• শনিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৩৫ পূর্বাহ্ন |

নেইমারের বিরুদ্ধে তদন্তে ফিফা

29919_f4খেলাধুলা ডেস্ক: উরুগুয়ের বিতর্কিত সুয়ারেজের ওপর ফিফার কঠোর নিষেধাজ্ঞা আসার পরে কি বিশ্বকাপের অবিসংবাদিত হার্টথ্রব নেইমারের ওপর নিষেধাজ্ঞা আসবে? আসবে কি আসবে না , সেটা পরের কথা, কিন্তু তার বিরুদ্ধে ফিফা তদন্তে নেমেছে এটাই বড় কথা। নেইমারের অগুনতি ভক্তের কাছে খবরটি বিনা মেঘে বজ্রপাতের মতোই।
নাইজেরিয়ার বিরুদ্ধে দু’গোল করা লিওনেল মেসি যখন রোমান দেবতা জুপিটার হয়ে উঠেছেন, যখন গতকালের ‘ওলে’-র এক প্রতিবেদন বলেছে, মেসি ও নেইমার উভয়ে ম্যাচের ভাগ্যবিধাতা, তবে নেইমারই শ্রেষ্ঠ, তখন ব্রাজিলের মিডিয়াতেই খবর বেরিয়েছে নেইমারের বিরুদ্ধে শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে তদন্ত শুরু করে দিয়েছে ফিফা।
অভিযোগ গুরুতর আবার কেউ বলবেন তেমন গুরুতর নয়। কিন্তু ফিফা যে কারণে গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে তার শক্ত ভিত্তি আছে। ক্যামেরুনের বিরুদ্ধে খেলার আগে তিনি যখন মাঠে আসছিলেন পথে তিনি তার পরিহিত প্যান্টের কিছু অংশ খুলে ফেলেন। আর সে মহূর্তে ক্যামেরার চোখ এড়িয়ে যায়নি। সেখানে দেখা যাচ্ছে তিনি এমন এক ধরনের আন্ডারওয়ার বা অন্তর্বাস পরেছেন যা তার পরিধান বারণ।
ব্রাজিলের মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী, ২২ বছর বয়সী নেইমারের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে যে তিনি ফিফার পোশাক কোড লঙ্ঘন করেছেন। তাকে এমন এক ধরনের অন্তর্বাস পরে মাঠে নামতে দেখা গেছে যা ফিফা নীতি সমর্থন করে না। এর কারণ হলো খেলোয়াড়দের গায়ে এমন কোনো রঙ বা পোশাক থাকতে পারে না, যা কোনোভাবে ধর্মীয় বা অন্য কারো অনুভূতিতে আঘাত দিতে পারে। নেইমার ওইদিন পরেছিলেন বক্সার ব্রান্ডের অন্তর্বাস। এতে ব্রাজিলের পতাকার রঙ আছে। জাতীয়তাবাদী চেতনা ছড়াতে নেইমার এটা পরতে পারেন না। কারণ ফিফার অনুমোদিত ব্রান্ডের অন্তর্বাস রয়েছে। তাই তাকে পরতে হতো।
বৃটেনের ইন্ডিপেনডেন্ট লিখেছে, ব্রাজিলের বিস্ময় বালকের বিরুদ্ধে ফিফা কোড লঙ্ঘনের অভিযোগ এবারেই প্রথম নয়। চলতি বছরের গোড়ায় অ্যাটলেটিকো দ্য মাদ্রিদের বিরুদ্ধে বার্সেলেনোর ম্যাচ চলছিল। যথারীতি এ খেলায় নেইমারের ১১টি স্পন্সর প্রতিষ্ঠান, সে সঙ্গে তার নিজের পোশাকের জন্যও স্পন্সর কোম্পানি ছিল। ক্যামেরুনের বিরুদ্ধে বিশ্বকাপ খেলায় তাকে ‘লুপো আন্ডারওয়ার বক্সার’ ব্রান্ডের অন্তর্বাস পরতে দেখা গেছে। ওই ম্যাচেও নেইমারকে ওই একই ব্রান্ডের অন্তর্বাস পরতে দেখা যায়। নেইমার পাঁচবার তার অন্তর্বাস শো করেছিলেন। পরে এনিয়ে বিতর্ক দেখা দিলে নেইমারের এজেন্ট এ অভিযোগ অস্বীকার করেছিলেন, নেইমার লুপোর মার্কেটিং কৌশলের অংশ হিসেবে ৫ বার তার অন্তর্বাস দেখিয়েছিলেন।
কিন্তু কোনো সন্দেহ নেই, নেইমার এবারেও এটা ওই একই কৌশলের অংশ হিসেবে লুপো বক্সার পরেছেন কিনা। নেইমার ২০১১ থেকে লুপো অন্তর্বাসের অফিসিয়াল মুখপাত্র। তবে পাঁচ বার তা মাঠে প্রদর্শন করার কারণ হিসেবে তিনি বলেছিলেন, এটা ইচ্ছাকৃত ছিল না। ছিল স্বতঃস্ফূর্ত।
২০১২ সালে ইউরো টুর্নামেন্টে পেডিপাওয়ার নামে একটি বেটিং ওয়েবসাাইটের একটি লোগো একইভাবে দেখিয়েছিলেন নেইমারের সতীর্থ ফুটবলার নিকলাস বেন্ডনার। তার ১ লাখ ২৫ হাজার ইউরো জারিমানা হয়েছিল।
ফলহা দ্য সাওপাওলো ব্রাজিলের একটি বহুল প্রচারিত পত্রিকা। এটি বলেছে, নেইমার গত এপ্রিলে অনুষ্ঠিত এক ম্যাচে এমনভাবে অন্তর্বাস দেখান যাতে লুপো লোগোটা স্পষ্টভাবে দর্শকের চোখে পড়েছে। আর এটা তিনি করেছেন ৫ বার। ওই পত্রিকাটির মতে খেলার মাঠে নেইমারের এ ‘অ্যাম্বুশ মার্কেটিং’ কৌশলের পেছনে নেইমারের পিতার হাত থাকতে পারে। তবে সেবার ওই অভিযোগ কোমলমতি তরুণের স্বাভাবিক চাঞ্চল্য বলে পার পাওয়া সম্ভব হয়েছিল। তদন্ত হয়নি। এবারে বিষয়টি গুরুতর। পচা শামুকে নেইমারের পা কেটে যায় কিনা সেটাই দেখার বিষয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ