষিতে পানি উন্নয়ন বোর্ড রংপুর প্রধান প্রকৌশলীর কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক আবু তাহের মোহাম্মদ সেলিমকে প্রধান করে একটি তদন্ত টীম গঠন করা হয়। এ বিষয়ে তদন্ত করতে বৃহস্পতিবার তদন্ত টীম আসেন পানি উন্নয়ন বোর্ড নীলফামারীর ডালিয়া অফিসে। ওই অফিসের যান্তিক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী আনিছুর রহমানের কক্ষে তদন্ত হওয়ার কথা থাকলেও তদন্ত টীমের প্রধান আবু তাহের তা না করে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মাহবুবুর রহমানের কক্ষে কিছু সময় বসে তদন্ত না করে ফিরে যান বলে জানান ভুক্তভোগী শ্রমিকরা।
চুক্তিভিক্তিক গেট অপারেটর নবাব আলী, মনির আহমেদ, আব্দুস ছামাদ (আযাদ), নজরুল ইসলাম, আব্দুল মজিদ, সার্ভে খালাশি শাহ আলম, নজরুল ইসলাম , গার্ড রমজান আলী,  রফিকুল ইসলাম, ঝাড়ুদার কহিনুর বেগম, মর্জিনা বেগম সহ অনেকে জানায় তদন্তের জন্য পূর্বেই তাদের তারিখ ও সময় বলা হয়েছিল। সে মোতাবেক তারা যথা সময়ে উপস্থিত থাকলেও তাদের সাথে কোন কথা না বলে তদন্ত টীম ফিরে যান। তারা জানান কোন প্রভাবশালী মহলের ইশারায় প্রতারক শ্রমিক লীগ নেতার তদন্ত করতে এসেও তদন্ত করা হয়নি। তারা আরো জানায় তদন্তের আগে আমরা যাতে সত্য কথা না বলি এবং তদন্তের সময় উপস্থিত না থাকি এ জন্য আমাদের বিভিন্ন ভাবে ভয়ভীতি দেখানোও হয়েছিল। তদন্ত টীমের প্রধান আবু তাহের মোহাম্মদ সেলিমের সাথে যোগাযোগ করা হলে এ বিষয়ে তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।
পানি উন্নয়ন বোর্ড ডালিয়া বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মাহবুবুর রহমান জানান শ্রমিকলীগ নেতা সোহরাব হোসেনের বিষয়টি তদন্ত করতে রংপুর থেকে ডিডি আবু তাহের মোহাম্মদ সেলিম এসেছিলেন । কিন্তু তিনি তদন্ত কাজ স্থগিত করে ফিরে যান বলে তিনি জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ