• মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:০১ অপরাহ্ন |

বিজ্ঞানী আমিরের নতুন উদ্ভাবন সুগারবিট অটোমেশিন আবিষ্কার

82830_1প্রযুক্তি ডেস্ক: যন্ত্রবিজ্ঞানী আমির হোসেন চিনির ঘাটতি পূরণে উদ্ভাবন করেছেন সুগারবিট অটোমেশিন। শিগগিরই তা বাজারজাত হবে। এর আগে তিনি কৃষি যন্ত্রপাতি থেকে শুরু করে বিভিন্ন যন্ত্রপাতি উদ্ভাবন করে আলোচনায় আসেন। এ জন্য আন্তর্জাতিক পুরস্কারও পান তিনি।
জানা গেছে, দেশে চিনির ঘাটতি পূরণে আবাদ হচ্ছে সুগারবিট। শীত প্রধান অঞ্চলে এ ফসলের ভালো ফলন হয়। সুগারবিট দেখতে অনেকটা নারকেল কচুর (কাঠ কচু) মতো। চারা রোপণের পাঁচ থেকে ছয় মাসের মধ্যে সুগারবিট জমি থেকে তোলা যায়। যেখানে আখ থেকে ৬-৭ শতাংশ চিনি পাওয়া যায়, সেখানে সুগারবিট থেকে ১৪-১৮ শতাংশ চিনি উৎপাদন হয়। তাই বাণিজ্যিকভাবে সুগারবিট উৎপাদন এবং তা ব্যবহার করে দেশে চিনির ঘাটতি অনেকাংশে পূরণ করা সম্ভব।
জানা গেছে, দেশে বছরে প্রায় ২৩ লাখ টন চিনি দরকার। কিন্তু চাহিদার বিপরীতে চিনি উৎপাদন একেবারেই কম হচ্ছে। দেশের ১৫টি চিনিকলের উৎপাদন মতা দুই লাখ ১০ হাজার টন তবে গত বছর চিনি উৎপাদন হয়েছে ৬৯ হাজার ৩০৮ টন। তাই চাহিদা পূরণে বিপুল চিনি বিদেশ থেকে আমদানি করতে হয়। এ ছাড়া দেশের চিনিকলগুলো শুধু আখের রস থেকে চিনি উৎপাদন করে থাকে। দীর্ঘমেয়াদি ফসল হওয়ায় চাষিরা আখ চাষে আগ্রহ হারাচ্ছেন। বিভিন্ন কারণে কৃষিজমি কমে যাচ্ছে। ফলে আখ উৎপাদন কমে যাচ্ছে। এতে চিনির ঘাটতি বাড়ছেই।
দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে বসবাসকারী মানুষকে সুদমুক্ত কৃষিঋণ সহায়তা দিলে দ্রুত এ সুগারবিট চাষ সর্বত্র ছড়িয়ে পড়বে। এতে ব্যাপক ফলন হবে। তখন দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশে রফতানি করা যাবে। সমবায় কিংবা ব্যক্তিগতভাবে গ্রামেগঞ্জে চিনির অটোমেশিন প্রজেক্টরের মাধ্যমে চিনি ও গুড় তৈরি করতে পারলে এ শিল্পকে এগিয়ে নেয়া যাবে। সুগারবিট এ দেশের আবহাওয়া উপযোগী হওয়ায় শুভ্রা ও কাবেরি নামে দুই জাতের চাষ হচ্ছে।
জানা গেছে, প্রতি হেক্টরে শুভ্রা ৮২ টন ও কাবেরি ৭৫ দশমিক ৭৭ টন উৎপাদিত হয়। এক গবেষণায় বলা হয়েছে, এ সুগারবিট থেকে গড়ে ১২ শতাংশ চিনি আহরণ সম্ভব এই অটো মেশিনের সাহায্যে।
পরীামূলকভাবে সাতীরা, ঠাকুরগাঁও, রংপুর ও বাগেরহাটে সুগারবিটের ওই দু’টি জাত আবাদ করে হেক্টরপ্রতি ৬৭ থেকে ৭৭ টন পর্যন্ত ফলন পাওয়া গেছে। এ ছাড়া সেখানে চিনি আহরণের হার ছিল ১২ শতাংশ। ঠাকুরগাঁও চিনিকল এলাকায় পরীামূলক আবাদ করে শুভ্রা জাতের সুগারবিটের সর্বোচ্চ ফলন হেক্টরপ্রতি ১০৬ দশমিক ২১ টন ও রংপুরের শ্যামপুর চিনিকল এলাকায় সর্বোচ্চ ১৩৫ দশমিক ৮৫ টন পাওয়া গেছে।
বগুড়ার যন্ত্রবিজ্ঞানী আমির হোসেন অটোমেশিনের সাহায্যে সুগারবিট থেকে গুড় ও চিনি উৎপাদনের মেশিন তৈরি করেছেন। এই অটোমেশিন সাত পদ্ধতিতে তৈরি। প্রথমে স্লাইস মেশিনে কাটিং করে ডিফিউজার মেশিনে মেশানো হয়। এরপর ক্রুডস অটো বয়লার মেশিনে দিলে গাঢ় বা ঘনত্ব হবে। এরপর কোল্ড ও ড্রাই দানা কাটিং রিফাইন মেশিনে দিলে চিনি তৈরি হবে।
দেশে প্রতি বছর চিনির যে পরিমাণ ঘাটতি রয়েছে তা পূরণ করে বিদেশে রফতানি করা সম্ভব হবে এই সুগার বিটের মাধ্যমে। শীত প্রধান অঞ্চলের ফসল সুগারবিট থেকে চিনি ও গুড় উৎপাদনের গবেষণায় এরই মধ্যে বাংলাদেশ ইু গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীরা সফলতা পেয়েছেন। এখন দেশে এ অটোমেশিনের মাধ্যমে বাণিজ্যিকভাবে চিনি ও গুড় তৈরি করা সম্ভব হবে।
যন্ত্রবিজ্ঞানী আমির হোসেনের এ সুগারবিট অটোমেশিন ডিজেল ও বিদ্যুৎ উভয়ভাবে চালিত হবে। এ মেশিন চালাতে ১০ জন লোকের দরকার। প্রতি তিন ঘণ্টায় উৎপাদন হবে ৫০০ কেজি চিনি। শুধু গুড় তৈরির মেশিনের দাম হবে ৫-১০ লাখ টাকা। এ ছাড়া চিনি তৈরির মেশিনের দাম হবে ২০-২৫ লাখ টাকা।
আমির হোসেন আরো বলেন, আমি গবেষণাকাজে সরকারকে পাশে চাই। সেই সাথে আমি শারীরিকভাবে অসুস্থ। এ ক্ষেত্রেও সরকারের সহযোগিতা দরকার। আমি আরো নতুন কিছু উদ্ভাবনে গবেষণা করছি।
এর আগে পামওয়েল অটোমেশিন, গোখাদ্য মেশিন, পাটের রিবন রেটিং সালকরণ মেশিনসহ বেশ কয়েকটি যন্ত্র উদ্ভাবন করেছেন যন্ত্রবিজ্ঞানী আমির হোসেন। উৎসঃ   নয়াদিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ