• সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ০৯:২৯ পূর্বাহ্ন |

সত্তর বছরেও বয়স্ক ভাতা মেলেনি বাছাতনের !!

16.06.14(1)আতাউর রহমান, রাজিবপুর(কুড়িগ্রাম): সত্তর বছর পার হলেও বাছাতন বেওয়া ভাগ্যে এখনও জুটেনি সরকারের সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতায় কোন ভাতা। কুড়িগ্রাম জেলার রাজিবপুর উপজেলা নদী বিচ্ছিন্ন চর এলাকা হাজী পাড়া নতুন  গ্রামের বাসিন্দা বাছাতন বেওয়া। চরম দারিদ্র সীমার নিচে বসবাসকারী বাছাতন বেওয়ার বয়সের ভারে নাজুক হওয়ায় এখন চলার ক্ষমতা হারিয়ে অনেকটাই নিশ্চল তার সংসার-জীবন। ফলে কঠর যন্ত্রণায় নিদারুণ কষ্টে রাত ও দিন কাটে তার। এরপরও যেন তাকে দেখার কেউ নেই।
রাজিবপুর উপজেলার ১নং রাজিবপুর ইউনিয়নের হাজী পাড়া নতুন চর  মৃত ময়ান শেখ স্ত্রী বাছাতন বেওয়া। প্রায় ১৫ বছর আগে বার্ধক্যের কারনে তার স্বামী মারা যায় । স্বামীর রেখে যাওয়া এক খন্ড বসতভিটায় রেখে যাওয়া গত তিন বছর আগে নদীতে ভেঙ্গে গেছে । এখন হাজী পাড়া নতুন চরের  অন্যের জমিতে একটি টিনের ছাপড়ায় তার বসবাস। সংসারজীবনে তার তিন ছেলে ও এক মেয়ের জন্ম হলেও তারাও সংসার বেধেছে বেশ পূর্বেই। তাদের সংসারেও এসেছে সন্তানাদি। ফলে নিজ নিজ সংসারের ঘানি টানার পর গর্ভধারিনী বাছাতন বেওয়া’র খোজ-খবর নেওয়ার খুব একটা সুযোগ হয়না তাদের।  ফলে কেউ থেকেও যেন কেউ নেই বাছাতন বেওয়াকে দেখভালের।
সঙ্গত কারণেই বয়সের ভারে নুইয়ে পড়া বাছাতনকে এখনও জীবিকার তাগিদে অনেক কষ্টে কোন রকমে ঘুরতে হয় গ্রামে গ্রামে। গ্রামে অন্যের বাড়ীতে কাজ করে, তা দিয়ে চলে তার জীবন। যেদিন গ্রামে যেতে পারেন না, সেদিন থাকতে হয় তাকে অনাহারে। এরপরও ঝড়-তুফানের মৌসুমে টিনের ছাপড়া বসতঘর ধ্বসে পড়ার আশংকায় চরম আতংকে রাত কাটে তার।
সাংবাদিকদের সাথে  কথা বলতে কান্না জড়িত কন্ঠে ওইসব দুঃখ-দুর্দশার বর্ণনা দেন বাছাতন বেওয়া। বয়সের সঠিক কোন হিসেব জানা নেই তার। তবে ‘৭০র উপরে তো হবেই বাপু’Ñ এমন ধারণা তার। তিনি বলেন, ‘আমাকে কেউ কিছুই দেয় না। আমার কেউ খোজ-খবরও রাখে না’। তিনি আক্ষেপ করে প্রশ্ন রাখেন, ‘মৃত্যুর আগে আমার ভাগ্যে বয়স্কভাতা জুটবে কি?’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ