• সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ১১:০৩ পূর্বাহ্ন |

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ফের প্রকাশ্যে শিবির

Sibirরাজশাহী: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে টানা পাঁচ বছর পর ফের প্রকাশ্যে সক্রিয় হয়েছে ইসলামী ছাত্রশিবির। সংগঠনটির এক নেতার পা কেটে গোড়ালি থেকে বিচ্ছিন্ন করার ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তারের দাবিতে গত চার দিন ধরে ক্যাম্পাসে প্রকাশ্যে উঠে এসেছে সংগঠনটি।

এতে সাধারণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে নাশকতা সৃষ্টিকারী এ সংগঠনটি নিয়ে নতুন করে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১০ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি শিবির ক্যাডারদের হামলায় ছাত্রলীগ কর্মী ফারুক হোসেন নিহত হন। এ ঘটনার পরের দিন থেকে দীর্ঘদিনের আধিপত্যে থাকা ক্যাম্পাস ছাড়া হয়ে যায় শিবির। সেই থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হল বা ক্যাম্পাসে আর তাদের প্রকাশ্যে দেখা যায়নি। ওই দিনের পর থেকে ক্যাম্পাসে একাধিকবার চোরাগুপ্তা হামলা, প্রতিপক্ষের অন্তত ১২ জনের পায়ের রগ কাটাসহ একাধিক কর্মকাণ্ড পরিচালনা করলেও প্রকাশ্যে তাদের কোনো কর্মসূচি পালন করতে দেখা যায়নি। এতে গত ৫ বছরে প্রতিপক্ষ ও পুলিশের বাধার কারণে ধীরে ধীরে ক্যাম্পাসে অস্তিত্ব সংকটে পরে শিবির।

তবে গত ১৬ জুন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা নবাব আব্দুল লতিফ হল শাখা শিবিরের সেক্রেটারি রাসেল আলমের ওপর হামলার পর আবারও তারা ক্যাম্পাসে প্রকাশ্য অবস্থানে আসে।

ওই ঘটনা কেন্দ্র করে শিবির নেতাকর্মীরা গত ২৪ জুন ক্যাম্পাসে তাদের পূর্বঘোষিত বিক্ষোভ করে। এসময় অন্তত দুই শতাধিক নেতাকর্মী নিয়ে প্রকাশ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের পেছন থেকে মিছিল বের করে। এ ঘটনার একদিন পরে ক্যাম্পাসে ধর্মঘট কর্মসূচিতে আবারও তাদের প্রকাশ্যে অবস্থান লক্ষ্য করা যায়।

গত বৃহস্পতিবার ক্যাম্পাসে ধর্মঘটে শিবির নেতাকর্মীরা প্রকাশ্যে মিছিল বের করলে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। তবে এতে হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি। এদিকে ধর্মঘটের সমর্থনে ক্যাম্পাসে কয়েকটি স্থানে ঝটিকা মিছিলও বের করে শিবির কর্মীরা। তবে পুলিশের বাধার মুখে কোথাও দাঁড়াতে পারেনি তারা। এর আগে গত ১৯ ফেব্রুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শহিদুল্লাহ কলা ভবনের সামনে প্রকাশ্যে মহড়া দেয় শিবিরের অন্তত দেড় শতাধিক নেতাকর্মী। নেতার ওপর হামলায় জড়িতদের ধরতে ওই দিন বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্যের কার্যালয়ে গিয়ে অপরাধীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে স্বারকলিপিও দেয় শিবিরের নেতাকর্মীরা। এ নিয়ে দীর্ঘ দিন গোপনে থাকা সংগঠনটির নেতাকর্মীরা নতুন করে আলোচনায় আসে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষক ও শিক্ষার্থী জানায়, রাসেলের ওপর ছাত্রলীগের হামলার পর ক্যাম্পাসে প্রকাশ্যে এসে শিবির নেতাকর্মীরা নতুন করে আলোচনার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। যেকোনো সময় শিবির নেতাকর্মীরা তাদের হারানো ক্যাম্পাসে আবারও আধিপত্য নিতে পারে বলে মনে করছেন তারা। ক্যাম্পাসে আবারও শিবিরের সহিংস কর্মকাণ্ড পরিচালনা হতে পারে বলেও আশঙ্কা করছেন শিক্ষার্থীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মিজানউদ্দিন শিবিরের প্রকাশ্যে অবস্থানের বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, ‘এক নেতার ওপর হামলার পর হঠাৎ করেই শিবির দীর্ঘ দিন পর আবারও ক্যাম্পাসে তাদের কর্মসূচি পালন করেছে। তবে শিবিরের নাশকতা ঠেকাতে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।’

ক্যাম্পাসের সার্বিক অবস্থা সম্পর্কে নগরীর মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি) আলমগীর হোসেন বলেন, ‘বৃহস্পতিবার ধর্মঘটে শিবিরের ৪ নেতাকর্মীকে আটক করা হয়েছে। নাশকতা বন্ধে এ ধরনের অভিযান চালাতে পুলিশ সবসময় প্রস্তুত আছে। ক্যাম্পাসে অবস্থা বর্তমানে স্বাভাবিক রয়েছে।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ